HSC পদার্থ দ্বিতীয় পত্র চতুর্থ অধ্যায় ক প্রশ্ন ও উত্তর

১। হল বিভব কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৮, কু.বো.-১৭, সি.বো.-১৮, ব.বো.-১৯, দি.বো.-১৮]

উত্তরঃ কোনো তড়িৎবাহী পরিবাহককে চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপন করলে তড়িৎপ্রবাহ ও চৌম্বকক্ষেত্র উভয়ের সাথে লম্ব বরাবর যে বিভব পার্থক্যের সৃষ্টি হয়, তাকে বিভব পার্থক্য বা হল বিভব বলে।

২। ঢাকার বিচ্যুতি  পূর্ব বলতে কী বোঝায়?

উত্তরঃ ঢাকার বিচ্যুতি  পূর্ব বলতে বুঝায় ঢাকায় মুক্তভাবে স্থাপিত চুম্বক শলাকা ভৌগোলিক উত্তর-দক্ষিণের সাথে  কোণ করে অবস্থান করে এবং চুম্বক শলাকার উপর মেরু ভৌগোলিক অক্ষের পূর্ব পাশে অবস্থান করে।

৩। এক ওয়েবার কাকে বলে?

উত্তরঃ এক পাকের একটি কুন্ডলীর সাথে সংশ্লিষ্ট যে পরিমাণ চৌম্বক ফ্লাস্ক এক সেকেন্ডে সুষমভাবে হ্রাস পেয়ে শূন্যতে নেমে আসলে ঐ কুন্ডলীতে এক ভোল্ট তড়িচ্চালক বল আবিষ্ট হয়, সে পরিমাণ চৌম্বক ফ্লাক্সকে এক ওয়েবার বলে।

৪। চুম্বক ডোমেইন কী? [ঢা.বো.-১৯]

উত্তরঃ ফেরোচৌম্বক পদার্থে  থেকে  আয়তনের মধ্যে  থেকে  সংখ্যক পরমাণু সংবলিত অসংখ্য চৌম্বক এলাকা থাকে যার মধ্যে চৌম্বক দ্বিপোলগুলো একই দিকে সজ্জিত থাকে; ফলে এরা স্বতন্ত্র চুম্বকের ন্যায় আচরণ করে। এরুপ চুম্বক এলাকাকে চুম্বক ডোমেইন বলে।

পড়ুন>> HSC পদার্থ ২য়পত্র তৃতীয় অধ্যায় “খ” প্রশ্ন ও উত্তর

৫। চৌম্বক ফ্লাক্সের একক কী?

উত্তরঃ চৌম্বক ফ্লাক্সের একক ওয়েবার  বা ।




৬। চৌম্বক ফ্লাক্স ঘনত্ব কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো একটি তলের একক ক্ষেত্রফলের উপর যত সংখ্যক চৌম্বক ফ্লাস্ক বা আবেশ রেখা লম্বভাবে আপতিত হয় তাকে ঐ তলের ফ্লাক্স ঘনত্ব বলে।

৭। স্থির চার্জের উপর চৌম্বক বল কত?

উত্তরঃ স্থির চার্জের উপর চৌম্বক বল শূন্য।

৮। গতিশীল চার্জের উপর চৌম্বক বল কখন সর্বোচ্চ হয়?

উত্তরঃ চার্জ চৌম্বক ক্ষেত্রের দিকের সাথে সমকোণে গতিশীল হলে এর উপর চৌম্বক বল সর্বোচ্চ হয়।

৯। তড়িৎবাহী কুন্ডলীর চৌম্বক ভ্রামক কাকে বলে?

উত্তরঃকোনো বিদ্যুৎবাহী বিদ্যুৎ প্রবাহ এবং কুন্ডলীর ক্ষেত্রফল ভেক্টরের গুনফলকে ঐ কুন্ডলীর চৌম্বক ভ্রামক বলে।

১০। একমুখী তীরের মতো দেখতে কণার স্পিন কত?

উত্তরঃ একমুখী তীরের মতো দেখতে কণার স্পিন

১১। লরেঞ্জ বল কী? [রা.বো.-১৭, কু.বো.-১৯, ১৬, সি.বো.-১৯, ব.বো.-১৭]

উত্তরঃ কোনো তড়িতাধান(চার্জ) একই সঙ্গে তড়িৎ ক্ষেত্র এবং চৌম্বক ক্ষেত্রের ভেতর দিয়ে গেলে মোট যে বল অনুভব করে, তাকে লরেঞ্জ বল বলে। চৌম্বক ক্ষেত্র  এবং বৈদ্যুতিক ক্ষেত্র  হলে উভয় ক্ষেত্রের মধ্য দিয়ে ইলেকট্রনের গতির জন্য লরেঞ্জ বল- .

