কচুর লতি

মাটিঃ

মাঝারি নিচু থেকে মাঝারি উঁচু জমি,যেখানে বৃষ্টির পানি ধরে রাখা যায় এবং অতিবৃষ্টিতে পানি বের করে দেওয়া যায় এমন জমিতে লতিরাজ কচু চাষাবাদের জন্য উপযুক্ত। দীর্ঘদিন জলাবদ্ধতা লতিরাজ কচু চাষ আবাদের জন্য ক্ষতিকর। সেচ নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ভালো থাকলে এটেল দোআঁশ মাটিতে ও লতিরাজ কচু চাষ আবাদ করা যায়।কচু চাষের জন্য মাঝারি নিচু জমি থেকে উচু জমি ভাল। যেখানে পনি জমে থাকে অথবা বৃষ্টির পানি ধরে রাখা যায় এমন জমি পানি কচু চাষের জন্য ভাল। এঁটেল মাটি ও পলি দো-আঁশ মাটি পানি কচু চাষের জন্য উত্তম।

জমি তৈরিঃ

শুকনো জমিতে চাষ দিয়ে ও ভেজা জমিতে কাদা করে চারা রোপণ করা যায়।

জমি গভীরভাবে চাষ করে শেষ চাষের সময় শতক প্রতি ৩০/ ৪০ কেজি গোবর সার ও ৪০০ গ্রাম পটাশ, ৩০০ গ্রাম টিএসপি, ২০০ গ্রাম জিপসাম জমিতে ভালো করে ছিটিয়ে মাটি সমান করে ২ ফুট পরপর সারি ও দেড় দুই ফুট পর পর চারা রোপণ করতে হবে। শতক প্রতি ১৩৫/১৪০ টি চারা ।চারা রোপণের ২০ ২৫ দিন পর নিড়ানি দিয়ে আগাছা পরিষ্কার করে শতক প্রতি ২০০ গ্রাম পটাশ ও ৩৫০ গ্রাম ইউরিয়া সার ছিটিয়ে দিতে হবে। এছাড়াও ২ বার লতি সংগ্রহের পর (৭/১০ দিন পরপর লতি সংগ্রহ করতে হবে) উল্লেখিত পরিমাণ সার ছিটাতে হবে। লতিরাজ কচু জমিতে কখনোই শুকিয়ে ফাটল ধরতে দেয়া যাবে না ।

কচু রোপণের সময়

বছরের যেকোনো সময় লতিরাজ কচুর চারা মাঠে রোপন করা চলে। আগাম ফসলের জন্য কার্তিক মাস ও নাবী ফসলের জন্য ফাগুন থেকে মধ্য বৈশাখ মাসে চারা রোপণ করা যায়।বাণিজ্যিক চাষ আবাদের জন্য কার্তিক মাস উপযুক্ত।আগাম ফসল চাষ করতে হলে কার্তিক মাসে, নাবী ফসলের জন্য ফালগুন মাসে কচু লাগাতে হয়। দেশের দক্ষিণাঞ্চলে সারা বছর কচু লাগানো যায়। প্রতি শতক কচুর রোপনের জন্য ১৫০ টি চারা দরকার হয়।

চারা রোপণের দুরত্ব

সারি থেকে সারির দূরত্ব হবে ২ ফুট (৬০সেমি) এবং গাছ থেকে গাছের দূরত্ব হবে ১.৫ ফুট (৪৫ সেমি)।

কচু রোপণের নিয়ম

একটি প্রাপ্ত বয়স্ক কচু গাছের গোড়া থেকে ছোট ছোট চারা বের হয়। এসব চারার মধ্যে থেকে সুস্থ্য সবল সতেজ চারা পানি কচু চাষের জন্য বীজ চারা হিসাবে ব্যবহার করা হয়। পানিকচুর চারা যত কম বয়সের হবে তত ভাল হবে। যে চারার ৪-৬ টি পাতা আছে, সতেজ সাকার বীজ চারা হিসাবে নির্বাচিত করতে হবে। চারার উপরের ১/২টি পাতা বাদ দিয়ে বাকি পাতা ও পুরাতন শিকড় ছেঁটে ফেলে দিয়ে চারা রোপণ করতে হবে। চারা তোলার পর রোপণ করতে দেরি হলে চারা ছায়াযুক্ত স্থানে ভেজামাটিতে রেখে দিতে হবে। নির্ধারিত দুরত্বে ৫-৬ সেমি. গভীরে চারা

সতর্কতাঃ

হাতে টেনে কখনোই লতি সংগ্রহ করা যাবে না। কাচতে দিয়ে কেটে কেটে লতি সংগ্রহ করতে হবে। হাতে টেনেলতি সংগ্রহ করলে কচুর কা-ে পচন সৃষ্টি হবে।

ফলন:: প্রতি ৭ থেকে ১০ দিন পর পর একটি গাছ থেকে ১৫০ থেকে ২০০ গ্রাম লতি পাওয়া যেতে পারে। চারা রোপণের ৪৫/৬০:দিন পর থেকে লতি সংগ্রহ শুরু হয় এবং ৬/৭ মাসব্যাপী চলে। লতি সংগ্রহ শেষে একটি গাছ থেকে দেড় থেকে দুই কেজি কান্ড হতে পারে।

আ অবহেলায় পড়ে থাকা অনাবাদি জমি গুলিতে লতিরাজ কচু চাষ আবাদ করে   এবং একটা বাড়তি আয়ের এর ব্যবস্থা করা যায়। লতিরাজ কচু চাষ আবাদ সম্পূর্ণ টেনশন ফ্রি ফসল।

পুষ্টি ও স্বাদের দিক থেকেকচু একটি অন্যতম সবজি, বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন এর সাথে সাথে প্রচুর লৌহ যোগান দিয়ে থাকে কচু। বাংলাদেশের সব জেলাতেই পানি কচু চাষ করা যায়। এ কচু দাঁড়ানো পানি সহ্য করতে পারে বলে একে পানি কচু বলে। বাংলাদেশে বিভিন্ন নাম রয়েছে পানিকচুর যেমন- জাতকচু, বাঁশকচু, নারিকেলকচু ইত্যাদি। আধুনিক পদ্ধতিতে পানি কচু চাষ করে আর্থিক লাভবান হওয়া যায় । দেশের বিভিন্ন জেলার কৃষকগণ ভাগ্য বদলিয়েছে পানি কচু চাষের মাধ্যমে।

লিখেছেন মোশতাক মৃধা

 2,744 total views,  3 views today

One thought on “লতিরাজ কচু চাষ পদ্ধতি”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *