পদার্থ বিজ্ঞান   পঞ্চম  অধ্যায়ঃ (খ) প্রশ্ন ও উত্তর

১। চৌম্বক ফ্লাস্ক একটি স্কেলার রাশি- ব্যাখ্যা কর। [রা.বো.-১৯]

উত্তরঃ আমরা জানি, দুটি ভেক্টরের স্কেলার গুণনে গুণফল একটি স্কেলার রাশি পাওয়া যায়। এখন, চৌম্বক ফ্লাক্স,  অর্থাৎ চৌম্বক ফ্লাক্স হচ্ছে চৌম্বকক্ষেত্র ভেক্টর এবং ক্ষেত্রফল ভেক্টরের স্কেলার গুণফল। অতএব, উপরোক্ত সম্পর্ক অনুসারে চৌম্বক ফ্লাস্ক একটি স্কেলার রাশি।

২। দিক পরিবর্তী তড়িচ্চালক বলের ক্ষেত্রে গড় মানের চেয়ে আপাত মান বেশি গুরুত্বপূর্ণ কেন? [য.বো.-১৯]

উত্তরঃ দিক পরিবর্তী তড়িচ্চালক বল শূন্য হতে বাড়তে বাড়তে শীর্ষমান, এরপর কমতে কমতে শূন্য মানে এসে পূনরায় বিপরীত অভিমুখে একই চক্র সম্পন্ন করে। অর্থাৎ এক্ষেত্রে তড়িচ্চালক বলের নির্দিষ্ট দিক থাকে না। সুতরাং গাণিতিক গড় তড়িচ্চালক বলের প্রকৃত মান নির্দেশ করে না। এজন্য তড়িচ্চালক বলের দিককে নাকচ করার জন্য প্রথমে বর্গ করা হয় এবং পরবর্তীতে এর গড়কে বর্গমূল করা হয়। তাই দিক পরিবর্তী তড়িচ্চালক বলের ক্ষেত্রে গড় মানের চেয়ে আপাত মান বা গড় বর্গের বর্গমূল মান বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

ডাুন রোড করুন>> ডাউন লোড করুন সঠিক ভাবে নামাজ পড়ার মোবাইল অ্যাপস

৩। ট্রান্সফর্মার শুধুমাত্র পর্যাবৃত্ত ভোল্টেজ পরিবর্তন করে কেন?

উত্তরঃ ট্রান্সফর্মার শুধুমাত্র দিক পরিবর্তী বিভব পরিবর্তন করে। কারণ ট্রান্সফর্মারের ভিতরে চৌম্বক ক্ষেত্র থাকে। আবার এতে কুন্ডলী থাকে দুটি- মুখ্য কুন্ডলী ও গৌণ কুন্ডলী। বিভব প্রয়োগ করা হলে মুখ্য কুন্ডলী থেকে ভোল্টেজ পর্যাবৃত্ত পরিবর্তনের মাধ্যমে গৌণ কুন্ডলীতে স্থানান্তরিত হয়। তাই বলা হয় ট্রান্সফর্মার শুধুমাত্র দিক পরিবর্তী বিভব পরিবর্তন করে।

৪। দিক পরিবর্তী প্রবাহের ক্ষেত্রে পূর্ণচক্রের জন্য গড় তড়িচ্চালক বল শূন্য কেন ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ কোনো সময় ব্যবধানের তড়িচ্চালক বল সকল মানের গড়কে ঐ সময় ব্যবধানের গড় তড়িচ্চালক বল বলে। আমরা জানি, ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র সময় ব্যবধানের তড়িচ্চালক বল ও সময় ব্যবধানের গুণফলের সমষ্টি নিয়ে তাকে মোট সময় ব্যবধান দিয়ে ভাগ করলে ঐ সময় ব্যবধানের গড় তড়িচ্চালক বল পাওয়া যায়। তড়িচ্চালক বল বা তড়িৎ প্রবাহের মান একটি অর্ধচক্রে পজিটিভ হলে অন্য অর্ধচক্রে নেগেটিভ হয়। এ কারণে একটি পূর্ণচক্রে গ



৫। ফ্যারাডের সূত্র ও লেঞ্জের সূত্রের মধ্যে পার্থক্য লেখ।

উত্তরঃ সূত্র ও লেঞ্জের সূত্রের মধ্যে পার্থক্য হলোঃ ফ্যারাডের সূত্রঃ(i) ফ্যারাডের সূত্র হতে আবিষ্ট তড়িচ্চালক বলের পরিমাণ জানা যায়; (ii) ফ্যারাডের সূত্র মতে, আবিষ্ট তড়িচ্চালক বলকে কোনো কিছু বাধা দেয় না। লেঞ্জের সূত্রঃ(i) লেঞ্জের সূত্র হতে আবিষ্ট তড়িচ্চালক বলের দিক জানা যায়; (ii) লেঞ্জের সূত্র মতে, আবিষ্ট তড়িচ্চালক বল যে কারণে সৃষ্টি হয়, সেই কারণকেই বাধা দেয়।

পড়ুন>> HSC পদার্থ দ্বিতীয়  চতুর্থ অধ্যায় খ প্রশ্ন ও উত্তর

৬। ট্রান্সফর্মার ডিসি প্রবাহে কাজ করে না-ব্যাখ্যা কর।[ঢা.বো.-১৫, য.বো.-১৭, সি.বো.-১৬, দি.বো.-১৯]

উত্তরঃ তাড়িত চৌম্বক আবেশের উপর ভিত্তি করে ট্রান্সফরমার তৈরি করা হয়। ট্রান্সফরমার কেবল এ.সি.লাইনে ব্যবহার করা হয়। কারণ ট্রান্সফরমার ডি.সি.লাইনে কাজ করে না। মুখ্য কুন্ডলীতে ডি.সি. ভোল্টেজ বা প্রবাহ প্রয়োগ করলে ট্রান্সফরমারের মজ্জার মধ্য দিয়ে ধ্রুবমানের চৌম্বক ফ্লাক্স গমন করে। এ ধ্রুবমানের চৌম্বক ফ্লাক্স গৌণ কুন্ডলীতে কোনো তড়িচ্চালক বল আবিষ্ট করতে পারে না। ফলে ইনপুট ডি.সি. ভোল্টেজের মান যাই হোক না কেন, আউটপুট গৌণ কুন্ডলীর ভোল্টেজ সর্বদাই শূন্য হয়। তাই ট্রান্সফর্মার ডিসি প্রবাহে কাজ করে না

৭। কোন কুন্ডলীর স্বকীয় আবেশ গুণাঙ্ক  বলতে কী বুঝ?

উত্তরঃ স্বকীয় আবেশ গুণাঙ্ক  বলতে বুঝায়, কোনো কুন্ডলীতে তড়িৎ প্রবাহ প্রতি সেকেন্ডে  হারে পরিবর্তিত হলে যদি ঐ কুন্ডলীতে  তড়িচ্চালক বল আবিষ্ট হয়, তাহলে ঐ কুন্ডলীর স্বকীয় আবেশ গুণাঙ্ক হবে ।

৮। এ.সি ও ডি.সি ডায়নামোর মধ্যে পার্থক্য লেখ।

উত্তরঃ এ.সি ও ডি.সি ডায়নামোর মধ্যে পার্থক্য নিচে দেওয়া হলোঃ এ.সি ডায়নামোঃ(i) যান্ত্রিক শক্তিকে পরবর্তী বা পর্যাবৃত্ত তড়িৎ প্রবাহে রুপান্তর করে; (ii) কুন্ডলীর দুপ্রান্তে দুটি স্লিপরিং থাকে;(iii)অধিক পরিমাণে ব্যবহৃত হয়।  ডি.সি ডায়নামোঃ(i) যান্ত্রিক শক্তিকে একমুখী তড়িৎ প্রবাহে রুপান্তর করে; (ii) কুন্ডলীর দুপ্রান্তে দুটি অর্ধবৃত্তাকার তামার পাত থাকে যাকে কম্যুটেটর বলে;(iii)এ.সির তুলনায় কম ব্যবহৃত হয়।

৯। শীর্ষ গুণক ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ আমরা জানি, একটি দিক পরিবর্তী প্রবাহের শীর্ষমান এবং এর গড় বর্গের বর্গমূল মানকে প্রবাহটির শীর্ষ গুণক বলে। অতএব, শীর্ষ গুণক=

১০। কোন তার কুন্ডলীর স্বকীয় আবেশ গুণাঙ্ক 5 হেনরি বলতে কী বুঝ? [রা.বো.-১৬, দি.বো.-১৬]

উত্তরঃ স্বকীয় আবেশ গুণাঙ্ক  বলতে বুঝায়, কোনো কুন্ডলীতে তড়িৎ প্রবাহ প্রতি সেকেন্ডে  হারে পরিবর্তিত হলে ঐ কুন্ডলীতে  তড়িচ্চালক বল আবিষ্ট হবে।

পড়ুন>>> মডেল টেষ্ট-২০ HSCপদার্থ বিজ্ঞান ১ম পত্র দশম অধ্যায় 

১১। লেনজ এর সূত্রের ভৌত তাৎপর্য লিখ।[ঢা.বো.-১৮, সি.বো.-১৮, দি.বো.-১৮]

উত্তরঃ কোনো দন্ড চুম্বককে কুন্ডলীর দিকে নিয়ে যাওয়ার সময় দুই সমমেরুর বিকর্ষণ বলের বিরুদ্ধে কাজ বা গতিশক্তি প্রয়োগ করতে হয়। একইভাবে চুম্বকটি সরিয়ে নেওয়ার সময় দুই বিপরীত মেরুর আকর্ষণ বলের বিরুদ্ধেও কাজ বা গতি শক্তি প্রয়োগ করতে হয়। এ যান্ত্রিক শক্তিই তড়িৎ শক্তিতে রুপান্তরিত হয়ে কুন্ডলীতে তড়িৎ প্রবাহের সৃষ্টি করে। এটি লেঞ্জের সূত্রের শক্তির নিত্যতা সূত্র। এটিই লেঞ্জের সূত্রের ভৌত তাৎর্পয।

১২। ডি.সি. অপেক্ষা এ.সিতে বেশি সতর্কতা অর্জন করতে হয় কেন? [চ.বো.-১৬, ১৫]

উত্তরঃ আমাদের দেশে বাড়িঘরে এসি তড়িৎ সরবরাহ করা হয়। এ সরবরাহ ভোল্টেজের মান। এ মান এর গড় বর্গের বর্গমূল মান বা  নির্দেশ করে। অর্থাৎ                    শীর্ষমান,  ফলে কোনো ব্যক্তি যদি  শক পান তাহলে তা  দ্বারা হবে। কিন্ত  শক পেলে তিনি সর্বাধিক শক পাবেন এর যা এর শক এর চেয়ে অনেক বেশি। তাই    অপেক্ষা বিপজ্জনক অধিকতর বেশি। এজন্যই ডিসি অপেক্ষা এসিতে বেশি সতর্কতা অর্জন করতে হয়।

১৩। দিক পরিবর্তী তড়িৎ প্রবাহের ক্ষেত্রে আকৃতি গুণাঙ্কের মান নির্ণয় কর।

উত্তরঃ দিক পরিবর্তী তড়িৎ প্রবাহের গড় বর্গের বর্গমূল মান এবং গড়মানের অনুপাতকে আকৃতি গুণাঙ্ক বলে। আকৃতি গুণাঙ্ক=গড় বর্গের বর্গমূল মান বা আপাত মান/গড়মান=শীর্ষমান/শীর্ষমান = আকৃতি গুণাঙ্ক পরিবর্তী প্রবাহের আকার নির্দেশ করে। উল্লেখ্য যে আকৃতি গুণাঙ্কের এই  মান শুধুমাত্র সাইন ধর্মী ভোল্টেজ বা প্রবাহের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।

১৪।  শক  অপেক্ষা বিপজ্জনক কেন? [রা.বো.-১৯]

উত্তরঃ এর ক্ষেত্রে, তড়িচ্চালক শক্তি,  এর শীর্ষমান,  সুতরাং, কোনো ব্যক্তি যদি  শক পান তাহলে তা  দ্বারা হবে। কিন্ত  শক পেলে তিনি সর্বাধিক শক পাবেন এর যা এর শক এর চেয়ে অনেক বেশি। তাই  শক,  শক অপেক্ষা বিপজ্জনক।

