কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় আমন ধান কাটা-মাড়াই শুরু হয়েছে। মাঠের পর মাঠ পাকা ধানের মৌ-মৌ গন্ধে মাতোয়ারা চারপাশ।কাস্তের টানে কেউ ক্ষেতের সোনালি ধান কেটে শুকানোর মাঠে ছড়িয়ে রেখেছেন, কেউ আটি বাঁধছেন, আবার কেউ কেউ মাঠ থেকে ধান নিয়ে বাড়ি যাচ্ছেন।ইতিমধ্যে ধান মাড়াই শুরু করেছেন অনেক কৃষক।ধান ঝাড়াই ও নতুন ধান সংরক্ষনের জন্য ব্যস্ত সময় পার করতে হচ্ছে কৃষাণীদের। ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন যেন দম ফেলার ফুরসত নেই কৃষক কৃষাণীদের।এবারে বর্ষা মৌসুমে সঠিক সময়ে বৃষ্টি ও পোকামাকড়ের আক্রমন তেমন না থাকায়, গত বছরের তুলনায় এবার ধানের ফলন অনেক ভালো হয়েছে।

 


আন্ধারীঝাড় ইউনিয়নের কৃষক মিঠু জানান, এবার ১৬বিঘা জমিতে আমন ধান লাগিয়েছি।জমির ধান কেটে খড় শুকানোর জন্য মাঠেই বিছিয়ে রেখেছি।সময়মত বৃষ্টি হয়েছে এবং পোকার আক্রমণ তেমন হয়নি। ফলন বেশ ভালো হয়েছে। গত বছরের চেয়ে এবার ধানের ফলন বেশী ধান পাবো।
পাইকের ছড়া ইউনিয়নের বেলদহ গ্রামের কৃষক মমিনুর জানান,আমি ৪ বিঘা জমিতে ভারতীয স্বর্ণা ধান লাগিয়েছি। ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ শেষ করেছি। প্রতি বিঘায় ১৬ মন করে ধান পেয়েছি।

 


উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান জানান,চলতি রোপা আমন মৌসুমে উপজেলায়, ১৬ হাজার ৭শত ২০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধান চাষ হয়েছে।উপজেলায় এই রোপা আমন মৌসুমে ব্রি-ধান ৫৬, ব্রি-ধান ৭১, ব্রি-ধান ৭৫, বিনা-১১, বিনা-১৭,বিভিন্ন জাতের হাইব্রিড,স্থানীয় জাতের আমন ও স্বর্ণাসহ বেশ কয়েক জাতের ভারতীয় ধানের চাষ হয়েছে।এ পরিমাণ জমি থেকে ৬৬হাজার ১৪২ মেট্রিক টন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে ৬৯ হাজার ৭১৬.৫৫ মেট্রিক টন ধান উৎপাদিত হবে।

 





 667 total views,  1 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published.