পদার্থ দ্বিতীয় পত্র  দ্বিতীয় অধ্যায়ঃ(ক)

১। পোলার ডাই ইলেকট্রিক কাকে বলে? [সি.বো.-১৯]

উত্তরঃ যে সব ডাই ইলেকট্রিক পদার্থের কোনো অণুর ঋনাত্মক আধানের কেন্দ্র ধনাত্মক আধানের কেন্দ্রের সাথে সমাপতিত হয় না সেই সকল ডাই ইলেকট্রিক পদার্থকে পোলার ডাই ইলেকট্রিক বলে।

২। তড়িচ্চালক শক্তির সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ একক চার্জকে তড়িৎ কোষ সমেত কোনো বর্তনীর এক বিন্দু হতে সম্পূর্ণ বর্তনী ঘুরিয়ে পুনরায় ঐ বিন্দুতে আনতে যে কাজ সম্পন্ন হয় অর্থাৎ প্রবাহ চলমান রাখতে তড়িৎ কোষ যে শক্তি সরবরাহ কর তাকে ঐ কোষের তড়িচ্চালক শক্তি বলে।

৩। চার্জের তল ঘনত্ব কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো চার্জিত পরিবাহী পৃষ্ঠের যেকোনো বিন্দুর চারপাশে একক ক্ষেত্রফলে যে পরিমাণ চার্জ বর্তমান থাকে তাকে ঐ বিন্দুতে ঐ পরিবাহীর চার্জের তল ঘনত্ব বলে।

৪। তড়িৎ বিভব কী? [সি.বো.-১৯]

উত্তরঃ অসীম দূর থেকে একক ধনাত্মক আধানকে তড়িৎ ক্ষেত্রের কোনো বিন্দুতে আনতে কৃতকাজের পরিমাণই হলো তড়িৎ বিভব।

৫। পরাবৈদ্যুতিক ধ্রুবক কী?

উত্তরঃ দুটি বিন্দু চার্জের মধ্যে নির্দিষ্ট দুরত্বের শূন্যস্থানে ক্রিয়াশীল বল ও ঐ দুই চার্জের মধ্যে একই দুরত্বে অন্য কোনো মাধ্যমে ক্রিয়াশীল বলের অনুপাতকে ঐ মাধ্যমের তড়িৎ মাধ্যমাঙ্ক বা পরাবৈদ্যুতিক ধ্রুবক বলে।


৬। তড়িৎ তীব্রতা কাকে বলে?

উত্তরঃ তড়িৎ ক্ষেত্রের কোনো বিন্দুতে একটি একক ধনাত্মক চার্জ স্থাপন করলে তার উপর যে বল প্রযুক্ত হয়, তাকে ঐ তড়িৎ ক্ষেত্রের জন্য উক্ত বিন্দুর তড়িৎ তীব্রতা বলে।

৭। ধারকের সমবায় কাকে বলে?

উত্তরঃ একাধিক ধারককে একত্রে সংযুক্ত করে ব্যবহার করাকে ধারকের সমবায় বলে।

৮। বিন্দু চার্জ কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৬, দি.বো.-১৯]

উত্তরঃ আহিত বা চার্জিত বস্তুর আকার যখন খুবই ক্ষুদ্র হয় তখন ঐ চার্জিত বস্তুর চার্জকে বিন্দু চার্জ বলে।

৯। আপেক্ষিক ভেদনযোগ্যতা কী?

উত্তরঃ কোনো মাধ্যমের ভেদনযোগ্যতা ও শূন্য মাধ্যমের ভেদনযোগ্যতার অনুপাতই হলো আপেক্ষিক ভেদনযোগ্যতা।

১০। বদ্ধ আধান কী?

উত্তরঃ আবিষ্ট পরিবাহকের যে প্রান্ত আবেশী বস্তুর নিকটে থাকে সেই প্রান্তে যে আধানের সঞ্চার হয় তাই বদ্ধ আধান।

১১। তড়িৎ আবেশ কী? [চ.বো.-১৯]

উত্তরঃ চার্জিত বস্তুর উপস্থিতিতে অচার্জিত পরিবাহী ক্ষণস্থায়ীভাবে চার্জিত হওয়াই তড়িৎ আবেশ।

১২। ফ্যারাড কাকে বলে? [চ.বো.-১৯]

উত্তরঃ কোনো ধারককে এক কুলম্ব চার্জ প্রদান করলে যদি এর বিভব এক ভোল্ট বৃদ্ধি পায় তবে উক্ত ধারকের ধারকত্বকে এক ফ্যারাড বা সংক্ষেপে ফ্যারাড বলে।

১৩। অন্তরিত অপরিবাহী কী?

উত্তরঃ তড়িৎ সংক্রান্ত কাজে যে সকল পদার্থ সংযোজক হিসেবে ব্যবহৃত হয় সেগুলোই অন্তরিত পরিবাহী।

১৪। এস আই পদ্ধতিতে ধারকত্বের একক কী?

উত্তরঃ এস আই পদ্ধতিতে ধারকত্বের একক হলো ফ্যারাড


১৫। গোলাকার পরিবাহীর অভ্যন্তরে প্রাবল্যের মান কত?

উত্তরঃ গোলাকার পরিবাহীর অভ্যন্তরে প্রাবল্যের মান শূন্য।

১৬। বিন্দু চার্জের জন্য কুলম্বের সূত্র বিবৃত কর।

উত্তরঃ কুলম্বের সুত্রটি হলো- নির্দিষ্ট মাধ্যমে দুটি বিন্দু আধানের মধ্যে ক্রিয়াশীল আকর্ষণ বা বিকর্ষণ বলের মান আধানদ্বয়ের গুণফলের সমানুপাতিক, এদের মধ্যবর্তী দূরত্বের বর্গের ব্যস্তানুপাতিক এবং এই বল আধানদ্বয়ের সংযোজক সরলরেখা বরাবর ক্রিয়া করে।


১৭। ভেদন যোগ্যতা কাকে বলে?

উত্তরঃ মাধ্যমের যে ধর্ম ঐ মাধ্যমে স্থাপিত দুটি চার্জের মধ্যে কুলম্ব বলকে প্রভাবিত করে তাকে ঐ মাধ্যমের ভেদন যোগ্যতা বলে।

১৮। চার্জের সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ যে ধর্মের উপস্থিতিতে কোনো বস্তু ছোট ছোট হালকা কাগজের টুকরোকে আকর্ষণ করার সামর্থ্য রাখে এবং যার চলাচলে তড়িৎপ্রবাহ, তড়িৎক্ষেত্র ও চৌম্বকক্ষেত্রের উদ্ভব হয় তাকে চার্জ বা আধান বলে।

১৯। গাউসিয়ান তল কাকে বলে? [চ.বো.-১৫]

উত্তরঃ সুষমভাবে চার্জিত একটি গোলকের গোলকীয় তলের প্রত্যেক বিন্দুতে যদি তড়িৎপ্রাবল্য মানে সমান এবং লম্ব অভিমুখে ক্রিয়াশীল থাকে তবে এ প্রকারের গোলকীয় তলকে গাউসিয়ান তল বলে।

২০। গোলাকার পরিবাহীর অভ্যন্তরে প্রাবল্যের মান কত?

উত্তরঃ গোলাকার পরিবাহীর অভ্যন্তরে প্রাবল্যের মান শূন্য।

২১। ধারক কাকে বলে?

উত্তরঃ কাছাকাছি স্থাপিত দুটি পরিবাহীর মধ্যবর্তী স্থানে অন্তরক পদার্থ রেখে তড়িৎ আধানরুপে শক্তি সঞ্চয় করে রাখার যান্ত্রিক কৌশলকে ধারক বলে।

২২। তড়িৎ ফ্লাস্ক কী?

উত্তরঃ কোনো তড়িৎক্ষেত্রের সাথে লম্বভাবে অবস্থিত বা কল্পিত কোনো তলের মধ্য দিয়ে অতিক্রান্ত মোট প্রবাহরেখা হলো তড়িৎ ফ্লাস্ক।

২৩। তড়িৎ ধারকত্ব কী? [রা.বো.-১৭, দি.বো.-১৯, ১৭]

উত্তরঃ কোনো পরিবাহীর বিভব একক পরিমাণ বাড়াতে যে পরিমাণ চার্জের প্রয়োজন হয় তাই ঐ পরিবাহীর তড়িৎ ধারকত্ব।

২৪। চার্জের কোয়ান্টায়ন কাকে বলে? [রা.বো.-১৭, ১৫, ‍সি.বো.-১৯]

উত্তরঃ পরমাণু তথা যেকোনো বস্তুর ন্যূনতম চার্জ ইলেকট্রনের চার্জের পূর্ণসংখ্যার গুণিতক হিসেবে চার্জিত হতে পারে এবং চার্জের মান কখনো ভগ্নাংশ হবে না। একে চার্জের কোয়ান্টায়ন বলে।

২৫। তড়িৎ দ্বিমেরু কাকে বলে? [ঢা.বো.-১৯, রা.বো.-১৯, ১৬, য.বো.-১৯, ১৭, কু.বো.-১৯, ১৬, ১৫,  ব.বো.-১৯, ১৫]

উত্তরঃ এক জোড়া সমান ও বিপরীত বিন্দু আধান অল্প দূরত্বে অবস্থিত থাকলে তাকে তড়িৎ দ্বিমেরু বলে।

দেখুন>>  

পদার্থ বিজ্ঞান প্রথম পত্র ভেক্টর এর ক প্রশ্ন ও উত্তর


২৬। পরাবিদ্যুৎ বা ডাই-ইলেকট্রিক মাধ্যম কী? [চ.বো.-১৬, সি.বো.-১৭, দি.বো.-১৬]

উত্তরঃ যে সকল পদার্থ বিদ্যুৎ পরিবাহী নয়, মুক্ত ইলেকট্রন নেই এবং বৈদ্যুতিক শক্তিকে সঞ্চয় করে রাখতে পারে তাই পরাবিদ্যুৎ বা ডাই-ইলেকট্রিক পদার্থ।

২৭। গসের সূত্র বিবৃত কর।[ঢা.বো.-১৭, রা.বো.-১৬, দি.বো.-১৫]

উত্তরঃ গসের সূত্রটি হলো- কোনো বন্ধ তলের উপর স্থির তড়িৎ ক্ষেত্রের মোট অভিলম্ব আবেশ বা ফ্লাস্ক ঐ তল দ্বারা বেষ্টিত মোট চার্জের  গুণ।

২৮। তড়িৎ মাধ্যম কাকে বলে?

উত্তরঃযে সমস্ত পদার্থের মধ্য দিয়ে চার্জ বা তড়িৎ প্রবাহিত হয় বা প্রবাহিত হতে চায়, তাদেরকে তড়িৎ মাধ্যম বলে।

দেখুন>> মডেল টেষ্ট-১৬ HSC পদার্থ বিজ্ঞান ১ম পত্র ৪র্থ অধ্যায়

২৯।  কাকে বলে?

উত্তরঃ ভোল্ট বিভব পার্থক্যে কোনো ইলেকট্রনকে গতিশীল করতে সম্পন্ন কাজের পরিমাণকে  ইলেকট্রন ভোল্ট()বলে।

৩০। অতি পরিবাহীতা কাকে বলে?

উত্তরঃ অতি নিম্ন তাপমাত্রায় কিছু কিছু পদার্থের রোধ শূন্যে নেমে আসে। এসব পদার্থকে বলা হয় অতিপরিবাহী এবং পদার্থের এ ধর্মকে বলা হয় অতি পরিবাহীতা।

৩১। তড়িৎক্ষেত্র কাকে বলে?

উত্তরঃ একটি আহিত বস্তুর চারদিকে যে অঞ্চলব্যাপী তার প্রভাব বজায় থাকে সেই অঞ্চলকে ঐ আহিত বস্তুর তড়িৎ বলক্ষেত্র বা তড়িতক্ষেত্র বলে।

৩২। সমবিভব তল কী?

উত্তরঃ যে চার্জিত তলের প্রতিটি বিন্দুর বিভব সমান তোকে সমবিভব তল বলে।

৩৩। তড়িৎ প্রাবল্য কী?

উত্তরঃ কোনো বিন্দুতে একক আধান বা চার্জের উপর ক্রিয়াশীল বলই তড়িৎ ক্ষেত্রের প্রাবল্য।

৩৪।  কী?

উত্তরঃ  হচ্ছে একটি ধ্রুব সংখ্যা যাকে শূন্যস্থানের ভেদনযোগ্যতা বা অনুমোদিতা বলে। এর পরিমাপকৃত মান হলো ।

৩৫। তাত্ত্বিকভাবে একটি আহিত বস্তুর তড়িৎক্ষেত্র কেমন হতে পারে?

উত্তরঃ তাত্ত্বিকভাবে একটি আহিত বস্তুর তড়িৎক্ষেত্র অসীম হতে পারে।

৩৬। স্থির তড়িৎ কী?

উত্তরঃ স্থির আধান বা প্রভাবের ক্রিয়াই স্থির তড়িৎ।

৩৭। তড়িৎ প্রাবল্যের একক কী?

উত্তরঃ তড়িৎ প্রাবল্যের একক নিউটন/কুলম্ব()

৩৮।  কুলম্ব আধানের ইলেকট্রন সংখ্যা কত?

উত্তরঃ  কুলম্ব আধানের ইলেকট্রন সংখ্যা  ।

৩৯। দ্বিতাড়িৎ ধ্রুবক(dielectric constant) কাকে বলে?

উত্তরঃ একই দূরত্বে দুটি নির্দিষ্ট বিন্দু চার্জের মধ্যে শূন্য মাধ্যমে ক্রিয়াশীল তড়িৎ বল এবং কোনো দ্বিতাড়িত মাধ্যমে ক্রিয়াশীল তড়িৎ বলের অনুপাতকে ঐ মাধ্যমের দ্বিতাড়িৎ ধ্রুবক বলে।

দেখুন>>  HSCপদার্থ বিজ্ঞান ২য় পত্র ১১শ অধ্যায় জ্যোর্তি বিজ্ঞান (ক ও খ) প্রশ্ন ও উত্তর

৪০। ধারকে সঞ্চিত শক্তির রাশিমালা লেখ।

উত্তরঃ ধারকে সঞ্চিত শক্তির রাশিমালা হলো

৪১। তড়িৎ দ্বিমেরু ভ্রামক কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো একটি তড়িৎ দ্বিমেরুর যেকোনো একটি আধানের পরিমাপ ও তাদের মধ্যবর্তী দূরত্বের গুণফলকে দ্বিমেরু ভ্রামক বলে।

৪২। সমবিভব তলের যে কোনো বিন্দুতে তড়িৎ ক্ষেত্রের প্রাবল্য কোন দিকে ক্রিয়া করে?

উত্তরঃ সমবিভব তলের যে কোনো বিন্দুতে তড়িৎ ক্ষেত্রের প্রাবল্য ঐ তলের সাথে লম্বভাবে ক্রিয়া করে।

৪৩। অন্তরিত অপরিবাহী কী?

উত্তরঃ তড়িৎ সংক্রান্ত কাজে যে সকল পদার্থ সংযোজক হিসেবে ব্যবহৃত হয় সেগুলোই অন্তরিত অপরিবাহী।

৪৪। গোলাকার পরিবাহীর অভ্যন্তরে প্রাবল্যের মান কত?

উত্তরঃ গোলাকার পরিবাহীর অভ্যন্তরে প্রাবল্যের মান শূন্য।

৪৫। কোনো ধারকে চার্জ প্রদান করলে বিভবের কি পরিবর্তন হয়?

উত্তরঃ কোনো ধারকে যতই চার্জ প্রদান করা হয় ততই তার বিভব বৃদ্ধি পায়।

৪৬। তড়িৎ বলরেখা কাকে বলে?

উত্তরঃ তড়িৎক্ষেত্রে স্থাপিত একটি একক ধনাত্মক চার্জ স্থাপন করলে এটি যে পথে পরিভ্রমণ করে তাকে তড়িৎ বলরেখা বলে।

৪৭। তড়িৎ প্রাবল্য ও বিভবের মধ্যে সম্পর্ক কী?

উত্তরঃ তড়িৎ প্রাবল্য তড়িৎ বিভবের ঋণাত্মক নতিমাত্রার সমান।

৪৮।  কুলম্ব আধানের সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ দুটি সম মানের চার্জ শূন্য মাধ্যমে  মিটার দূরে অবস্থান করে পরস্পরের উপর  বল প্রয়োগ করলে ঐ চার্জ দুটির প্রত্যককে  কুলম্ব বলে।


৪৯। তুল্য ধারকত্ব কাকে বলে?

উত্তরঃ ধারকের সমবায়ের পরিবর্তে যে একটি মাত্র ধারক ব্যবহার করলে সমবায়ের বিভব পার্থক্য ও আধানের কোনো পরিবর্তন হয় না তার ধারকত্বকে সমবায়ের তুল্য ধারকত্ব বলে।

৫০। মুক্ত ইলেকট্রন কী?

উত্তরঃ পরমাণুর সর্ববহিঃস্থ শক্তিস্তরের ইলেকট্রনের সাথে নিউক্লিয়াসের আকর্ষণ বল অনেক কম থাকে বলে এর ইলেকট্রন সহজেই পরমাণু থেকে মুক্ত হয়ে তড়িৎ পরিবহনে অংশ নেয়। এদের মুক্ত ইলেকট্রন বলে।

৫১। আধানের নিত্যতা কী?

উত্তরঃ আধানের সৃষ্টি বা বিনাশ নেই তা শুধু এক বস্তু থেকে অন্য বস্তুতে স্থানান্তরিত হয় এবং জগতের মোট আধান সর্বদা একই থাকে এটিই আধানের নিত্যতা।

৫২। একটি ইলেকট্রনের চার্জ কত?

উত্তরঃ একটি ইলেকট্রনের চার্জ ।


 1,360 total views,  3 views today

2 thoughts on “HSC পদার্থ বিজ্ঞান পত্র ২য় স্থির বিদ্যূৎ ক প্রশ্ন ও উত্তর”

Leave a Reply

Your email address will not be published.