পড়ুন>> পদার্থ বিজ্ঞান প্রথম পত্র ভেক্টর এর ক প্রশ্ন ও উত্তর

১৫। তড়িৎ চৌম্বকীয় আবেশ শক্তির সৃষ্টি নয় বরং শক্তির রুপান্তর-ব্যাখ্যা কর।[চ.বো.-১৯]

উত্তরঃ একটি গতিশীল চুম্বক বা একটি গতিশীল তড়িৎবাহী কুন্ডলীর সাহায্যে অন্য একটি বদ্ধ বর্তনীতে ক্ষণস্থায়ী তড়িচ্চালক বল তথা তড়িৎ প্রবাহ উৎপন্ন হওয়ার পদ্ধতিই হলো তড়িৎ চৌম্বক আবেশ। চৌম্বক ক্ষেত্রের সাহায্যে বদ্ধ বর্তনীতে বা কুন্ডলীতে তড়িচ্চালক শক্তি বা তড়িৎ প্রবাহ উৎপন্ন করা যায়। একটি বদ্ধ কুন্ডলী বা বর্তনী এবং একটি চুম্বকের গতির ফলে এরুপ ঘটে। বদ্ধ কুন্ডলীতে তড়িৎ প্রবাহ সৃষ্টি করতে চুম্বক কিংবা তড়িৎবাহী কুন্ডলী এবং বদ্ধ কুন্ডলীর মধ্যে আপেক্ষিক গতি বজায় রাখতে হবে। ফলে চৌম্বক বলরেখার হ্রাস বৃদ্ধি ঘটবে এবং তড়িৎ প্রবাহ সৃষ্টি হবে। উপরোক্ত আলোচনা হতে বলা যায় তড়িৎ প্রবাহ হলো গতিশীল চৌম্বক শক্তির একটি ফল মাত্র। এক্ষেত্রে চৌম্বক শক্তি তড়িৎ শক্তিতে রুপান্তর হয়েছে মাত্র। কোনো শক্তি তৈরি হয় না। তাই বলা চলে তড়িৎ চৌম্বকীয় আবেশ শক্তি সৃষ্টি নয় বরং শক্তির রুপান্তর মাত্র।

১৬। কুন্ডলী ও চৌম্বক এর মধ্যে আপেক্ষিক গতি না থাকলে তড়িৎ চালক শক্তি উৎপন্ন হয় না কেন?

উত্তরঃ কুন্ডলী ও চৌম্বক এর মধ্যে আপেক্ষিক গতি না থাকলে তড়িৎ চালক শক্তি উৎপন্ন হয় না। ব্যাখ্যাঃ যখন কোনো বদ্ধ কুন্ডলীর মধ্যদিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তন ঘটে তখনই কুন্ডলীতে ক্ষণস্থায়ী তড়িচ্চালক শক্তি উৎপন্ন হয়। যতক্ষণ ফ্লাক্সের পরিবর্তন থাকে ততক্ষণই তড়িচ্চালক বল বিদ্যমান থাকে। যদি এদের মধ্যে আপেক্ষিক গতি না থাকে তবে ফ্লাক্সের পরিবর্তন হয় না। সে ক্ষেত্রে ফ্যারাডের ২য় সূত্র মতে,   অতএব,কুন্ডলী ও চৌম্বক এর মধ্যে আপেক্ষিক গতি না থাকলে তড়িৎ চালক শক্তি শূন্য।

১৭। ফ্যারাডের তড়িৎচৌম্বক আবেশের ২য় সূত্রটি ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ ফ্যারাডের তড়িৎচৌম্বক আবেশ সংক্রান্ত ২য় সূত্রটি হলো- কোনো বদ্ধ কুন্ডলীতে আবিষ্ট তড়িচ্চালক শক্তির মান ঐ কুন্ডলীর মধ্যদিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তনের হারের ঋণাত্মক মানের সমানুপাতিক।          যেখানে, = কুন্ডলীর পাকসংখ্যা এবং = চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তনের হার। এ সুত্র থেকে আবিষ্ট তড়িচ্চালক শক্তির দিক সম্পর্কে জানা যায়। এখানে, আবিষ্ট তড়িচ্চালক শক্তির দিক এমন হয় যে, তা সৃষ্টি হওয়া মাত্রই যে কারণে সৃষ্টি হয় সেই কারণকে বাধা দেয়।

পড়ুন>> HSCপদার্থ বিজ্ঞান ২য় পত্র ১১শ অধ্যায় জ্যোর্তি বিজ্ঞান (ক ও খ) প্রশ্ন ও উত্তর

১৮। ফ্যারাডের তড়িৎচৌম্বক আবেশের সূত্র দুটি বিবৃত কর।

উত্তরঃ প্রথম সূত্রঃ যখনই কোনো বদ্ধ কুন্ডলীর মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক ফ্লাস্কের(চৌম্বক ক্ষেত্র রেখা) পরিবর্তন ঘটে, তখনই কুন্ডলীতে একটি ক্ষণস্থায়ী তড়িচ্চালক শক্তি তথা তড়িৎ প্রবাহ আবিষ্ট হয়। যতক্ষণ চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তন ঘটে, আবিষ্ট তড়িচ্চালক শক্তি তথা তড়িৎ প্রবাহ ততক্ষণই স্থায়ী হয়।চৌম্বক ফ্লাক্সের বৃদ্ধিতে তড়িৎ প্রবাহ যেদিকে ঘটে, হ্রাস পেলে তড়িৎ প্রবাহ তার বিপরীত দিকে ঘটে।দ্বিতীয় সূত্রঃ কোনো বদ্ধ কুন্ডলীতে আবিষ্ট তড়িচ্চালক বলের মান ঐ কুন্ডলীর মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তনের হারের ঋণাত্মক মানের সমানুপাতিক।

১৯। ফ্যারাডের সূত্র মতে পারস্পরিক আবেশ গুণাঙ্ক বলতে কী বুঝ?

উত্তরঃ ফ্যারাডের সূত্র অনুসারে, পারস্পরিক আবেশের ক্ষেত্রে গৌণ কুন্ডলীতে আবিষ্ট তড়িচ্চালক বল, বা  উপরোক্ত সমীকরণ মতে দুটি কুন্ডলীর মধ্যে একটির মধ্য দিয়ে প্রবাহমাত্রার পরিবর্তনের হার একক হলে দ্বিতীয় কুন্ডলীতে যে তড়িচ্চালক বলের উদ্ভব হয়, তার সংখ্যাগত মান কুন্ডলী দুটির পারস্পরিক আবেশ গুণাঙ্কের সমান।




২০। স্বকীয় আবেশ ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ একটি মাত্র কুন্ডলীতে তড়িৎ প্রবাহের পরিবর্তনের ফলে অথবা কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রে কুন্ডলীর গতির ফলে কুন্ডলীর সাথে সংশ্লিষ্ট চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তন ঘটে। এ পরিবর্তনের জন্য যে তড়িৎ চৌম্বক আবেশ ঘটে তাকে স্বকীয় আবেশ বলে। কোনো পরিবাহী কুন্ডলীর মধ্যে তড়িৎ প্রবাহের ফলে চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি হয় এবং চৌম্বক ক্ষেত্রের বলরেখাগুলো কুন্ডলীর বিভিন্ন পাকের সাথে জড়িয়ে পড়ে। ফলে চৌম্বক ফ্লাক্সের সৃষ্টি হয়। কুন্ডলীর তড়িৎ প্রবাহের পরিবর্তন হলে চৌম্বক ফ্লাক্সেরও পরিবর্তন হয়। ফ্লাক্সের এ পরিবর্তনের কারণে কুন্ডলীতে একটি তড়িচ্চালক বল আবিষ্ট হয়। এই ঘটনাকেই স্বকীয় আবেশ বলা হয়।


পড়ুন>> পদার্থ বিজ্ঞান প্রথম পত্র ভেক্টর এর ক প্রশ্ন ও উত্তর

২৬। ফ্লেমিং এর ডানহস্ত নিয়ম বলতে কী বুঝ?

উত্তরঃ একটি চৌম্বকক্ষেত্রে কোনো পরিবাহী গতিশীল হলে এতে তড়িৎ প্রবাহ আবিষ্ট হয়। ডানহাতের বৃদ্ধাঙ্গুলী, তর্জনী ও মাধ্যম পরস্পরের সাথে সমকোণে প্রসারিত করে যদি তর্জনী চৌম্বকক্ষেত্রের অভিমুখ, বৃদ্ধাঙ্গুলী পরিবাহীর গতির অভিমুখ নির্দেশ করে, তাহলে মধ্যমা আবিষ্ট প্রবাহের অভিমুখ নির্দেশ করবে।


পড়ুন>> HSC পদার্থ ২য় পত্র ৫ম অধ্যায় ক প্রশ্ন ও উত্তর

৩৪। ফ্যারডের তড়িৎ চুম্বকীয় আবেশের ১ম সূত্রটি ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ যখনই কোনো বদ্ধ কুন্ডলীতে চৌম্বক বলরেখার মোট সংখ্যা অথবা চৌম্বক ফ্লাক্সের পরিবর্তন ঘটে, তখনই কুন্ডলীতে একটি আবিষ্ট বিদ্যুৎচালক বলের সৃষ্টি হয়। আবিষ্ট বিদ্যুৎচালক বলের জন্য সৃষ্ট আবিষ্ট বিদ্যুৎ প্রবাহের স্থায়িত্ব ততক্ষনই হবে যতক্ষন কুন্ডলীর ফ্লাক্স সংযুক্তির পরিবর্তন ঘটবে। ফাক্স সংযুক্তি বৃদ্ধিতে বিদ্যুৎ প্রবাহ যে দিকে ঘটে, ফ্লাক্স সংযুক্তি হ্রাসে প্রবাহের অভিমুখ ঠিক তার বিপরীত দিকে হয়।

৩৫। লেঞ্জের সূত্র শক্তির নিত্যতা সূত্র মেনে চলে-ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ আপাতদৃষ্টিতে মনে হয়, লেঞ্জের সূত্র শক্তির নিত্যতা সূত্র মেনে চলে না। কিন্ত বাস্তবে তা নয়। কারণ দন্ড চুম্বককে যখন কুন্ডলীর দিকে নিয়ে যাওয়া হয়, তখন দুই সমমেরুর বিকর্ষণ বলের বিরুদ্ধে গতিশক্তি প্রয়োগ করতে হয়। আবার চুম্বকটিকে যখন সরিয়ে নেওয়া হয়, তখন দুই বিপরীত মেরুর আকর্ষণ বলের বিরুদ্ধে গতিশক্তি প্রয়োগ করতে হয়। এ যান্ত্রিক শক্তি তড়িৎ শক্তিতে রুপান্তরিত হয়ে কুন্ডলীতে তড়িৎ প্রবাহ সৃষ্টি করে। হিসাব করে দেখা গেছে যে, ব্যয়িত যান্ত্রিক শক্তি উৎপন্ন তড়িৎ শক্তির সমান। কাজেই লেঞ্জের সূত্রে শক্তির নিত্যতা বিধি কার্যকর হয়।

৩৬। “চুম্বক দ্বারা বৈদ্যুতিক শক্তি তৈরি করা যায়”-ব্যাখ্যা কর।[ঢা.বো.-১৬]

উত্তরঃ একটি গতিশীল চুম্বক কিংবা তড়িৎবাহী কুন্ডলীর প্রভাবে একটি বদ্ধ তার কুন্ডলীতে ক্ষনস্থায়ী তড়িচ্চালক শক্তি এবং তড়িৎ প্রবাহ সৃষ্টি করা যায়। একটি চুম্বককে স্থির রেখে একটি বদ্ধ কুন্ডলীকে চুম্বকের দিকে দ্রুত সরালে অথবা বদ্ধ কুন্ডলীকে স্থির রেখে চুম্বকটিকে কুন্ডলীর দিকে সরালে অথবা চুম্বক ও কুন্ডলীকে এক সাথে পরস্পরের দিকে আনলে বদ্ধ কুন্ডলীতে তড়িচ্চালক শক্তি অর্থাৎ বৈদ্যুতিক শক্তি উৎপন্ন হবে। এ প্রক্রিয়াটির নাম হলো তড়িৎ চুম্বকীয় আবেশ।




 




 1,954 total views,  5 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *