ভূরুঙ্গামারীতে পেট্রোল ও অকটেনের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পেট্রোল ও অকটেন নির্ভর মোটরবাইকাররা। । ঈদের পর দিন থেকে গোটা উপজেলা পেট্রোল ও অকটেন শূন্য হয়ে পড়েছে। এ সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত দামে পেট্রোল ও অকটেন বিক্রি করছে বলে অভিযোগ করেছেন অনেক ক্রেতা।
জানাগেছে, ভূরুঙ্গামারীতে ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেন সরবাহকারী একমাত্র প্রতিষ্ঠান মেসার্স সাহা ফিলিং ষ্টেশনে ঈদের আগের দিন বিকেলে পেট্রোল আর ঈদের দ্বিতীয় দিন অকটেন মজুদ শেষ হয়ে যায়। ফলে মোটর সাইকেলের একমাত্র জ্বালানির সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এ সুযোগে উপজেলার বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে ও হাট বাজারের জ্বালানী তেল বিক্রেতারা ১৫০ থেকে ২০০ লিটার পেট্রোল ও অকটেন বিক্রি করার অভিযোগ ওঠেছে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে ফেসবুকে স্টাটাস দিতেও দেখাগেছে অনেককে।


 

 


 

মাহবুব নামের একজন মোটর সাইকেল চালক বলেন, ঈদের আগের দিন ভূরুঙ্গামারীতে পেট্রোল না পেয়ে পার্শ্ববর্তী উপজেলার জুলেখা ফিলিং ষ্টেশনে যাই। সেখানে পেট্রোল না পেয়ে অকটেন নিয়ে আসি। কিন্তু আজ (শনিবার) কোথাও পেট্রোল বা অকটেন পাইনি।
মোস্তাফিজুর নামের আরেকজন জানান, গত শুক্রবার এক লিটার অকটেন ১৫০ টাকায় কিনেছি। শনিবার(০৭ মে) দুপুরে সরজমিনে মেসার্স সাহা ফিলিং ষ্টেশনে গিয়ে দেখা যায় পেট্রোল ও অকটেন না থাকায় তা বন্ধ রাখা হয়েছে। অপর দিকে উপজেলার বিভিন্ন জায়গা ঘুরে কোথাও অকটেন বা পেট্রোল বিক্রি করতে দেখা যায়নি।

 


 


 

ফলে মোটর সাইকেল চালকদেরকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।এ বিষয়ে মেসার্স সাহা ফিলিং ষ্টেশনের ম্যানেজার শ্রী আনন্দ চক্রবর্তী জানান ঈদের সময় আমাদের যে পরিমাণ পেট্রোল এর প্রয়োাজন ছিল।তা আমরা পাইনি। মূলত এটা ডিপো থেকে সংকট ছিল। আমাদের কুড়িগ্রাম পেট্রোল পাম্পে মাত্র অর্ধেক লড়ির ফুয়েল পাই সেটি দিয়ে আমাদের তিনটা ষ্টেশন চলে। আমাদের এখানে যা ছিলো সেটা ইতিমধ্যে শেষ হয়েগেছে। গতকাল থেকে আমাদের ভুরুঙ্গামারী এবং নাগেশ্বরী স্টেশনে পেট্রোল এবং অকটেন সরবরাহ বন্ধ আছে আশাকরি দু-একদিনের মধ্যেই সেটা আবার পুনরায় চালু হবে। অতিরিক্ত দামে তেল বিক্রি করা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের এখানে অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি করার কোন সুযোগ নাই।

 


 

 



 

 



 



 

 


 

 692 total views,  4 views today

বাংলা English