HSC পদার্থ দ্বিতীয় চতুর্থ অধ্যায় খ প্রশ্ন ও উত্তর



১। তড়িৎ প্রবাহ বন্ধ করলে ইস্পাতের চুম্বকত্ব লোপ পায় না কেন? ব্যাখ্যা কর। [সি.বো.-১৯]

উত্তরঃ ইস্পাতের উচ্চ ধারকতা ও উচ্চ চৌম্বক সহনশীলতা আছে। ইস্পাতের উচ্চ চৌম্বক সহনশীলতার কারণে বিচুম্বকায়িত করতে অনেক বেশি বিরুদ্ধ চুম্বকায়ন ক্ষেত্র প্রয়োজন হয়। এ জন্য তড়িৎ প্রবাহ বন্ধ করলে ইস্পাতের চুম্বকত্ব লোপ পায়।

২। চৌম্বক ক্ষেত্রে একটি স্থির ইলেকট্রনের উপর ক্রিয়াশীল বলের ব্যাখ্যা দাও।

উত্তরঃ একটি গতিশীল আধান তার চারপাশে একটি চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি করে। কোনো আধানকে একটি তড়িৎক্ষেত্রে স্থাপন করলে আধানটি একটি তড়িৎ বল অনুভব করে। ঠিক তেমনি কোনো গতিশীল আধানকে কোনো চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপন করলে, আধানটির গতিশীলতার কারণে এ চৌম্বকক্ষেত্র আধানটির উপর একটি বেগ নির্ভর বল বা চৌম্বক বল প্রয়োগ করে। এ বলের মান আধানের পরিমাণ, আধানের বেগ, চৌম্বকক্ষেত্রের মানের উপর নির্ভর করে। এখন, চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপিত ইলেকট্রনটি স্থির হলে তার বেগ শূন্য হবে। ফলে তার উপর ক্রিয়াশীল বলও শূন্য হবে।

৩। একটি পরিবাহী তামার তার চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি করে কিন্ত নিজে চুম্বক হয় না কেন? ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ কোনো পরিবাহীর মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহের ফলে এর আশে পাশে চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি হয়। বায়োট-স্যাভার্টের সূত্রানুসারে সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্রের মান পরিবাহীর দৈর্ঘ্য, তড়িৎ প্রবাহমাত্রা, পরিবাহী থেকে নির্দিষ্ট বিন্দুর দূরত্ব এবং কোণের উপর নির্ভর করে। ফলে তড়িৎ প্রবাহ করে দিলে পরিবাহী দ্বারা সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্র বিলুপ্ত হয়। এজন্য বলা যায় পরিবাহী তামার তার চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি করে কিন্ত নিজে চুম্বক হয় না।

৪। পরমাণুর কক্ষপথে ঘূর্ণায়মান ইলেকট্রনের মোট চৌম্বক ভ্রামক বলতে কি বুঝ?ব্যাখ্যা কর।[রা.বো.-১৯]

উত্তরঃ ইলেকট্রন হচ্ছে আধানযুক্ত কণা। কক্ষপথে আবর্তনের সাথে সাথে ইলেকট্রন নিজ অক্ষের সাপেক্ষে ঘূরপাক খায়। একে ইলেকট্রনের স্পিন বলে। এই স্পিন বা ঘূর্ণনের জন্য কৌণিক ভরবেগ ও নির্দিষ্ট পরিমাণ চৌম্বক ভ্রামক সৃষ্টি করে। এই ঘূর্ণনের কারণে প্রত্যেক ইলেকট্রন স্বতন্ত্র চৌম্বক ক্ষেত্র তৈরি করে। পরমাণুতে সমান সংখ্যক ইলেকট্রন বিপরীত অভিমুখে ঘূর্ণনরত থাকলে, ঐ পরমাণুতে লব্ধি চৌম্বকক্ষেত্র থাকে না। পক্ষান্তরে, কোনো পরমাণুতে যদি বিপরীত অভিমুখে ঘূর্ণায়মান ইলেকট্রনের সংখ্যা সমান না হয় তাহলে সেক্ষেত্রে চৌম্বক দ্বিমেরু সৃষ্টি হয়। এভাবে ইলেকট্রন স্পিন পদার্থের চৌম্বক ধর্মের প্রভাবক হিসেবে কাজ করে। ফলে তাতে একটি নীট চৌম্বক ভ্রামক বিরাজ করে।




৫। হিস্টেরেসিস লুপ ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ চিত্র চিত্রে একটি ফেরোচৌম্বক পদার্থকে  প্রাবল্যের চৌম্বক ক্ষেত্র স্থাপন করা হয়েছে। দেখা যাচ্ছে যে, সর্বস্তরে এর মান এর পশ্চাদবর্তী হচ্ছে। এটি কখনও সমান বা অগ্রবর্তী হয় না। চুম্বকায়ন মাত্রার এ পশ্চাদবর্তিতাকে হিসটেরেসিস বা শৈথিল্য বলে। বদ্ধ লুপকে হিস্টেরেসিস লুপ বলে।

পড়ুন>> HSC পদার্থ দ্বিতীয় পত্র চতুর্থ অধ্যায় ক প্রশ্ন ও উত্তর

৬। বিদ্যুৎবাহী তারের অদূরে স্থাপিত চৌম্বক শলাকা বিক্ষিপ্ত হয় কেন?

উত্তরঃ কোনো তড়িৎবাহী তারের অদূরে স্থাপিত চৌম্বক শলাকাটি নিম্নোক্ত ক্রিয়াদ্বয়ের মিলিত প্রভাবের কারণে বিক্ষিপ্ত হয়। ১. ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্র ২. বিদ্যুৎ প্রবাহের দ্বারা সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্র।

৭। ঢাকার ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্যের অনুভূমিক উপাংশ  বলতে কি বোঝ?

উত্তরঃ ঢাকার ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্যের অনুভূমিক উপাংশ  বলতে বুঝায় ঢাকার (i) ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্যের অনভূমিক উপাংশের মান  (ii) এক ওয়েবার মেরুশক্তির উত্তর মেরু ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের জন্য অনুভূমিক বরাবর বল অনুভব করে(iii) ঢাকাতে বিনতি কোণ  হলে ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের উলম্ব উপাংশ  ও মোট প্রাবল্য ।

৮। ঢাকায় বিচ্যুতি কোণ  পূর্ব বলতে কি বোঝ?

উত্তরঃ ঢাকার বিচ্যুতি কোণ  পূর্ব বলতে বুঝায়, ঢাকায় মুক্তভাবে নড়নক্ষম কোনো চৌম্বক শলাকার চৌম্বক অক্ষ চৌম্বক মধ্যতলে থেকে ভৌগোলিক অক্ষের সাথে  কোণ উৎপন্ন করে এবং এর উত্তর মেরু ভৌগোলিক অক্ষের পূর্ব দিকে থাকে।

৯। ঢাকার বিনতি  ও বিচ্যুতি  বলতে কি বুঝ?

উত্তরঃ ঢাকার বিনতি  বলতে বুঝায়, ঢাকাতে মুক্তভাবে ঝুলন্ত একটি শলাকার চৌম্বক অক্ষ স্থির অবস্থায় অনুভূমিক তলের সাথে  কোণে আনত থাকবে এবং শলাকার উত্তর মেরু নিচের দিকে ঝুঁকে থাকবে। আবার, ঢাকার বিচ্যুতি বলতে বুঝায়, ঢাকায় মুক্তভাবে নড়নক্ষম কোনো সূচী চুম্বকের চৌম্বক অক্ষ চৌম্বক মধ্যতলে থেকে ভৌগোলিক অক্ষের সাথে কোণ উৎপন্ন করে এবং এর উত্তর মেরু ভৌগোলিক অক্ষের পূর্ব দিকে থাকে।

১০। গতিশীল চার্জের উপর চৌম্বক বল নির্ণয়ে ফ্লেমিঙের বাম হস্ত সূত্র ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ ফ্লেমিংয়ের বামহস্ত নিয়মঃ বাম হাতের তর্জনী, মধ্যমা ও বৃদ্ধাঙ্গুলি পরস্পর সমকোণে প্রসারিত করে তর্জনীকে চৌম্বকক্ষেত্রের  অভিমুখে এবং মাধ্যমাকে ধনাত্মক আধানের বেগের  দিকে স্থাপন করলে বৃদ্ধাঙ্গুলি বলের  দিক নির্দেশ করে। আধানটি ঋণাত্মক হলে বলের দিক বিপরীতমুখী হয়ে যাবে।

পড়ুন>> মডেল টেষ্ট-২০ HSCপদার্থ বিজ্ঞান ১ম পত্র দশম অধ্যায় 

১১। একটি তড়িৎবাহী তারকে চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপন করলে তারটি বল অনুভব করে কেন?

উত্তরঃ একটি গতিশীল তড়িৎবাহী তারের চারপাশে একটি চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি করে। কোনো তড়িৎবাহী তারকে একটি তড়িৎক্ষেত্রে স্থাপন করলে তারটি একটি তড়িৎ বল অনুভব করে। ঠিক তেমনি কোনো গতিশীল তড়িৎবাহী তারকে কোনো চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপন করলে তারটির গতিশীলতার কারণে এ চৌম্বকক্ষেত্র তারটির উপর একটি বেগ নির্ভর বল বা চৌম্বক বল প্রয়োগ করে। এ বলের মান তড়িৎ প্রবাহের পরিমাণ, তারের বেগ, চৌম্বকক্ষেত্রের মানের উপর নির্ভর করে।
বিজ্ঞাপন



১২। কক্ষপথে ঘূর্ণায়মান ইলেকট্রনের জন্য চৌম্বকক্ষেত্র সৃষ্টির কারণ কী?

উত্তরঃ কক্ষপথে ইলেকট্রনের ঘূর্ণনের সময় এক বিশেষ ধরনের কৌণিক অরবিটাল মোমেন্টাম তৈরি হয়। এ মোমেন্টামের কারণে ইলেকট্রন চুম্বকত্ব প্রাপ্ত হয় এবং চারপাশে ক্ষুদ্র মানের চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয়।

১৩। কঠিন ও কোমল চৌম্বক পদার্থ নির্ধারণে হিসটেরিসিস লুপের ব্যবহার ব্যাখ্যা কর।[ব.বো.-১৯]

উত্তরঃ কোমল চৌম্বক পদার্থে হিস্টেরেসিস ক্ষয় কম হয় তাই হিস্টেরেসিস লুপের ক্ষেত্রফল ছোট হয়। অপরপক্ষে কঠিন চৌম্বক পদার্থে হিস্টেরেসিস ক্ষয় বেশি হয় বলে হিস্টেরেসিস লুপের ক্ষেত্রফল বড় হয়। অর্থাৎ কঠিন ও কোমল চুম্বকে হিস্টেরেসিস লুপ যথাক্রমে বড় ও ছোট হয়। অতএব বলা যায়- হিসটেরিসিস লুপ ব্যবহার করে কঠিন ও কোমল চৌম্বক পদার্থ নির্ধারণ করা যায়।

১৪। চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপিত তড়িৎবাহী কুন্ডলীর ওপর টর্কের উৎপত্তি ঘটে কেন?

উত্তরঃ কুন্ডলীর মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহের দরুন এর চারপাশে চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি হয়। তাই তড়িৎবাহী কুন্ডলীকে অপর কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করা হলে দুটি চৌম্বক ক্ষেত্রের মধ্যে মিথস্ক্রিয়া ঘটে। যেহেতু চৌম্বক বলরেখাগুলো পরস্পরের ওপর পার্শ্বচাপ প্রয়োগ করে এবং দৈর্ঘ্য বরাবর সংকুচিত হতে চায় সেহেতু কুন্ডলীটি এমন অবস্থানে আসার চেষ্টা করবে যাতে লব্ধি চৌম্বক বলরেখাগুলো সর্বাপেক্ষা সুস্থিত অবস্থানে আসে। এ কারণেই চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপিত কোনো তড়িৎবাহী কুন্ডলীর ওপর টর্ক উৎপন্ন হয়।

১৫। ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের উলম্ব প্রাবল্যের বৈশিষ্ট্যগুলো লিখ।

উত্তরঃ ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের উল্লম্ব প্রাবল্যের বৈশিষ্ট্যগুলো হলো- ১.এই মান কোনো স্থানের ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের উল্লম্ব উপাংশের সমান ২. ইহাকে  দ্বারা প্রকাশ করা হয় ৩.  এর মান  এর সমানুপাতিক।



১৬। ইলেকট্রন স্পিন কীভাবে পদার্থের চৌম্বক ধর্মের প্রভাবক?

উত্তরঃ ইলেকট্রন হচ্ছে আধানযুক্ত কণা। কক্ষপথে আবর্তনের সাথে সাথে ইলেকট্রন নিজ অক্ষের সাপেক্ষে ঘুরপাক খায়। একে ইলেকট্রনের স্পিন বলে। এই স্পিন বা ঘূর্ণনের জন্য কৌণিক ভরবেগ ও নির্দিষ্ট পরিমাণ চৌম্বক ভ্রামক সৃষ্টি হয়। এই ঘূর্ণনের কারণে প্রত্যেক ইলেকট্রন স্বতন্ত্র চৌম্বক ক্ষেত্র তৈরি করে। পরমাণুতে সমান সংখ্যক ইলেকট্রন বিপরীত অভিমুখে ঘূর্ণনরত থাকলে ঐ পরমাণুতে লব্ধি চৌম্বকক্ষেত্র থাকে না। পক্ষান্তরে, কোনো পরমাণুতে যদি বিপরীত অভিমুখে ঘূর্ণায়মান ইলেকট্রনের সংখ্যা সমান না হয় তাহলে সেক্ষেত্রে চৌম্বক দ্বিমেরু সৃষ্টি হয়। এভাবে ইলেকট্রন স্পিন পদার্থের চৌম্বক ধর্মের প্রভাবক হিসেবে কাজ করে।

১৭। মেরুতে ভূ-চৌম্বক প্রাবল্যের অনুভূমিক উপাংশ শূন্য কেন-ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ মেরুতে ভূ-চৌম্বক প্রাবল্যের অনুভূমিক উপাংশ শূন্য। আমরা জানি, চৌম্বকক্ষেত্র  এবং বিনতি  হলে ভূ-চৌম্বক প্রাবল্যের অনুভূমিক উপাংশ, .আবারতাই দুই মেরুতেএর মান শূন্য।

পড়ুন>> সম্পূর্ণ অফ লাইনে H S C ১ম পত্র ক এবং খ প্রশ্ন ও উত্তরের মোবাইল অ্যাপস

১৮। কোনো পরিবাহীতে তড়িৎ প্রবাহিত হলে পরিবাহীর আশেপাশে চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয় কিন্ত পরিবাহী নিজে চুম্বকে পরিণত হয় না কেন?

উত্তরঃ কোনো পরিবাহীতে তড়িৎ প্রবাহিত হলে এর আশেপাশে চৌম্বক ক্ষেত্র তৈরি হয় কিন্ত পরিবাহীর নিজের হয় না। কোনো পরিবাহকের ক্ষুদ্র অংশ  এর ভেতর দিয়ে যদি  তড়িৎ প্রবাহ চলে এবং এর মধ্যবিন্দু হতে  কোণে  দূরত্বে অবস্থিতবিন্দুতে চৌম্বক ক্ষেত্র. পরিবাহীর আশে পাশে সকল বিন্দুতে  এর একটি মান থাকে। অপর দিকে পরিবাহীর নিজের বিন্দুতে  হয়। তাই,  অর্থাৎ কোনো চৌম্বকক্ষেত্র তৈরি হয় না।

১৯। স্থায়ী চুম্বক তৈরির জন্য পদার্থের কী কী গুণ থাকা প্রয়োজন?

উত্তরঃ স্থায়ী চুম্বক তৈরির জন্য পদার্থে নিম্নলিখিত গুণ বা বৈশিষ্ট্য থাকা প্রয়োজনঃ- (i)উচ্চ নিগ্রহ সহনশীলতা সম্পন্ন হওয়া প্রয়োজন।(ii)পদার্থটির সম্পৃক্ত চৌম্বক মান অধিক হওয়া প্রয়োজন।

২০। ফেরোচৌম্বক পদার্থের বৈশিষ্ট্য লিখ।

উত্তরঃ ফেরোচৌম্বক পদার্থের বৈশিষ্ট্য নিম্নরুপঃ-(i)এরা চুম্বক ক্ষেত্র দ্বারা প্রবলভাবে আকর্ষিত হয়; (ii)এদের চৌম্বক প্রবেশ্যতা ; (iii)এদের নির্দিষ্ট কুরী বিন্দু আছে;(iv)এদের হিসটেরেসিস ধর্ম রয়েছে।

২১।  সমীকরণে কোন কোন ভেক্টর জোড়া পরস্পর লম্ব এবং কোন ভেক্টর জোড়ার মধ্যবর্তী কোণ যেকোনো মানের হতে পারে? ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ  সমীকরণে  ও ভেক্টরদ্বয় পরস্পর লম্ব এবং  ও  ভেক্টরদ্বয় পরস্পর লম্ব। উক্ত সমীকরণে  ও ভেক্টর জোড়ার মধ্যবর্তী কোণ যেকোনো মানের হতে পারে।

২২। চৌম্বক ক্ষেত্র কী ব্যাখ্যা কর। এর এককের সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ কোনো চুম্বক বা তড়িৎবাহী তারের চারদিকে যে অঞ্চল জুড়ে একটি চুম্বক শলাকা বিক্ষেপ প্রদর্শন করে তাকে ঐ চুম্বক বা তড়িৎবাহী তারের চৌম্বকক্ষেত্র বলে। অর্থাৎ একটি গতিশীল আধান বা স্থায়ী চুম্বক তার চারপাশে চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি করে। একটি চৌম্বক ক্ষেত্রের দিকের সাথে সমকোণে একক বেগে চলমান একটি আধানের ওপর ক্রিয়াশীল বল ঐ চৌম্বক ক্ষেত্রের মান। চৌম্বক ক্ষেত্রের একক টেসলা। এর সংজ্ঞা নিম্নরুপঃ কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রে 1 কুলম্ব আধান ক্ষেত্রের দিকের সাথে সমকোণে  বেগে গতিশীল হলে যদি ক্ষেত্রটি আধানের উপর বল প্রয়োগ করে তাহলে ঐ চৌম্বক ক্ষ্রেত্রর মানকে 1 টেসলা বলে।




২৩। সুষম চৌম্বকের ক্ষেত্রে গতিশীল চার্জের উপর ক্রিয়াশীল বল কি কি বিষয়ের উপর নির্ভরশীল? [কু.বো.-১৫]

উত্তরঃ সুষম চৌম্বকক্ষেত্রে গতিশীল চার্জের উপর ক্রিয়াশীল বল নিম্নবর্ণিত বিষয়গুলোর উপর নির্ভর করে- (i)পরিবাহকে তড়িৎ প্রবাহ; (ii)পরিবাহকের দৈর্ঘ্য; (iii) চৌম্বকক্ষেত্রের মান;(iv)তড়িৎবাহী পরিবাহক ও চৌম্বকক্ষেত্রের মধ্যকার কোণ।

২৪। ফেরোচৌম্বক পদার্থের চৌম্বক প্রবণতা ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ যেসব পদার্থকে চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপন করা হলে চুম্বকায়নকারী ক্ষেত্রের দিকে শক্তিশালী চুম্বকত্ব লাভ করে তাদেরকে ফেরোচৌম্বক পদার্থ বলে। যেমন, লোহা, কোবাল্ট, ফেরাইট নিকেল ইত্যাদি। ফেরোচৌম্বক পদার্থের চৌম্বক ধর্মকে ফেরোচৌম্বকত্ব বলে। ফেরোচৌম্বক পদার্থকে একটি অসম চৌম্বক ক্ষেত্রে রাখা হলে ক্ষেত্রটির দূর্বল অঞ্চল থেকে প্রবল অঞ্চলের দিকে প্রবলভাবে ধাবিত হয়। এই কারণে ফেরোচৌম্বক পদার্থের চৌম্বক প্রবণতা  ধনাত্মক এবং অত্যন্ত বৃহৎ মানের।

২৫। ফেরিচৌম্বক পদার্থ বলতে কি বুঝায়?

উত্তরঃ কিছু পদার্থ আছে যাতে দু’টি ভিন্ন ধরনের আয়ন থাকে। আয়নসমূহের মোমেন্ট প্রতি সমান্তরাল সজ্জায় থাকলেও মান সমান না হওয়ায় নীট চৌম্বক মোমেন্ট থাকে। এদেরকে ফেরিচৌম্বক পদার্থ বলে। যেমন- ফেরাইট একট ফেরিচৌম্বক পদার্থ।

২৬। প্যারা চুম্বক পদার্থের ৪টি বৈশিষ্ট্য লেখ।

উত্তরঃ প্যারা চুম্বক পদার্থের ৪টি বৈশিষ্ট্য নিম্নরুপঃ (i)এরা চুম্বক দ্বারা কম আকর্ষিত হয়; (ii)এদের চুম্বক ধারকত্ব নেই; (iii) এদের চৌম্বক প্রবেশ্যতা নেই;(iv)চৌম্বক ক্ষেত্র অপসারণ করলে চুম্বকত্ব লোপ পায়।

২৭। পরিবাহী চৌম্বক ক্ষেত্রের সমকোণে থাকলে তার উপর ক্রিয়াশীল বলের সমীকরণ লেখ।

উত্তরঃ একটি  দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট ধাতব পরিবাহী  প্রাবল্যের সুষম চৌম্বক ক্ষেত্রের সমকোণে থাকলে  হয় এবং  হয়। অতএব এক্ষেত্রে ক্ষুদ্র অংশ  এর উপর ক্রিয়ারত বল হলো  এবং সম্পূর্ণ পরিবাহীর উপর ক্রিয়ার বল,

জানুন>>ডাউন লোড করুন সঠিক ভাবে নামাজ পড়ার মোবাইল অ্যাপস

২৮। চৌম্বক ফ্লাস্ক ঘনত্ব বলতে কি বুঝ?

উত্তরঃ কোনো সুষম চৌম্বক ক্ষেত্রের সাথে লম্বভাবে অবস্থিত কোনো তলের একক ক্ষেত্রফলের মধ্যদিয়ে অতিক্রান্ত বলরেখার সংখ্যাকে চৌম্বক ফ্লাস্ক ঘনত্ব বলে। চৌম্বক ক্ষেত্রই চৌম্বক ফ্লাস্ক ঘনত্ব। একে সাধারণত  চিহ্ন দ্বারা প্রকাশ করা হয়। এর একক  যা  নামে অভিহিত হয়।

২৯। কোনো কুন্ডলীর চৌম্বক ক্ষেত্রের মান  বলতে কি বঝ? [রা.বো.-১৭]

উত্তরঃ কোনো কুন্ডলীর চৌম্বক ক্ষেত্রের মান বলতে বুঝায় ঐ কুন্ডলীর চৌম্বক ক্ষেত্রের অভিমুখের সাথে সমকোণে 1 কুলম্ব চার্জ বেগে গতিশীল হলে তা বল অনুভব করবে।

৩০। ডায়াচৌম্বক পদার্থে চৌম্বক মোমেন্ট থাকে না কেন? [রা.বো.-১৫, সি.বো.-১৭]

উত্তরঃ যেসব পদার্থের চৌম্বক প্রবেশ্যতা,  এবং চৌম্বক গ্রাহীতা  ঋণাত্মক তাদেরকে ডায়াচৌম্বক পদার্থ বলে। যেমন- ইত্যাদি। এদেরকে চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করলে এরা চৌম্বকক্ষেত্র থেকে সরে যায় অর্থাৎ এদেরকে শক্তিশালী চুম্বক মেরুর কাছে আনলে বিকর্ষিত হয়। তাই এদের চৌম্বক মোমেন্ট থাকে না।

৩১। তড়িৎ বর্তনীতে অ্যামিটার কেন শ্রেণিতে সংযুক্ত করা হয়? [সকল বো.-১৮]

উত্তরঃ তড়িৎ বর্তনীতে অ্যামিটার শ্রেণিতে সংযুক্ত করা হয়। কারণ, অ্যামিটারের অভ্যন্তরীণ রোধ  এর তুলনায় বাইরের রোধ  অনেক বড় হয়। সমান্তরালে যুক্ত করলে প্রবাহিত তড়িৎ অ্যামিটারের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত হবে। ফলে সমগ্র বর্তনীতে অপেক্ষাকৃত কম তড়িৎ প্রবাহিত হবে। তাই সমগ্র বর্তনীর প্রবাহ নির্ণয় করা সম্ভব হবে না। শ্রেণিতে সংযুক্ত করলে একই প্রবাহ অন্যান্য রোধ ও অ্যামিটারের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত হবে। তাই তড়িৎ বর্তনীতে অ্যামিটার শ্রেণিতে সংযুক্ত করা হয়।

৩২। ভৌগোলিক ও চৌম্বক মধ্যতলের অন্তর্ভূক্ত কোণ ব্যাখ্যা কর।[দি.বো.-১৭]

উত্তরঃ পৃথিবীর কোনো স্থানে ভৌগোলিক মধ্যতল ও চৌম্বক মধ্যতলের মধ্যবর্তী কোণকে ঐ স্থানের ভূ-চুম্বকের বিচ্যুতি কোণ বা  বিচ্যুতি বলে। একে  দ্বারা প্রকাশ করা হয় ও ডিগ্রিতে মাপা হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানেবিচ্যুতি কোণের মান বিভিন্ন।

পড়ুন>> প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ প্রস্তুুতিমূলক পরীক্ষা ” মডেল টেস্ট -১১ Job model test

৩৩। অ্যাম্পিয়ারের সূত্রটি ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ অ্যাম্পিয়ারের সূত্রটি নিম্নরুপঃ- কোনো বদ্ধপথ বরাবর কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রের রৈখিক সমাকলন পথটি দ্বারা আবদ্ধ ক্ষেত্রফলের মধ্যে প্রবাহিত মোট তড়িৎ প্রবাহের  গুণ। গাণিতিকভাবে  এখানে,      = শূন্যস্থানের চৌম্বক প্রবেশ্যতা, =পথের ব্যবকলন সরণ ভেক্টর, প্রতীক দ্বারা বদ্ধপথের সমাকলন বুঝানো হয়েছে।




৩৪। শূন্য স্পিন, স্পিন-এক, স্পিন-দুই কাকে বলে চিত্রসহ লিখ।

উত্তরঃ যে স্পিনবিশিষ্ট কণাকে একটি বিন্দুর মতো দেখায় অর্থাৎ সবদিক থেকে দেখলে একই রকম দেখায় তার স্পিনই শূন্য স্পিন।আবার, কোনো কণাকে একটি একমুখী তীরের মতো দেখালে অর্থাৎকোণে ঘুরালে অর্থাৎ পূর্ণ আবর্তনে দেখতে একই রকম হলে তার স্পিন হবে স্পিন-এক। চিত্র আবার, দুই মাথাওয়ালা তীরের মতো কোনো বস্তুর স্পিনকে বলা হয় স্পিন-দুই।

৩৫। তড়িৎ প্রবাহের চৌম্বক ক্রিয়া বলতে কি বোঝ?

উত্তরঃ যে ক্রিয়া দ্বারা পরিবাহীর ভেতর দিয়ে তড়িৎ প্রবাহের ফলে এর চারপাশে চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি হয়। সেই ক্রিয়াই হলো তড়িৎ প্রবাহের চৌম্বক ক্রিয়া।

৩৬। একটি ফেরোচৌম্বক পদার্থকে তাপ দিতে থাকলে কী ঘটবে?

উত্তরঃ ফেরোচৌম্বক পদার্থের চৌম্বক গ্রহীতা  তাপমাত্রার ব্যস্তানুপাতিক। এ কারণে ফেরোচৌম্বক পদার্থকে তাপ দিতে থাকলে এর চৌম্বক গ্রহীতা কমতে থাকবে। তাপমাত্রাকে একটি বিশেষ মানের(কুরীবিন্দু) উর্ধ্বে উঠলে বিনিময় যুগলায়ন হঠাৎ বিলুপ্ত হয়ে বস্তুটি প্যারাচুম্বক পদার্থে পরিণত হবে।

৩৭। দুটি একমুখী সমান্তরাল প্রবাহের ক্ষেত্রে চৌম্বক বল পরস্পর আকর্ষণ মূলক হয় কেন?

উত্তরঃ চিত্র  এবং  দুটি সমান্তরাল পরিবাহী শূন্যস্থানে অবস্থিত। এদের মধ্য দিয়ে যথাক্রমে  ও  প্রবাহ একই দিকে প্রবাহিত হচ্ছে। পরিবাহী দুটির মধ্যবর্তী দূরত্ব .  পরিবাহীর  তড়িৎ প্রবাহের জন্য  পরিবাহীর যেকোনো বিন্দুতে চৌম্বকক্ষেত্র  এর অভিমুখ পরিবাহীদ্বয়ের সমতলের সাথে লম্ব এবং সমতলের ভেতরের দিকে।  পরিবাহীর  দৈর্ঘ্যের ওপর প্রযুক্ত বল । ফ্লেমিঙ্কের বামহস্ত সূত্রানুসারে এই বলের দিক  এর দিকে। অনুরুপভাবে,  পরিবাহীও  এর দিকে এই পরিমাণ বল অনুভব করে। তাই দুটি একমুখী সমান্তরাল প্রবাহের ক্ষেত্রে চৌম্বক বল পরস্পর আকর্ষণমূলক হয়।

৩৮। “চুম্বক দ্বারা বৈদ্যুতিক শক্তি তৈরি করা যায়”-ব্যাখ্যা কর।[ঢা.বো.-১৬]

উত্তরঃ একটি গতিশীল চুম্বক কিংবা তড়িৎবাহী কুন্ডলীর প্রভাবে একটি বদ্ধ তার কুন্ডলীতে ক্ষণস্থায়ী তড়িচ্চালক শক্তি এবং তড়িৎ প্রবাহ সৃষ্টি করা যায়। একটি চুম্বককে স্থির রেখে একটি বদ্ধ কুন্ডলীকে চুম্বকের দিকে দ্রুত সরালে অথবা বদ্ধ কুন্ডলীকে স্থির রেখে চুম্বকটিকে কুন্ডলীর দিকে সরালে অথবা চুম্বক ও কুন্ডলীকে এক সাথে পরস্পরের দিকে আনলে বদ্ধ কুন্ডলীতে তড়িচ্চালক শক্তি অর্থাৎ বৈদ্যূতিক শক্তি উৎপন্ন হবে। এ প্রক্রিয়াটির নাম হলো তড়িৎ চুম্বকীয় আবেশ।

৩৯। ডায়া চৌম্বক পদার্থ চৌম্বক পদার্থ হওয়া সত্ত্বেও চুম্বক দ্বারা বিকর্ষিত হয় কেন?ব্যাখ্যা কর।[য.বো.-১৬]

উত্তরঃ ডায়া চৌম্বক পদার্থের ওপর চৌম্বক ক্ষেত্র প্রয়োগ করলে একটি চৌম্বক মোমেন্ট আবিষ্ট হয় এবং এর অভিমুখ বহিঃস্থ চৌম্বক ক্ষেত্রের বিপরীত দিকে হয়, ফলে বিকর্ষণ হয়। এজন্যই ডায়াচৌম্বক পদার্থ চৌম্বক পদার্থ হওয়া সত্ত্বেও চুম্বক দ্বারা বিকর্ষিত হয়।

৪০। স্থায়ী চুম্বক তৈরিতে কাঁচা লোহা ব্যবহার করা হয় না-ব্যাখ্যা কর।[ব.বো.-১৬]

উত্তরঃ স্থায়ী চুম্বক তৈরিতে কাঁচা লোহা ব্যবহৃত হয় না। কারণ স্থায়ী চুম্বক তৈরির জন্য পদার্থের উচ্চমানের নিগ্রহ সহনশীলতা, উচ্চমানের ধারণক্ষমতা ও হিস্টেরেসিস লুপের ক্ষেত্রফল বেশি হওয়া প্রয়োজন। এই বৈশিষ্ট্যগুলো কাঁচা লোহায় নেই। তাই কাঁচা লোহাকে কোমল চুম্বক তৈরিতে ব্যবহার করা হলেও স্থায়ী চুম্বক তৈরিতে ব্যবহার করা হয় না।

৪১। একটি ছোট দন্ড দেওয়া হলো। সেটা প্যারাচৌম্বক কিংবা ডায়াচৌম্বক কিংবা ফেরোচৌম্বক তা কীভাবে পরীক্ষা করবে?

উত্তরঃ দন্ডটিকে সুতা দিয়ে অনুভূমিকভাবে একটি শক্তিশালী তড়িৎচুম্বকের দুপ্রান্তের মাঝে ঝুলিয়ে দিতে হবে। এবার তড়িৎচুম্বক চালু করে দিলে (i)দন্ডটি দ্রুত ঘুরে তড়িৎচুম্বকেরবরাবর নিজেকে স্থাপন করলে- দন্ডটি ফেরো চৌম্বক পদার্থ(ii) ধীরে ধীরে ঘুরেবরাবর নিজেকে স্থাপন করলে- প্যারাচৌম্বক পদার্থ এবং(iii) তড়িৎ চুম্বকেরঅভিমুখের সঙ্গে সমকোণে স্থাপিত হলে পদার্থটি ডায়া চৌম্বক পদার্থ।

৪২। বিচ্ছিন্ন চৌম্বক মেরু পাওয়া সম্ভব নয় কেন? [রা.বো.-১৫]

উত্তরঃ প্রত্যেক চুম্বকের দুটি মেরু থাকে- উত্তর মেরু ও দক্ষিণ মেরু। চুম্বককে ভাঙলেও দুই মেরু বিভক্ত হয় না। যতবারই ভাঙা হোক, প্রতিটি ভগ্ন অংশেই উত্তর মেরু ও দক্ষিণ মেরু বিদ্যমান থাকে। এমনকি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বা অণুচুম্বকের ক্ষেত্রেও এরুপ ঘটে। তাই বিচ্ছিন্ন চৌম্বক মেরু পাওয়া সম্ভব নয়।

৪৩। ফ্লেমিং-এর ডান হস্ত নিয়ম বলতে কি বুঝ?

উত্তরঃ ফ্লেমিং-এর ডান হস্ত নিয়মটি হলো-একটি বিদ্যুৎবাহী তারকে বিদ্যুৎ প্রবাহের দিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি রেখে দক্ষিণ হস্তে ধরলে অন্য আঙ্গুলগুলো চৌম্বক ক্ষেত্রের অভিমুখে ঘিরে থাকবে অর্থাৎ চৌম্বক ক্ষেত্রের দিক নির্দেশ করবে। এ নিয়ম ডান হস্ত নিয়ম হিসেবে পরিচিত। এ নিয়মে সহজেই কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রের দিক নির্ণয় করা যায়।

৪৪। হিসটেরেসিস লুপের সাহোয্যে পদার্থের কী কী বিষয় জানা যায়?

উত্তরঃ হিসটেরেসিস লুপের সাহোয্যে কোনো চৌম্বক পদার্থের নিম্নোক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে জানা যায়- ১. ধারণ ক্ষমতা; ২. সহনশীলতা; ৩. চৌম্বকগ্রাহীতা ও ৪. প্রবেশ্যতা।




৪৫। বায়োট-স্যাভার্টের সূত্রটি বিবৃত কর।

উত্তরঃ বায়োট-স্যাভার্টের সূত্রটি হলো- ক্ষুদ্র দৈর্ঘ্যের কোনো পরিবাহীর মধ্য দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হলে এর চারপাশে যে চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয় তার কোনো বিন্দুতে চৌম্বকীয় আবেশের মান- ১. বিদ্যুৎ প্রবাহমাত্রার সমানুপাতিক; ২. পরিবাহীর দৈর্ঘ্যের সমানুপাতিক; ৩. পরিবাহীর মধ্যবিন্দু হতে ঐ বিন্দুর সংযোগ রেখা এবং পরিবাহীর অন্তর্ভূক্ত কোণের সাইনের সমানুপাতিক এবং ৪. পরিবাহীর মধ্যবিন্দু হতে ঐ বিন্দুর দূরত্বের বর্গের ব্যস্তানুপাতিক।

৪৬। একটি তড়িৎবাহী পরিবাহী চৌম্বক ক্ষেত্রের সমান্তরাল থাকলে এর উপর প্রযুক্ত বল কী হবে?

উত্তরঃ পরিবাহীর উপর চৌম্বক ক্ষেত্র কর্তৃক প্রযুক্ত বল, পরিবাহী চৌম্বক ক্ষেত্রের সমান্তরাল থাকলে  অর্থাৎ  হয়। কাজেই এক্ষেত্রে পরিবাহীর উপর কোনো বল প্রযুক্ত হবে না।

৪৭। চুম্বকের মেরুদ্বয়কে অবিচ্ছেদ্য মনে করা হয় কেন?

উত্তরঃ আমরা জানি, প্রত্যেক চুম্বকের দুটি মেরু থাকে, উত্তর মেরু ও দক্ষিণ মেরু। চুম্বককে ভাঙলেও দুই মেরু বিভক্ত হয় না। কারণ যতবারই ভাঙা হোক, প্রতিটি ভগ্ন অংশেই উত্তর মেরু ও দক্ষিণ মেরু বিদ্যমান থাকে। এমনকি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বা অণু চুম্বকের ক্ষেত্রেও এরুপ ঘটে। তাই বিচ্ছিন্ন চৌম্বক মেরু পাওয়া সম্ভব নয়।তাই মনে করা হয় চুম্বকের মেরুদ্বয়কে অবিচ্ছেদ্য।

৪৮। কোনো স্থানের বিনতি  বলতে কি বোঝায়? [ব.বো.-১৫, দি.বো.-১৫]

উত্তরঃ কোনো স্থানের বিনতি  বলতে বুঝায় ঐ স্থানে একটি দন্ড চুম্বককে মুক্তভাবে তার ভারকেন্দ্র হতে ঝুলালে দন্ড চুম্বকটির দক্ষিণ মেরু অনুভূমিকের নিচের দিকে ঝুলে স্থির থাকবে এবং চুম্বকের চৌম্বক অক্ষ অনুভূমিক তলের সাথে  কোণ উৎপন্ন করবে।

৪৯। চৌম্বকক্ষেত্রে গতিশীল চার্জ বল অনুভব করে কেন? [দি.বো.-১৫]

উত্তরঃ একটি গতিশীল আধান তার চারপাশে একটি চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি করে। কোনো আধানকে একটি তড়িৎক্ষেত্রে স্থাপন করলে আধানটি একটি তড়িৎ বল অনুভব করে। ঠিক তেমনি কোনো গতিশীল আধানকে কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করলে আধানটির গতিশীলতার কারণে এ চৌম্বকক্ষেত্র আধানটির উপর একটি বেগ নির্ভর বল বা চৌম্বক বল প্রয়োগ করে। এ বলের মান আধানের পরিমাণ, আধানের বেগ, চৌম্বক্ষেত্রের মানের উপর নির্ভর করে।

৫০। নরম লোহার চেয়ে ইস্পাতের ধারকতা ও সহনশীলতা বেশি কেন?

উত্তরঃ নরম লোহার নিগ্রহ-সহনশীলতা ইস্পাত অপেক্ষা কম। অর্থাৎ ইস্পাতকে বিচুম্বকায়িত করতে যে পরিমাণ বিরুদ্ধ চুম্বকায়ন ক্ষেত্র প্রয়োজন তা নরম লোহার তুলনায় অনেক বেশি। এ কারনেই নরম লোহার চেয়ে ইস্পাতের ধারকতা ও সহনশীলতা বেশি।




৫১। তড়িৎবাহী কুন্ডলীকে চৌম্বক দ্বিমেরু বলে কেন?

উত্তরঃ কোনো কুন্ডলীর মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহিত হলে, যেদিক থেকে তাকালে কুন্ডলীর মধ্যে ঘড়ির কাঁটার বিপরীতে তড়িৎ প্রবাহিত হয়, কুন্ডলীটির সেই প্রান্তে উত্তর মেরু এবং এর বিপরীত প্রান্তে দক্ষিণ মেরুর সৃষ্টি হয়। এ কারণেই তড়িৎবাহী কুন্ডলীকে চৌম্বক দ্বিমেরু বলে। আয়তাকার, বৃত্তাকার ইত্যাদি যেকোনো আকৃতরই কুন্ডলী হোক না কেন প্রত্যেকেই এক একটি চৌম্বক ডাইপোল হিসেবে কাজ করে।

৫২। ডায়া, প্যারা ও ফেরোচৌম্বক পদার্থের মধ্যকার তুলনা কর।

উত্তরঃ যেসব পদার্থের আণবিক চৌম্বক দ্বিমেরু মোমেন্ট শূন্য অর্থাৎ যেসব পদার্থের অণু স্থায়ী চৌম্বক দ্বিমেরু নয় সেগুলোই ডয়োচৌম্বক পদার্থ। এসব পদার্থের অণুস্থ বিভিন্ন বিভিন্ন ইলেকট্রনের কক্ষীয় ও স্পিন গতির জন্য সৃষ্ট চৌম্বক ভ্রামকের ভেক্টর যোগফল শূন্য হয়। প্যারাচৌম্বক পদার্থের অণূস্থ বিভিন্ন ইলেকট্রনের কক্ষীয় ও স্পিন গতির জন্য সৃষ্ট চৌম্বক মোমেন্টের ভেক্টর যোগফল শূন্য হয় না বলে অণুগুলো স্থায়ী চৌম্বক দ্বিমেরু অর্থাৎ এদের অণুগুলোর স্থায়ী চৌম্বক মোমেন্ট বিদ্যমান। ফেরোচৌম্বক পদার্থের অণুগুলোতেও স্থায়ী চৌম্বক মোমেন্ট বিদ্যমান। তবে প্যারাচৌম্বক পদার্থের তুলনায় ফেরোচৌম্বক পদার্থের অণুগুলোর স্থায়ী চৌম্বক মোমেন্ট অনেক বেশি শক্তিশালী। তদুপরি, প্যারাচৌম্বক পদার্থের(কেলাস) মোমেন্টগুলো ইতস্ততঃভাবে ছড়ানো থাকে এবং ফেরোচৌম্বক পদার্থে(কেলাস) অনেকগুলো চৌম্বক মোমেন্ট সমান্তরালে ও একই অভিমুখী থেকে এক একটি ডোমেইন গঠন করে।

৫৩। কীভাবে তড়িৎবাহী বৃত্তাকার কুন্ডলীর কেন্দ্রে চৌম্বক ক্ষেত্রের মান বৃদ্ধি করা সম্ভব?

উত্তরঃ তড়িৎবাহী বৃত্তাকার কুন্ডলীর কেন্দ্রে চৌম্বক ক্ষেত্রে,  সমীকরণ হতে স্পষ্ট যে,  এবং  সুতরাং কুন্ডলীর পাকসংখ্যা ও তড়িৎপ্রবাহের মান বাড়িয়ে এবং ব্যাসার্ধের মান কমিয়ে কুন্ডলীর কেন্দ্রে চৌম্বক ক্ষেত্রের মান বৃদ্ধি করা সম্ভব।

৫৪। অস্থায়ী চুম্বক তৈরিতে কাঁচা লোহা ব্যবহার করা হয় কেন?

উত্তরঃ অস্থায়ী চুম্বক তৈরিতে কাঁচা লোহা ব্যবহার করা হয়। কারণ কাঁচা লোহার- ১. সম্পৃক্ত চুম্বকন মাত্রা উচ্চ মানের; ২. ধারণ ক্ষমতা কম। ফলে চৌম্বকক্ষেত্র সরিয়ে নিলে এটি সম্পূর্ণ চুম্বকত্ব সহজেই হারিয়ে ফেলে; ৩. সহনশীলতা কম; ৪. হিসটেরেসিস ক্ষয় কম হয়।

৫৫। পরিবাহীর দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি পেলে এর আশেপাশের কোনো বিন্দুতে চৌম্বক ক্ষেত্রের মানের কীরুপ পরিবর্তন হবে?

উত্তরঃ বায়োট-সাভার্টের সূত্রানুসারে, কোনো পরিবাহীর মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহের ফলে এর আশেপাশের কোনো বিন্দুতে চৌম্বক সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্রের মান পরিবাহীর দৈর্ঘ্যের সমানুপাতিক। তাই পরিবাহীর দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি পেলে এর আশেপাশের কোনো বিন্দুতে চৌম্বক ক্ষেত্রের মান বৃদ্ধি পাবে।

৫৬। ট্রান্সফরমার ‘কোর’ তৈরিতে নরম লোহা ব্যবহৃত হয় কেন?

উত্তরঃ আমরা জানি, নরম লোহার ধারণক্ষমতা এবং চুম্বকায়ন পরিমাত্রা অনেক বেশি এবং সহনশীলতা তুলনামুলকভাবে কম থাকে। তাই ট্রান্সফরমারের কোর হিসেবে নরম লোহা ব্যবহৃত হয়।

৫৭। ডোমেইন বলতে কি বুঝ?

উত্তরঃ ফেরোচৌম্বক পদার্থের অভ্যন্তরে অজস্র ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অঞ্চল রয়েছে। এ অঞ্চলে  সংখ্যক পরমাণু থাকে এবং এ অঞ্চলটি একটি স্বতন্ত্র চুম্বকের ন্যায় আচরণ করে। এ অঞ্চলকে ডোমেইন বলে।

৫৮। কাগজ তলে চৌম্বক ক্ষেত্রের দিক কীভাবে নির্দেশিত হয়?

উত্তরঃ কাগজ তলে উপরের দিকে ও ভিতরের দিকে দুটি অভিলম্ব দিক আছে। চৌম্বক ক্ষেত্র কাগজ তলের বাইরের দিকে অর্থাৎ পাঠকের দিকে তা দেখানোর জন্য কতকগুলো ডট  চিহ্ন দ্বারা এবং ভিতরের দিকে প্রকাশের জন্য কতকগুলো ক্রস  চিহ্ন ব্যবহার করা হয়। এ ধরনের চিহ্ন দেখলেই বুঝা যায় চৌম্বক ক্ষেত্রের দিক কোন দিকে।

৫৯। বিদ্যুৎ প্রবাহের দ্বারা সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্রের দিক কীভাবে নির্ণয় করবে?

উত্তরঃ একটি বিদ্যুৎবাহী তারকে বিদ্যুৎ প্রবাহের দিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি রেখে দক্ষিণ হস্তে ধরলে অন্য আঙ্গুলগুলো চৌম্বকক্ষেত্রের দিক নির্দেশ করবে। এটি ফ্লেমিং এর ডান হস্ত নিয়ম নামে পরিচিত।

৬০। চার্জের অভিমুখ ও চৌম্বক ক্ষেত্রের অভিমুখ পরস্পর লম্ব হলে গতিশীল চার্জের উপর ক্রিয়াশীল বল কেমন হয়?

উত্তরঃ চার্জের অভিমুখ ও চৌম্বক ক্ষেত্রের অভিমুখ পরস্পর লম্ব হলে গতিশীল চার্জের উপর ক্রিয়াশীল বলের মান সর্বোচ্চ হবে।  মানের চার্জ  চৌম্বক ক্ষেত্রের সাথে লম্বভাবে  বেগে অগ্রসর হলে তার উপর ক্রিয়াশীল বল, .

৬১। পরিবাহী তার হতে কোনো বিন্দুর দূরত্ব বৃদ্ধি পেলে চৌম্বক ক্ষেত্র কেমন হবে?

উত্তরঃ বায়োট-সাভার্টের সূত্রানুসারে, কোনো পরিবাহীর মধ্য দিয়ে তড়িৎ প্রবাহের ফলে এর আশেপাশের কোনো বিন্দুতে চৌম্বক ক্ষেত্রের মান পরিবাহীর মধ্যবিন্দু হতে ঐ বিন্দুর দূরত্বের বর্গের ব্যস্তানুপাতিক। তাই পরিবাহী তার হতে কোনো বিন্দুর দূরত্ব বৃদ্ধি পেলে চৌম্বক ক্ষেত্রের মান হ্রাস পাবে।

৬২। গতিশীল চার্জের উপর ক্রিয়াশীল চৌম্বক বলের দিক কীভাবে নির্ণয় করবে?

উত্তরঃ ডান হাত বিস্তৃত করলে অঙ্গুলিগুলোর দিক চৌম্বক ক্ষেত্রের দিক এবং বৃদ্ধাঙ্গুলি চার্জের বেগের দিক নির্দেশ করলে ধনাত্মক চার্জের ক্ষেত্রে হাতের তালুর উপরে বহির্মুখী লম্ব চৌম্বক বলের দিক নির্দেশ করবে। ঋণাত্মক চার্জের ক্ষেত্রে বল বিপরীতিমুখী অর্থাৎ হাতের তালুর ভেতরের দিকে লম্ব বরাবর হবে।




৬৩। আয়তাকার তড়িৎবাহী কুন্ডলীকে চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করলে কী ঘটবে?

উত্তরঃ তড়িৎবাহী আয়তাকার কুন্ডলীকে চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করলে এর বাহুর উপর চৌম্বক ক্ষেত্র বল প্রয়োগ করবে। কুন্ডলীর দু’টি বিপরীত বাহুর উপর সমান ও বিপরীতমুখী বল প্রযুক্ত হওয়ায় এটি টর্ক বা ব্যবর্তন বল লাভ করে। ফলে কুন্ডলীটি ঘুরতে চেষ্টা করবে।

৬৪। স্পিন-1 বিশিষ্ট কণা কিভাবে শনাক্ত করা যায়?

উত্তরঃ স্পিন-1 বিশিষ্ট কণা দেখতে একমুখী তীরের মতো। এ কণাকে  ঘুরালে একই রকম দেখা যাবে। অর্থাৎ পূর্ণ আবর্তনে স্পিন-1 বিশিষ্ট কণা দেখতে একই রকম হয়। এসব দেখে স্পিন-1 বিশিষ্ট শনাক্ত করা যায়।

৬৫। বিশেষভাবে নির্মিত চৌম্বক ক্ষেত্রের মধ্যদিয়ে এক ঝাঁক সিলভার ধাতুর পরমাণু প্রবাহিত করলে কী ঘটবে?

উত্তরঃ বিশেষভাবে নির্মিত চৌম্বক ক্ষেত্রের মধ্যদিয়ে সিলভার ধাতুর এক ঝাঁক পরমাণু প্রবাহিত করা হলে পরমাণুসমুহ দুই ভাগ হয়ে যায়। এর কারণ প্রতিটি পরমাণুর ইলেকট্রন একাই ক্ষুদ্র চুম্বক দ্বিমেরুর মতো আচরণ করে এবং এদের দু’টি ভিন্ন দিক থাকে। পরমাণুসমূহ বেঁকে যাওয়ায় বোঝা যায় যে, পরমাণুসমূহ চুম্বকের ন্যায় আচরণ করে।

৬৬। চৌম্বক শলাকাকে দক্ষিণ মেরুর দিকে নিয়ে গেলে কী হবে?

উত্তরঃ চৌম্বক শলাকাকে দক্ষিণ মেরুর দিকে নিয়ে যেতে থাকলে এর দক্ষিণ মেরু ক্রমশ ভূ-পৃষ্ঠের দিকে ঝুঁকে যায়। এভাবে ধীরে ধীরে শলাকাটিকে ভূ-চুম্বকের দক্ষিণ মেরুতে নিয়ে গেলে এর চৌম্বক অক্ষ দক্ষিণ মেরু নিচে রেখে সম্পূর্ণ উলম্ব হয়ে থাকে।

৬৭। পৃথিবী এক চুম্বকের মতো আচরণ করে-ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ মুক্তভাবে সুতার সাহায্যে অনুভূমিকভাবে ঝুলান একটি চুম্বক শলাকা সব সময় পৃথিবীর উত্তর-দক্ষিণ মেরু বরাবর অবস্থান করে। দীর্ঘদিন খাড়াভাবে মাটিতে পোঁতা একটি লোহার দন্ডে ক্ষীণ চুম্বক ধর্ম দেখা যায়। এই সকল উদাহরণ পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় যে, পৃথিবী একটি বৃহৎ চুম্বক।

৬৮। ডায়াচৌম্বক পদার্থের ধর্ম লেখ।

উত্তরঃ নিম্নে ডায়াচৌম্বক পদার্থের ৫টি ধর্ম দেওয়া হলো-(i)এরা চুম্বক দ্বারা বিকর্ষিত হয়;(ii)এরা কঠিন, তরল এবং বায়বীয় হয়;(iii)এদের চৌম্বক ধারকত্ব ধর্ম নেই;(iv)এদের কুরী বিন্দু নেই;(v)এদের চৌম্বকগ্রাহিতা বা প্রবণতা ঋণাত্মক।

৬৯। চৌম্বক মধ্যতলের সাথে সমকোণে অবস্থিত কোন তলে আপাত বিনতির মান অসীম কেন?ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ পৃথিবীর কোনো স্থানে ভারকেন্দ্র দিয়ে মুক্তভাবে ঝুলন্ত চুম্বকের চৌম্বক অক্ষ অনুভূমিকের সাথে যে কোণ উৎপন্ন করে স্থির থাকে তাকে ঐ স্থানের ভূ-চুম্বকের বিনতি কোণ বা বিনতি কোণ বলে। পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানের বিনতি বিভিন্ন। এখন চৌম্বক মধ্যতলের সাথে সমকোণে অবস্থিত কোনো তলের সাথে চৌম্বক অক্ষ  কোণ উৎপন্ন করে। ফলে  এক্ষেত্রে,  অর্থাৎ আপাত বিনতির মান অসীম হবে।

পড়ুন>> সুপার ফুড মিরাক্কেল শাক সজনে পাতা

৭০। হল ক্রিয়ার সাহয্যে কি কি নির্ণয় করা যায়?

উত্তরঃ হল ক্রিয়ার সাহয্যে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো নির্ণয় করা যায়ঃ (ক) প্রবাহ সৃষ্টিকারী চার্জের প্রকৃতি (ধনাত্মক বা ঋণাত্মক); (খ) হল বিভব ও প্রতি একক আয়তনে চার্জের সংখ্যা।

৭১। তড়িৎবাহী পরিবাহীর চতুর্দিকে সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্রের কোনো বিন্দুতে চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্যএর সমানুপাতিক না হয়ে -এর সমানুপাতিক হয় কেন?

উত্তরঃ কোনো চুম্বক বা তড়িৎবাহী তারের চতুর্দিকে যে অঞ্চল জুড়ে একটি চৌম্বক শলাকা বিক্ষেপ দেখায় তাই ঐ চৌম্বক বা তড়িৎবাহী তারের চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্য। এর মান তড়িৎবাহী তারের মধ্যবিন্দু হতে নির্ণেয় বিন্দুর সংযোগ রেখার উল্লম্ব উপাংশের সমানুপাতিক। অনুভূমিক ও উল্লম্ব উপাংশকে যথাক্রমে  ও  দ্বারা প্রকাশ করা যায়। এজন্যই তড়িৎবাহী পরিবাহীর চতুর্দিকে সৃষ্ট চৌম্বক ক্ষেত্রের কোনো বিন্দুতে চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্য  এর সমানুপাতিক না হয়ে  এর সমানুপাতিক হয়।

 3,135 total views,  3 views today