বেগুন বাংলাদেশের একটি অতিপরিচিত এবং জনপ্রিয় সবজি। বাংলাদেশের অনেক কৃষক বর্তমানে বেগুনের চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। বাংলাদেশে এলাকা বা অঞ্চলভিত্তিক বিভিন্ন স্থানীয় ও হাইব্রিড জাতের বেগুন চাষ করা হয়ে থাকে।
বেগুনের চাষ পদ্ধতি আমাদের অনেকেরই জানা নেই। আমাদের দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই বেগুন চাষ হয়ে থাকে। সঠিক নিয়মে বেগুনের চাষ না করায় অনেকেই আবার লোকসান করে থাকেন। বেগুন একটি সুস্বাদু ও পুষ্টিকর সবজি। আমাদের দেশে প্রায় সারা বছরই বেগুনের চাষ করা হয়ে থাকে। বেগুন চাষ করে অনেক কৃষকই স্বাবলম্বী হচ্ছেন। তাহলে আসুন জেনে নেই বেগুন চাষ করার পদ্ধতি সম্পর্কে-
বেগুন চাষের উপযুক্ত মাটিঃ
বেগুনের চাষ পদ্ধতিঃ আমাদের দেশে প্রায় সব মাটিতেই বেগুন জন্মে থাকে। তবে বেগুন চাষের ক্ষেত্রে এটেল দো-আঁশ, দো-আঁশ ও পলি মাটিতে বেগুনের ফলন ভাল হয়ে থাকে। তাছাড়াও শীতকালে বেগুনের ফলন বেশি হয়ে থাকে।
গুনের চারা রোপণঃবে বেগুন চাষের শুরুতে বীজতলায় বেগুনের চারা তৈরি করে নিতে হবে। তারপর ৫ থেকে ৬ সপ্তাহ বয়সের বেগুনের চারাকে ৭৫ সে.মি দূরত্বে সারি করে ৬০ সে.মি দূরে দূরে রোপণ করতে হয়। তবে বেগুনের চারার আকার অনুযায়ী দূরত্ব কিছুটা কম-বেশি করা যায়।

বেগুনের চারা রোপণের সময়ঃ
সাধারণত বেগুনের চারা মাঘ-ফাল্গুন মাসে গ্রীষ্মকালীন, বৈশাখ মাসে বর্ষাকালীন, ভাদ্র-আশ্বিন মাসে শীতকালীন ফসলের জন্য রোপণ করা হয়ে থাকে।
সার প্রয়োগঃবেগুন চাষে সার প্রয়োগ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বেগুন চাষে সার প্রয়োগের ক্ষেত্রে প্রতি হেক্টর (এক হেক্টর সমান ২৪৭.১০ শতক) জমিতে ১৪৫ থেকে ১৫৫ কেজি টিএসপি, ৩৭০ থেকে ৩৮০ কেজি ইউরিয়া, ২৪০ থেকে ২৬০ কেজি এমপি এবং গোবর ৮ থেকে ১২ টন হারে প্রয়োগ করতে হবে।বেগুন চাষের জমি তৈরির সময় অর্ধেক গোবর প্রয়োগ করতে হয় আর বাকি অর্ধেক গোবর সম্পূর্ণ টিএসপি এবং এক তৃতীয়াংশ ইউরিয়া ও এমপি সার পিট তৈরির সময় প্রয়োগ করতে হয়। অবশিষ্ট ইউরিয়া ও এমপি সার তিন কিস্তিতে রোপণের ২১ থেকে ৩৫ ও ৫০ দিন পর প্রয়োগ করতে হবে।
বেগুন চাষ: জেনে নিন লাভজনক উপায়ে বেগুন চাষ পদ্ধতি
বেগুনের রোগের প্রভাব, লক্ষণসমূহ ও দমন ব্যবস্থাপনাঃ
ঢলে পড়া (Wilt of Brinjal) রোগের লক্ষণ: Fusarium oxysporum নামক ছত্রাক দ্বারা এই রোগ হয়ে থাকে।
১. আক্রান্ত গাছের পাতা হালকা হলুদ হয়ে যায়।
২. গাছের এক প্রান্ত ঢলে পড়ে পড়ার পর ধীরে ধীরে অন্য প্রান্ত ঢলে পড়ে।
৩. এই রোগের আক্রমণে গাছের গোড়া ও শেকড় বিবর্ণ হয়ে পচে যায়।
৪. এ রোগের ফলে পাতা নেতিয়ে পড়ে ও গাছ ঢলে পড়ে যায়। আক্রমণ বেশি হলে পরবর্তীতে গাছ মরে যায়।
জেনে নিন>> পটল চাষ
প্রতিকারঃ
১. আক্রান্ত গাছ তুলে মাটিতে পুঁতে ফেলতে হবে।
২. শস্য পর্যায় অবলম্বন করতে হবে।
৩. কার্বেন্ডাজিম জাতীয় ছত্রাকনাশক দ্বারা চারা/বীজ শোধন করতে হবে।
৪. চাষের পূর্বে জমিতে শতক প্রতি ১-২ কেজি ডলোচুন বা পাথরের চুন ব্যবহার করতে হবে।
৫. রোগাক্রান্ত স্থানে ক্যালসিয়াম সাইনামাইড ( Calcium cyanamide ) প্রয়োগ করা যেতে পারে।
৬. এছাড়াও নাইট্রোজেনের উৎস হিসেবে অ্যামোনিয়ামের পরিবর্তে নাইট্রেট ব্যবহার করলে রোগের আক্রমণ কিছুটা কমে।
৭. আক্রান্ত গাছে কপার অক্সিক্লোরাইড ( সানভিট ) বা কপার হাইড্রোঅক্সাইড ( চাম্পিয়ান) ২ গ্রাম/লিটার পানি অথবা বর্দোমিকচার ( ১০০ গ্রাম তুঁতে ও ১০০ গ্রাম পাথুরে চুন ১০ লিটার পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।
৮. ৭-১০ লিটার পানিতে ১ গ্রাম স্ট্রেপ্টোমাইসিন/প্লাটোমাইসিন মিশিয়ে তাতে চারা ১৫-২০ মিনিট ডুবিতে রাখলে উপকার পাওয়া যায়।