পড়ুন>> HSC পদার্থ দ্বিতীয় পত্র চতুর্থ অধ্যায় ক প্রশ্ন ও উত্তর

১২। ভৌগোলিক মধ্যতল কী?

উত্তরঃ ভৌগোলিক অক্ষের মধ্যদিয়ে যে উলম্ব তল কল্পনা করা হয়, তাকে ভৌগোলিক মধ্যতল বলে।

১৩। চৌম্বক সম্পৃক্তি কী?

উত্তরঃ হিসটেরেসিস লুপে চুম্বকায়ন মাত্রার যে মানের জন্য চৌম্বক প্রাবল্যের মান বাড়লে ও চুম্বকের চুম্বকায়ন মাত্রা আর বাড়ে না সেই মানকে সম্পৃক্ত মান বলে এবং এই ধর্মকে চৌম্বক সম্পৃক্তি বলে।

১৪। চৌম্বক তীব্রতা কী?

উত্তরঃ শূন্যস্থানে বায়ু মাধ্যমে কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রে একক ক্ষেত্রফলের মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক বলরেখার সংখ্যা বা ফ্লাস্ককে চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্য বা তীব্রতা বলে।

১৫। বায়োট-স্যাভার্ট এর সূত্রটি বিবৃত কর।[রা.বো.-১৯, ব.বো.-১৭]

উত্তরঃ বায়োট-স্যাভার্ট এর সূত্রটি হলো- ক্ষুদ্র দৈর্ঘ্যের কোনো পরিবাহীর মধ্য দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হলে এর চারপাশে যে চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয় তার কোনো বিন্দুতে চৌম্বকীয় আবেশের মান-

১. বিদ্যুৎ প্রবাহমাত্রার সমানুপাতিক; ২. পরিবাহীর দৈর্ঘ্যের সমানুপাতিক; ৩. পরিবহীর মধ্যবিন্দু হতে ঐ বিন্দুর সংযোগ রেখা এবং পরিবাহীর অন্তর্ভূক্ত কোণের সাইনের সমানুপাতিক এবং ৪. পরিবাহীর মধ্যবিন্দু হতে ঐ বিন্দুর দুরত্বের বর্গের ব্যস্তানুপাতিক।

পড়ুন>>  মডেল টেস্ট-২৬ কৃষি উপসহকারি কর্মকর্তা পরীক্ষা

১৬। অ্যাম্পিয়ারের সূত্রটি লিখ।

উত্তরঃ অ্যাম্পিয়ারের সূত্রটি হলো- কোনো তড়িৎবাহী পরিবাহীকে কেন্দ্র করে কাল্পনিক কোনো বদ্ধ রেখা বা লুপের ওপর  এর রৈখিক যোগজীকরণ ঐ পরিবাহীতে প্রবাহিত তড়িৎ প্রবাহমাত্রা  এবং  এর গুনফল সমান।

১৭। ফেরোচৌম্বক পদার্থ কী?

উত্তরঃ যেসব পদার্থকে চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করা হলে চুম্বকায়নকারী ক্ষেত্রের দিকে শক্তিশালী চুম্বকত্ব লাভ করে তাদেরকে ফেরোচৌম্বক পদার্থ বলে।

১৮। পরাচৌম্বক পদার্থ কী?

উত্তরঃ যেসব পদার্থকে চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করলে, চুম্বকায়নকারী ক্ষেত্রের দিকে দুর্বল চুম্বকত্ব লাভ করে তাদেরকে প্যারাচৌম্বক পদার্থ বলে।

১৯। চৌম্বক ফ্লাক্স কী?

উত্তরঃ কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রের মধ্যে বাস্তব বা কল্পিত কোনো তলের মধ্যদিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক ক্ষেত্র রেখা বা আবেশ রেখার সংখ্যাকে চৌম্বক ফ্লাক্স বলে।

২০। ভৌগোলিক অক্ষ কী?

উত্তরঃ ভৌগোলিক দুই মেরুর সংযোজক কাল্পনিক রেখাকে ভৌগোলিক অক্ষ রেখা বলে।

২১। চৌম্বক ভ্রামক কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো চুম্বকের যেকোনো একটি মেরুর মেরুশক্তি ও চৌম্বক দৈর্ঘ্যের গুনফলকে ঐ চুম্বকের চৌম্বক ভ্রামক বলে।

২২। চুম্বকায়ন তীব্রতা কাকে বলে?

উত্তরঃ চৌম্বক ক্ষেত্রে প্রতি এক আয়তনের চৌম্বক ভ্রামককে উহার চুম্বকায়ন তীব্রতা বলে।

২৩। চৌম্বক নিগ্রাহিতা কী?

উত্তরঃ চুম্বকত্ব হ্রাসের কারণ থাকা সত্ত্বেও কোনো একটি চৌম্বক পদার্থের মধ্যে উৎপন্ন চুম্বকত্ব ধরে রাখার ক্ষমতাকে ঐ পদার্থের চৌম্বক নিগ্রাহিতা বা সহনশীলতা বলে।

২৪। কৃত্রিম চুম্বককে প্রধানত কয় ভাগে ভাগ করা যায়?

উত্তরঃ কৃত্রিম চুম্বককে প্রধানত দুই ভাগে ভাগ করা যায়।

২৫। তড়িৎ প্রবাহের চৌম্বক ক্রিয়া কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো পরিবাহীর ভেতর দিয়ে তড়িৎ প্রবাহিত হলে এর চারপাশে একটি চৌম্বক ক্ষেত্রের সৃষ্টি হয়, একে তড়িৎ প্রবাহের চৌম্বক ক্রিয়া বলে।




২৬। চৌম্বক ক্ষেত্র কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো চুম্বকের চারদিকে যে অঞ্চল পর্যন্ত চুম্বকটির প্রভাব অনুভূত হয়, সেই অঞ্চলকে ঐ চুম্বকের চৌম্বক ক্ষেত্র বলে।

পড়ুন>> HSCপদার্থ বিজ্ঞান ২য় পত্র ১১শ অধ্যায় জ্যোর্তি বিজ্ঞান (ক ও খ) প্রশ্ন ও উত্তর

২৭। লাল মেরু কোনটি?

উত্তরঃ ভু-ত্বকের দক্ষিণ মেরুই হলো লাল মেরু।

২৮। হল ক্রিয়া কী? [চ.বো.-১৭, ১৬, সি.বো.-১৬, ব.বো.-১৭, ১৫]

উত্তরঃ কোনো তড়িৎবাহী পরিবাহীকে কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রে অভিলম্ব বরাবর স্থাপন করলে তড়িৎপ্রবাহ ও চৌম্বক ক্ষেত্র উভয়ের উপর লম্ব বরাবর একটি বিভব পার্থক্যের সৃষ্টি হয়, এ ক্রিয়াই হলো হল ক্রিয়া।

২৯। টেসলা কাকে বলে? [রা.বো.-১৬]

উত্তরঃ যদি কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রের অভিমুখের সাথে সমকোণে  কুলম্ব চার্জ  বেগে গতিশীল হয় এবং  বল অনুভব করে তবে ঐ চৌম্বক ক্ষেত্রের মানকে  টেসলা বা শুধু টেসলা বলে।

৩০। কুরী বিন্দু কী? [য.বো.-১৬]

উত্তরঃ নির্দিষ্ট ফেরোচৌম্বক পদার্থ একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় তার ফেরোচৌম্বক ধর্ম সম্পূর্ণরুপে হারিয়ে ফেলে এবং প্যারাচৌম্বক পদার্থে পরিণত হয়। ঐ বিশেষ তাপমাত্রাই ঐ পদার্থের কুরী বিন্দু।

৩১। বিনতি কী? [চ.বো.-১৬]

উত্তরঃ কোনো স্থানে ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্র অনুভূমিকের সাথে যে কোন উৎপন্ন করে অর্থাৎ চুম্বক মধ্যতলে মুক্তভাবে স্থাপিত চুম্বক শলাকা অনুভূমিক তল থেকে যে কোণে নত থাকে তাই ঐ স্থানের বিনতি।

৩২। হল বিভব পার্থক্য কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৫]

উত্তরঃ কোনো তড়িৎবাহী পরিবাহককে চৌম্বকক্ষেত্রে স্থাপন করলে তড়িৎপ্রবাহ ও চৌম্বকক্ষেত্র উভয়ের সাথে লম্ব বরাবর যে বিভব পার্থক্যের সৃষ্টি হয়, তাকে বিভব পার্থক্য বলে।




৩৩। হিসটেরেসিস কী?

উত্তরঃ কোনো ফেরোচৌম্বক পদার্থকে চৌম্বকক্ষেত্রে প্রয়োগ করে চুম্বকিত করার পর বিচুম্বকিত করতে গেলে বিচুম্বকিত হতে যে অনীহা বা শৈথিল্য প্রকাশ করে তাই হিসটেরেসিস।

৩৪। চৌম্বক প্রবেশ্যতা কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো পদার্থের চৌম্বক আবেশ এবং চৌম্বক প্রাবল্যের অনুপাতকে ঐ পদার্থের চৌম্বক প্রবেশ্যতা বলে।

৩৫। ভূ-চুম্বকত্বের বিচ্যুতি কোণ কী?

উত্তরঃ পৃথিবীর কোনো স্থানে চৌম্বক মধ্যতল ও ভৌগোলিক মধ্যতলের মধ্যবর্তী কোণকে ঐ স্থানের ভূ-চুম্বকত্বের বিচ্যুতি কোণ বলে।

৩৬। ইলেকট্রন স্পিন কী?

উত্তরঃ একটি ইলেকট্রনের কক্ষপথে ঘূর্ণনের জন্য যে সহজাত কৌণিক ভরবেগ উৎপন্ন হয় ইহাই স্পিন।

৩৭। ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্য বা মোট প্রাবল্য কাকে বলে?

উত্তরঃ পৃথিবীর কোনো স্থানে একটি একক মেরুশক্তির উত্তর মেরুর উপর ভূ-চুম্বকত্বের দরুন যে বল ক্রিয়া করে তাকে ওই স্থানের ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্য বা মোট প্রাবল্য বলে।

৩৮। ভূ-চৌম্বকক্ষেত্রের অনুভূমিক প্রাবল্য কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো স্থানের ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্যের অনুভূমিক উপাংশকে ওই স্থানের ভূ-চৌম্বকক্ষেত্রের অনুভূমিক প্রাবল্য বলে।

৩৯। ভূ-চৌম্বকক্ষেত্রের উলম্ব প্রাবল্য কাকে বলে?

উত্তরঃকোনো স্থানের ভূ-চৌম্বক ক্ষেত্রের প্রাবল্যের উলম্ব উপাংশকে ওই স্থানের ভূ-চৌম্বকক্ষেত্রের উলম্ব প্রাবল্য বলে।

৪০। চৌম্বকক্ষেত্রের প্রাবল্য কাকে বলে? [ব.বো.-১৯]

উত্তরঃ কোনো চৌম্বক ক্ষেত্রের চারপাশে যে চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয় তার ভেক্টরকে চৌম্বক ক্ষেত্রের সবলতা বা চৌম্বক ক্ষেত্র প্রাবল্য বলে।

৪১। আপেক্ষিক প্রবেশ্যতা কাকে বলে?

উত্তরঃকোনো মাধ্যমের চৌম্বক প্রবেশ্যতা ও শূন্য মাধ্যমের চৌম্বক প্রবেশ্যতার অনুপাতকে আপেক্ষিক প্রবেশ্যতা বলে।

৪২। শূন্যস্থানের চৌম্বক প্রবেশ্যতা কত?

উত্তরঃ শূন্যস্থানের চৌম্বক প্রবেশ্যতা ।

৪৩। ভূ-চুম্বকের উপাদান কয়টি?

উত্তরঃ ভূ-চুম্বকের উপাদান তিনটি।

৪৪। ফেরোচৌম্বক পদার্থের আপেক্ষিক চৌম্বক প্রবেশ্যতার মান কত?

উত্তরঃ ফেরোচৌম্বক পদার্থের আপেক্ষিক চৌম্বক প্রবেশ্যতার মান>১।

৪৫। চৌম্বক মোমেন্ট কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো বিদ্যুৎবাহী কুন্ডলীর বিদ্যুৎ প্রবাহ এবং কুন্ডলীর ক্ষেত্রফল ভেক্টরের গুনফলকে ঐ কুন্ডলীর চৌম্বক মোমেন্ট বলে।

৪৬। বোর ম্যাগনেটন কী?

উত্তরঃ ইলেকট্রন ঘূর্ণনের ফলে সৃষ্ট চৌম্বক ভ্রামককে বোর ম্যাগনেটন বলে।

৪৭। অণুচক্র কাকে বলে?

উত্তরঃ চুম্বককে ভাঙতে ভাঙতে যদি এমন ক্ষুদ্র অংশে পরিণত করা হয় যেন তা ভাঙলে আর চুম্বক থাকে না, চুম্বকের এরুপ ক্ষুদ্র অংশকে অণু চুম্বক বলে।

৪৮। তাড়িতচৌম্বক আবেশ সংক্রান্ত ফ্যারাডের দ্বিতীয় সূত্রটি লিখ।

উত্তরঃ কোনো বদ্ধ কুন্ডলীতে আবিষ্ট তড়িচ্চালক শক্তির মান ঐ কুন্ডলির মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত চৌম্বক ফ্লাস্কের পরিবর্তনের হারের ঋণাত্মক মানের সমানুপাতিক।

পড়ুন>> HSCপদার্থ বিজ্ঞান ২য় পত্র ১১শ অধ্যায় জ্যোর্তি বিজ্ঞান (ক ও খ) প্রশ্ন ও উত্তর

৪৯। চৌম্বক প্রবেশ্যতার একক কী?

উত্তরঃ চৌম্বক প্রবেশ্যতার একক  বা

৫০। ভূ-চুম্বকত্ব কী?

উত্তরঃ পদার্থবিজ্ঞানের যে শাখায় পৃথিবীর চুম্বকত্ব এবং এতদসংক্রান্ত বিভিন্ন দিক জানা যায়, তাকে ভূ-চুম্বকত্ব বা পৃথিবীর চুম্বকত্ব বলে।

৫১। ডায়াচৌম্বক পদার্থ কাকে বলে?

উত্তরঃ যেসব পদার্থকে চৌম্বক ক্ষেত্রে স্থাপন করলে চুম্বকায়নকারী ক্ষেত্রের বিপরীত দিকে সামান্য চুম্বকত্ব লাভ করে তাদেরকে ডায়াচৌম্বক পদার্থ বলে।

৫২। চৌম্বক মধ্যতল কী?

উত্তরঃ কোনো স্থানে মুক্তভাবে ঝুলন্ত স্থির চুম্বকের চৌম্বিক অক্ষ বরাবর এবং ভূ-পৃষ্ঠের সাথে লম্বভাবে কল্পিত তলকে ঐ স্থানের চৌম্বক মধ্যতল বলে।

৫৩। চৌম্বক আবেশ কী?

উত্তরঃ যে প্রক্রিয়ায় চৌম্বক পদার্থ চুম্বকে পরিণত হয় তাকে চৌম্বক আবেশ বলে।

৫৪। চৌম্বক ধারকতা কী?

উত্তরঃ চুম্বকায়নকারী বল সরিয়ে নিলেও চৌম্বক পদার্থের চুম্বকত্ব ধরে রাখার যে ক্ষমতা থাকে তাই চৌম্বক ধারকতা।

৫৫। পৃথিবীর চৌম্বক মেরু কোথায় অবস্থিত?

উত্তরঃ পৃথিবীর যে দুটি স্থানে কোনো চৌম্বক শলাকাকে ভারকেন্দ্র হতে ঝুলালে তার চৌম্বক অক্ষ খাড়াভাবে অবস্থান করে ঐ দুটি স্থানেই পৃথিবীর চৌম্বক মেরু অবস্থিত।

৫৬। হল ক্রিয়ার আবিষ্কারক কে?

উত্তরঃ হল ক্রিয়ার আবিষ্কারক বিজ্ঞানী এডউইন এইচ. হল।

৫৭। তড়িৎবাহী কুন্ডলীর ক্ষেত্রফল বেশি হলে চৌম্বক ভ্রামক কম না-কি বেশি হবে?

উত্তরঃ তড়িৎবাহী কুন্ডলীর ক্ষেত্রফল বেশি হলে কুন্ডলীর চৌম্বক ভ্রামকও বেশি হবে।

৫৮। বিষুব রেখায় বিনতি কোণ কত?

উত্তরঃ বিষুব রেখায় বিনতি কোণ ।

৫৯। ডোমেইন কত সালে আবিষ্কৃত হয়?

উত্তরঃ ফরাসি বিজ্ঞানী পিয়েরে আরনেস্ট ওয়েইস ১৯০৬ সালে ফেরোচৌম্বক পদার্থের ডোমেইন তত্ত্ব প্রদান করেন।

৬০। পৃথিবীর কোন স্থানে বিনতির মান সর্বনিম্ন?

উত্তরঃ পৃথিবীর বিষুব রেখা বরাবর কোনো স্থানের বিনতি কোণের মান সর্বনিম্ন হয়।




 2,766 total views,  3 views today

3 thoughts on “HSC পদার্থ দ্বিতীয় পত্র চতুর্থ অধ্যায় চৌম্বক প্রবাহে তড়িৎ ক্রিয়া ক প্রশ্ন ও উত্তর”

Leave a Reply

Your email address will not be published.