পদার্থ দ্বিতীয় পত্র অষ্টম অধ্যায়ঃ(ক)

১। ফটোইলেকট্রন কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৯]

উত্তরঃ যথাযথ উচ্চ কম্পাঙ্কের আলোক রশ্মি কোনো ধাতব পৃষ্ঠে আপতিত হলে তা থেকে ইলেকট্রন নিঃসৃত হয়, এই ইলেকট্রনকে ফটোইলেকট্রন বলে।

২। মৌলিক বল কী?

উত্তরঃ যে সকল বল অন্য কোনো বল থেকে উৎপন্ন হয়নি এবং অন্য কোনো বলের রুপও নয় বা রুপান্তরও নয়, সেসব বলকে মৌলিক বল বলা হয়।

৩। নিবৃতি বিভব কাকে বলে?

উত্তরঃ ক্যাথোড প্লেটের সাপেক্ষে অ্যানোড প্লেটে যে ন্যূনতম ঋণ বিভব দিলে আলোক তড়িৎ প্রবাহমাত্রা সদ্য বন্ধ হয়ে যায় সেই বিভবই ‍নিবৃতি বিভব।

৪। কম্পটন ক্রিয়া বা প্রভাব কী?

উত্তরঃ একবর্ণী এক্স রশ্মির দরুন বিক্ষিপ্ত বিকিরণের তরঙ্গদৈর্ঘ্য তথা কম্পাঙ্কের পরিবর্তন ঘটার ক্রিয়াকে কম্পটন ক্রিয়া বা প্রভাব বলে।

 


 

৫। ফোটন কী? [ঢা.বো.-১৭, ব.বো.-১৯]

উত্তরঃ কোনো বস্তু থেকে আলো বা শক্তির নিঃসরণ নিরবচ্ছিন্নভাবে হয় না। শক্তি বা বিকিরণ ছিন্নায়িত অর্থাৎ গুচ্ছগুচ্ছ আকারে প্যাকেট বা কোয়ান্টাম হিসেবে নিঃসৃত হয়। আলো তথা যেকোনো বিকিরণ সংখ্যা কোয়ান্টাম সমষ্টি। আলোর এই কণা বা প্যাকেটই হলো ফোটন।

৬। লরেঞ্জ রুপান্তর কাকে বলে?

উত্তরঃ সময় সার্বভৌম নয় গণ্য করে এবং আপেক্ষিকতার বিশেষ তত্ত্বের মৌলিক স্বীকায দুটি মেনে চলে পরস্পরের সাপেক্ষে ধ্রুববেগে গতিশীল দুটি প্রসঙ্গ কাঠামোর স্থানাঙ্ক ও সময়ের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনকারী যেসব সমীকরণ পাওয়া যায় তাদেরকে লরেঞ্জ রুপান্তর বলে।

৭। ফটোইলেকট্রিক সেল কাকে বলে?

উত্তরঃ যে যন্ত্রের সাহায্যে আলোক তড়িৎ ক্রিয়ার ভিত্তিতে আলোক শক্তিকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রুপান্তরিত করা যায়, তাকে আলোক তড়িৎ কোষ বা ফটোইলেকট্রিক সেল বলে।

৮। তরঙ্গ কণা দ্বৈততা কী?

উত্তরঃ তরঙ্গ কণা দ্বৈততা হলো এমন একটি ধারণা যাতে উল্লেখ করা হয় যে, সকল শক্তি তরঙ্গ সদৃশ এবং কণা সদৃশ উভয় ধর্ম প্রদর্শন করে।

৯। জড় কাঠামো কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৬]

উত্তরঃ যেসব প্রসঙ্গ কাঠামোতে জড়তার সূত্র এবং নিউটনের গতির প্রথম সূত্র প্রযোজ্য হয় তাকে জড় কাঠামো বা জড়তার কাঠামো বলে।

১০। দৈর্ঘ্য সংকোচনের সমীকরণটি লেখ।

উত্তরঃ দৈর্ঘ্য সংকোচনের সমীকরণটি হলো-

 

 


 

১১। গ্যালিলীয় রুপান্তর কী?

উত্তরঃ চিরায়ত পদার্থবিজ্ঞানের যেসব সমীকরণ পরস্পরের সাপেক্ষে ধ্রুববেগে গতিশীল দুটি প্রসঙ্গ কাঠামোর সময় ও স্থানাঙ্কের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন করে তাদের গ্যালিলীয় রুপান্তর বলা হয়।

১২। আলোক তড়িৎ নির্গমণের তৃতীয় সূত্রটি লেখ।

উত্তরঃ আলোক তড়িৎ নির্গমণের তৃতীয় সূত্রটি হলো- আপতিত আলোকের কম্পাঙ্ক প্রারম্ভ কম্পাঙ্ক অপেক্ষা অধিক হলে আলোক তড়িৎ প্রবাহমাত্রা আপতিত আলোকের প্রাবল্যের সমানুপাতিক।

১৩। আলোক তড়িৎ নির্গমণের চতুর্থ সূত্রটি লেখ।

উত্তরঃ আলোক তড়িৎ নির্গমণের চতুর্থ সূত্রটি হলো- আলোক ইলেকট্রনের গতিবেগ তথা গতিশক্তি আপতিত আলোকের প্রাবল্যের উপর নির্ভর করে না, বরং আপতিত আলোকের কম্পাঙ্ক এবং নিঃসরণ বা নির্গমক এর প্রকৃতির উপর নির্ভর করে।

১৪। দ্য ব্রগলী বস্তু তরঙ্গ কী?

উত্তরঃ প্রত্যেকটি চলমান পদার্থ কণার সাথে যে তরঙ্গ যুক্ত থাকে তাকে দ্য ব্রগলী বস্তু তরঙ্গ বলে।

১৫। এক্স-রে কী? [দি.বো.-১৬]

উত্তরঃ দ্রুত গতি সম্পন্ন ইলেকট্রন কোনো ধাতব পাতে আঘাত করলে তা থেকে উচ্চ ভেদন ক্ষমতাসম্পন্ন অজানা প্রকৃতির এক প্রকার বিকিরণ উৎপন্ন হয়। এ বিকিরণকে বলা হয় এক্স-রে বা রঞ্জন রশ্মি।

১৬। কাল দীর্ঘায়নের সমীকরণটি লেখ।

উত্তরঃ কাল দীর্ঘায়নের সমীকরণটি হলো-

১৭। কঠিন এক্স-রে কখন উৎপন্ন হয়?

উত্তরঃ নলের ভেতর গ্যাসের চাপ কম হলে অধিক বিভব পার্থক্য প্রয়োগে কঠিন এক্স-রে উৎপন্ন হয়।

১৮। সূচন কম্পাঙ্ক কী? [ঢা.বো.-১৯, কু.বো.-১৭]

উত্তরঃ আপতিত ফোটনের কম্পাঙ্কের যে ন্যূনতম মানের জন্য ধাতব পৃষ্ঠ হতে ইলেকট্রন নির্গত হতে পারে সেই কম্পাঙ্কই সূচন কম্পাঙ্ক।

১৯। কার্যাপেক্ষক কাকে বলে? [চ.বো.-১৭]

উত্তরঃ কোনো ধাতব পৃষ্ঠ হতে শূন্য বেগ সম্পন্ন ইলেকট্রন নির্গত করতে যতটুকু শক্তির প্রয়োজন তাকে ঐ ধাতুর কার্যাপেক্ষক বলে।

২০। কাল দীর্ঘায়ন কাকে বলে? [রা.বো.-১৫, য.বো.-১৬, কু. বো.- ১৯, ব.বো.-১৫, দি.বো.-১৭]

উত্তরঃ কোনো পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে গতিশীল অবস্থায় সংঘটিত দুটি ঘটনার মধ্যবর্তী কাল ব্যবধান ঐ পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে নিশ্চল অবস্থায় সংঘটিত ঐ একই ঘটনাদ্বয়ের মধ্যবর্তী কাল ব্যবধানের চেয়ে বেশি হবে, এ ঘটনাকে কাল দীর্ঘায়ন বলে।

 


 

২১। ফটো ইলেকট্রনের সর্ব্বোচ্চ বেগের সমীকরণ লেখ।

উত্তরঃ ফটো ইলেকট্রনের সর্ব্বোচ্চ বেগের সমীকরণ- .

২২। আলোক তড়িৎ ক্রিয়া কাকে বলে? [রা.বো.-১৬, কু.বো.- ১৫, সি.বো.-১৫, চ.বো.-১৫]

উত্তরঃ উচ্চ কম্পাঙ্কবিশিষ্ট আলোকরশ্মি কোনো ধাতবপৃষ্ঠে আপতিত হলে তা থেকে ইলেকট্রন নিঃসৃত হয়, এ ঘটনাকে আলোক তড়িৎ ক্রিয়া বলে।

২৩। দৈর্ঘ্য সংকোচন কাকে বলে? [য.বো.-১৯, চ.বো.-১৬]

উত্তরঃ কোনো বস্তুর গতিশীল অবস্থার দৈর্ঘ্য ঐ বস্তুর স্থির অবস্থার চেয়ে ছোট হওয়াকে দৈর্ঘ্য সংকোচন বলে।

২৪। সূচন তরঙ্গদৈর্ঘ্য কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৫]

উত্তরঃ কোনো ধাতবপাত থেকে ইলেকট্রন নিঃসরণের জন্য একটি সর্বনিম্ন কম্পাঙ্ক প্রয়োজন হয় যাকে সূচন কম্পাঙ্ক বলা হয়। সূচন কম্পাঙ্ক সূচন তরঙ্গদৈর্ঘ্যের ব্যস্তানুপাতিক। তাই সূচন কম্পাঙ্ক বিশিষ্ট তরঙ্গের তরঙ্গদৈর্ঘ্যকে সূচন তরঙ্গদৈর্ঘ্য বলা হয়।

২৫। আইনস্টাইনের দ্বিতীয় স্বীকার্যটি বর্ণনা কর।

উত্তরঃ আইনস্টাইনের দ্বিতীয় স্বীকার্যটি হলো- সকল জড় প্রসঙ্গ কাঠামোতে শূন্যস্থানে আলোর বেগ সর্বদা ধ্রুব থাকে।

২৬। ভরের আপেক্ষিকতা কাকে বলে?

উত্তরঃ বস্তুর নিশ্চল ভরের তুলনায় চলমান বা গতিশীল ভর বেশি হওয়ার ঘটনাকে ভরের আপেক্ষিকতা বলে।

২৭। প্লাজমা অবস্থা কী?

উত্তরঃ সমান সংখ্যক ইলেকট্রন ও ধনাত্মক আয়নযুক্ত উচ্চ আয়নিত গ্যাসকে প্লাজমা অবস্থা বলা হয়।

 

 

 

 

 

 


 

২৮। ভর-ত্রুটি কী?

উত্তরঃ নিউক্লিয় ফিশনের সময় ভারী নিউক্লিয়াসটি ভেঙ্গে যে দুটি অংশে বিভক্ত হয় তাদের ভরের সমষ্টি ভারী নিউক্লিয়াসের ভরের চেয়ে কিছু কম হয়। এ ভর ঘাটতিকেই ভর ত্রুটি বলে।

২৯। আপেক্ষিকতা কী?

উত্তরঃ আইনস্টাইনের মতে, স্থান, কাল এবং ভর এদের কোনোটিই নিরপেক্ষ বা পরম নয়, প্রত্যেকটি অন্য কিছুর সাপেক্ষে বিবেচিত হয়।কোনো বিষয় অন্য কিছুর সাপেক্ষে বিবেচিত হওয়াই আপেক্ষিকতা।

৩০। দ্য-ব্রগলী তরঙ্গদৈর্ঘ্য কাকে বলে?

উত্তরঃ প্রত্যেকটি চলমান পদার্থ কণার সাথে একটি তরঙ্গ যুক্ত থাকে। আবিষ্কারকের নামানুসারে এই তরঙ্গ ডি-ব্রগলী বস্তু তরঙ্গ নামে পরিচিত এবং এই তরঙ্গের তরঙ্গদৈর্ঘ্যকে ডি-ব্রগলী তরঙ্গদৈর্ঘ্য বলে।

৩১। আইনস্টাইনের ভরশক্তি সমীকরণটি লেখ।

উত্তরঃ আইনস্টাইনের ভরশক্তি সমীকরণটি হলো- .

৩২। পারমানবিক ভর একক বলতে কী বুঝ? [সি.বো.-১৭]

উত্তরঃ পারমানবিক ভর একক বা  বলতে  পরমাণুর ভরের  অংশকে বুঝায়।

৩৩। আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্ব কী নিয়ে আলোচনা করেছে?

উত্তরঃ আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্ব পরস্পরের তুলনায় উর্ধ্ব বা নিম্ন গতিশীল বস্তুসমূহ বা সিস্টেম নিয়ে আলোচনা করেছে।

৩৪। আপেক্ষিকতার বিশেষ তত্ত্ব কি নিয়ে আলোচনা করেছে?

উত্তরঃ আপেক্ষিকতার বিশেষ তত্ত্ব শুধু পরস্পরের তুলনায় সমগতিতে সঞ্চারণশীল অসঞ্চারণশীল বস্তু বা সিস্টেম নিয়ে আলোচনা করেছে।

৩৫। অজড় কাঠামো কী?

উত্তরঃ যেসব প্রসঙ্গ কাঠামোতে নিউটনের গতির সূত্র প্রযোজ্য নয় সেসব কাঠামোই অজড় কাঠামো।

৩৬। পৃথিবীর কক্ষপথের বেগ কত?

উত্তরঃ পৃথিবীর কক্ষপথের বেগ .

 


 

৩৭। কম্পটন ক্রিয়া কত সালে আবিষ্কৃত হয়?

উত্তরঃ কম্পটন ক্রিয়া ১৯২৩ সালে আবিষ্কৃত হয়।

৩৮। একটি ইলেকট্রনের ভর কত?

উত্তরঃ একটি ইলেকট্রনের ভর

৩৯। মৌলিক বল কয়টি?

উত্তরঃ মৌলিক বল চারটি।

৪০। হাইজেনবার্গের অনিশ্চয়তার নীতিটি লেখ।

উত্তরঃ হাইজেনবার্গের অনিশ্চয়তার সূত্রটি হলো- যদি কোনো কণার কোনো নির্দিষ্ট সময়ের অনিশ্চয়তা  এবং ভর বেগের অনিশ্চয়তা  হয়, তবে এদের গুনফল প্ল্যাঙ্কের ধ্রুবক এর সমান বা প্ল্যাঙ্কের ধ্রুবক অপেক্ষা বড় হবে।

৪১। ক্ষরণ নল কাকে বলে?

উত্তরঃ নিম্নচাপে বায়ুর মধ্য দিয়ে তড়িৎ ক্ষরণের পরীক্ষা চালানোর জন্য প্রায়  ব্যাসের  লম্বা যে কাচনল ব্যবহার করা হয় তাকে ক্ষরণ নল বলে।

 


 

 


 406 total views,  13 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *