রোগের নামঃ আলুর ঢলে পড়া রোগ

রোগের কারণ:

Ralstonia solanacearum নামক ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে এ রোগ হয়ে থাকে ।

লক্ষণঃ

  • গাছের যে কোন বয়সে এ রোগ দেখা যায়।
  • গাছ হঠাৎ ঢলে পড়ে। সবুজ অবস্থায় চুপসে ঢলে পড়ে।
  • গোড়ার দিকে গাছের কান্ড ফেড়ে দেখলে বাদামী আক্রান্ত এলাকা দেখা যায়।
  • আক্রান্ত আলুর কাটলে ভিতরে বাদামী দাগ দেখা যায়।
  • আলুরে চোখে সাদা পুঁজের মত দেখা যায় এবং আলু অল্প দিনের মধ্যেই পচে যায়।
  • এ রোগে গাছ সাধারণত সবুজ অবস্থায়ই ঢলে পড়ে।
  • কান্ডের নিম্নাংশ ও শিকড় অক্ষত থাকে। কা-ের ভিতরে পরিবহন কলায় বাদামী বর্ণের উপস্থিতি, ঢলে পড়া রোগের আর একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ যা কা- চিরলে স্পষ্ট দেখা যায়।
  • আক্রান্ত গাছের কা- কেটে পরিষ্কার পানিতে খাড়া করে রাখলে কিছুক্ষণ পর দুধের মত সাদা পুঁজ বের হয়।
  • সংগৃহীত আলুর চোখে সাদা পুঁজের মত দেখা যায় এবং আলু অল্প দিনের মধ্যেই পচে যায়।
  • বীজ আলুর ক্ষেত্রে একর প্রতি যদি ১ টি গাছ আক্রান্ত হয় তাহলে সেই মাঠ হতে বীজ আলু কখনই সংগ্রহ করা যাবে না।
  • আলুর ঢলে পড়া রোগ প্রধানত তাপমাত্রা ও আপেক্ষিক আর্দ্রতা দ্বারা প্রভাবিত হয়। সাধারনতঃ ২৮-৩০০ সে তাপমাত্রা এ রোগের জন্য সবচেয়ে অনুকূল।

 

জেনে নিন >>> আলুর পাতা মোড়ানো রোগ Potato Leaf Roll Disease  কারণ ও প্রতিকার 

সমন্বিত দমন ব্যবস্থাপনাঃ

    • রোগমুক্ত বীজ ব্যবহার করা।
    • আক্রান্ত গাছ তুলে পুড়ে বা পুতে ফেলা।
    • আলু লাগানোর ২০-২৫ দিন আগে জমিতে ব্লিচিং পাউডার বিঘা প্রতি ২.৬ কেজি ব্যবহার করা।
    • পরিমিত সেচ প্রয়োগ করা।
    • রোগ দেখা দিলে পানি সেচ বন্ধ করতে হবে।
    • প্রত্যায়িত অথবা রোগমুক্ত এলাকা থেকে সুস্থ ও রোগমুক্ত বীজ সংগ্রহ করা।
    • কাটা বীজ লাগানো পরিহার করা।
    • আলু লাগানোর সময় জমিতে সর্বশেষ চাষের পূর্বে প্রতি হেক্টরে ২০-২৫ কেজি হারে ষ্ট্যাবল ব্লিচিং পাউডার প্রয়োগ করা।

  • বপনের পর যত শীঘ্র সম্ভব গাছের গোড়ায় মাটি তুলে দেওয়া।
  • পরিমিত মাত্রায় সেচ প্রয়োগ করা।
  • আক্রান্ত গাছ আলুসহ আশেপাশের মাটি দ্রুত অন্যত্র সরিয়ে নষ্ট করা এবং আক্রান্ত জায়গায় ব্লিচিং পাউডার প্রয়োগ করা। সেচের প্রয়োজন হলে আক্রান্ত অংশ বাদ দিয়ে সেচ দেওয়া।
  • আক্রান্ত জমিতে পরবর্তীতে আলু, টমেটো, বেগুন, মরিচ, তামাক ইত্যাদি জাতীয় ফসল চাষ না করা।
  • গম, ধান, ভুট্টা, কাউন, বার্লি, সরগাম, পেয়াজ, রসুন, কপি, গাজর ইত্যাদি ফসল দিয়ে শস্য পর্যায় অবলম্বন করা। বীজ আলু জমিতে ভুট্টা দ্বারা আন্তঃফসল চাষ করলে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ কম হয়।
  • গ্রীষ্মকালে কয়েকবার জমি চাষ করে প্রখর রৌদ্রে মাটি শুকিয়ে নিতে হবে এতে মাটিতে অবস্থিত রোগ জীবাণু অনেক কমে যায়।
  • এ রোগ দেখা মাত্র আক্রান্ত জমিতে সেচ প্রদান, নিড়ানী দেওয়া, মালচিং ইত্যাদি বন্ধ করা।
  • আলু লাগানোর পূর্বে জমিতে ধান থাকলে সে ধানের নাড়া শুকিয়ে মাটিতে বিছিয়ে পুড়িয়ে ফেলা।
  • যে জমি সব সময় ভেজা বা স্যাঁতসেঁতে থাকে সে জমিতে বীজ আলু কখনই চাষ না করা।

 1,259 total views,  14 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *