কাঁচা কিংবা পাকা সংরক্ষণ পদ্ধতি

আম পছন্দ করেনা এমন লোক খুজে পাওয়া যাবেনা। তাই আমকে ফলের রাজা বলা হয়ে থাকে।আমের মেীসুমে অল্প দামেই কাঁচা ও পাকা আম পাওয়া যায়।আমরা একটু পরিশ্রম করে কাঁচা কিংবা পাকা আম সংরক্ষণ করে রাখলে আমরা সারা বছরই আমের স্বাদ নিতে পারবো।আসুন জেনে নিই কি ভাবে কাঁচা ও পাকা আম সংরক্ষণের কৌণল-



কাঁচা আম সংরক্ষণ:

আম প্রথমে ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। খোসা ছাড়িয়ে আরেক দফা ধুয়ে নিন। পছন্দ মতো আকৃতিতে টুকরা করে নিতে হবে। আমের আঁটি ফেলে দিন। জানুন> খুব সহজে ঘর থেকে তেলাপোকা দূর করার কৌশল  একটি পাত্রে পানি, আধা টেবিল চামচ চিনি, আধা টেবিল চামচ ভিনেগার একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। সেই মিশ্রণে আমের টুকরাগুলো আধা ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। তারপর ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে পানি ঝরিয়ে নিন। টিস্যু দিয়ে আমের টুকরা থেকে পানি শুকিয়ে নিতে হবে। তারপর টুকরাগুলো ডিপ ফ্রিজে রেখে দিন দ। এই পদ্ধতিতে পুরো বছর কাঁচা আম সংরক্ষণ করা সম্ভব।

জেনে নিন>> সারা বছর লিচু সংরক্ষণ করে রাখার কৌশল

কাঁচা আম সংরক্ষণ:
খুব সহজে সংরক্ষণ করা যায় পাকা আমও। তবে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে।
গাছ থেকে সংগৃহীত আম ঘরের তাপমাত্রায় এমনিতেই সপ্তাহ খানেক ভালো থাকে। তবে কুসুম গরম পানিতে ৫-৭ মিনিট ভিজিয়ে রাখলে আরও দুই সপ্তাহ বেশি সংরক্ষণ করা যায়।



কাগজে মুড়িয়ে সংরক্ষণ:কাগজে মুড়িয়ে সংরক্ষণ করা যায়। খবরের কাগজে মুড়ে আমগুলো বড় পলিথিনে ভরে ফ্রিজের নরমালে রেখে দিলে দুই সপ্তাহ ভালো থাকে। চাইলে এক মাস পর্যন্তও রাখা যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে ১০ দিন পর পর নতুন কাগজে মুড়ে দিতে হবে।এ ভাবে ডিপ ফ্রিজে রেখে আম ছয় থেকে আট মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করা সম্ভব।আরও বেশি দিন সংরক্ষণ করতে চাইলে পাকা আমের খোসা ছাড়িয়ে ছোট টুকরা করে জিপলক ব্যাগে রাখা যেতে পারে। মুখ বন্ধ করে ব্যাগটি ডিপ ফ্রিজে রাখতে হবে। সারা বছর সংরক্ষণ করতে চ্ইালে আম ছোট টুকরা করে কেটে ব্লেন্ড করে নিন। আইস বক্সে তা ঢেলে ডিপ ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। জমে গেলে তা জিপলক ব্যাগে ঢুকিয়ে নিন। ব্যাগটি মুখবন্ধ বাটিতে ভরে ডিপ ফ্রিজে রেখে দিতে হবে। এভাবে পুরো বছর আম সংরক্ষণ করা যাবে।  সংকলন করেছেন: লুৎফুন নাহার লুবনা







 2,239 total views,  1 views today

বাংলা English