বেগুনের ছোট পাতা (Little leaf of brinjal) রোগের লক্ষণঃ মাইকোপ্লাজমা দ্বারা বেগুনের পাতা ছোট হয়ে যাওয়া রোগ হয়ে থাকে।
১. জ্যাসিড পোকা এই মাইকোপ্লাজমা রোগ ছড়ায়।
২.বেগুনের ঋতুতে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে জ্যাসিড পোকার আক্রমণ বাড়ে।
৩. সাধারণত ১ মাস বয়সের গাছে এ রোগ দেখা দিলেও পূর্ণ বয়স্ক গাছে এ রোগের আক্রমণ বাড়ে।
৪.আক্রান্ত গাছে ছোট ছোট অনেক পাতা দেখা যায় এবং পাতাগুলো গুচ্ছ আকারে দেখা যায়।
৫.আক্রান্ত গাছে বেগুন হয় না। আর গাছে ২-১ টি বেগুন ধরলেও গুনগত মানসম্পন্ন হয় না।
প্রতিকারঃ
১.রোগাক্রান্ত গাছ তুলে ধ্বংস করতে হবে।
২.আক্রান্ত জমিতে সোলানেসি পরিবারভুক্ত ফসলের চাষ কমাতে হবে।
৩. আক্রান্ত গাছের গোড়ায় গাছ প্রতি ২৫ গ্রাম চুন মাটির সাথে মিশিয়ে দিলে গাছ ক্রমেই সুস্থ হয়ে যায়।
৪. আক্রমণের হার বেশি হলে ইমিডাক্লোরপ্রিড (এডমায়ার/টিডো/ইমিটাফ) ১মিলি/লিটার অথবা এসিফেট ( এসিটাফ) ০.২৫মিলি/লিটার পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।
বেগুনের ফল ও কাণ্ড পচা (Fruit and stem Rot of Brinjal) রোগের লক্ষণঃ Phomopsis vexans নামক ছত্রাক দ্বারা এ রোগ হয়ে থাকে।
১. বীজ, চারা, কাণ্ড, পাতা, ফুল ও ফলে এ রোগ দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে।
২. আক্রান্ত গাছের ডালে বা কাণ্ডে ক্যাংকার দেখা যায়।
৩. ডাল চক্রাকারে পচে গাছ মারা যায়।
৪. পাতার উপরে ধূসর/ বাদামি বলয়ে ঘেরা ও কেন্দ্রস্থলে হলুদ বর্ণের দাগ পড়ে। বেশি আক্রান্ত হলে পাতা হলুদ হয়ে ধীরে ধীরে ঝড়ে পড়ে ও মারা যায়।
৫. ফলের উপর কিছু কিছু স্থানে ফ্যাকাশে ডাবানো গোলাকার তালির মতো দাগ পড়ে। এ দাগ দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে পুরো ফল ঘিরে ফেলে এবং ফলের রং নষ্ট হয়ে যায়।
৬.আক্রান্ত বীজ কালচে হয়ে নষ্ট হয়ে যায়।
প্রতিকারঃ
১. প্রতিবছর সোলানেসি পরিবারভুক্ত ফসল একই জমিতে চাষ না করা।
২. রোগ প্রতিরোধী জাত ব্যবহার করতে হবে।
৩. রোগমুক্ত জমি থেকে বীজ সংগ্রহ করতে হবে।
৪. কার্বেন্ডাজিম জাতীয় ছত্রাকনাশক প্রতি কেজি বীজে ২.৫ গ্রাম হারে দিয়ে বীজ শোধন করে নিতে হবে।
৫. কার্বেন্ডাজিম (অটোস্টিন) ২ গ্রাম/লিটার পানি অথবা প্রোপিকোনাজোল (টিল্ট ২৫০ ইসি) ১ মিলি/লিটার পানিতে মিশিয়ে ৭-১০ দিন পর পর ২-৩ বার জমির সব গুলো গাছে স্প্রে করতে হবে।
বেগুন গাছের পরিচর্যাঃ
বেগুন চাষে পরিচর্যা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কারণ পরিচর্যার উপর বেগুনের ফলন নির্ভর করে থাকে। মাঝে মধ্যে বেগুন গাছের গোড়ার মাটি আলগা করে দিতে সেচ দিয়ে দিতে হবে। আর বেলে মাটিতে বেগুন চাষের ক্ষেত্রে ১০ থেকে ১৫ দিন পর সেচ দিতে হবে। অতিরিক্ত পানির কারণে যাতে বেগুন গাছের গোঁড়া পচে না যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। এ ক্ষেত্রে বেগুন চাষের জমিতে পানি নিষ্কাসনের ব্যবস্থা করতে পারলে ভাল।

 

 2,925 total views,  8 views today

5 thoughts on “লাভজনক উপায়ে বেগুন চাষ পদ্ধতি”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *