সব সময়ই আমরা নিজেদের সুন্দর করে তোলার চেষ্টা করি। তার জন্য কত সময় কত কিছুই না করি। তবে কিছু পরিচর্যা শরীরের চরম ক্ষতি করতে পারে। অনেক সময় ঝামেলার সৃষ্টি করে নাকের লোম। অতিরিক্ত বার বাড়ন্তের কারণে তা নাকের বাইরের দিকে বেরিয়ে আসে। আর হাসার সময় তা আরও স্পষ্ট হয়ে যায়। এটা খুবই বিরক্তিকর। তাই এর হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য অনেকেই নাকের লোম টুইজার বা চিমটার মাধ্যমে তুলে ফেলেন। কিন্তু, এতে সাময়িকভাবে দেখতে সুন্দর লাগলেও, এর জন্য মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

 

 


 

 

নাকের ভিতরের লোম ফিল্টার হিসেবে কাজ করে:নাক দিয়ে নিশ্বাস নেওয়ার সময় আমরা যতটা বাতাস ভিতর পর্যন্ত টেনে নিই, তা নাক ফিল্টার করে। নাকের ভিতরে থাকা লোমগুলি সর্বপ্রথম ধুলাবালি থেকে রক্ষা করার জন্য ফিল্টার হিসেবে কাজ করে থাকে।

নাকের লোম অ্যালার্জি হতে পারে রক্ষা করে:

ধুলো-বালি আটকে যায় সেই লোমের মধ্যে। এর ফলে আমরা বিশুদ্ধ বাতাস গ্রহণ করতে পারি। কিন্তু, লোম না থাকলে বাতাসের সঙ্গে সঙ্গে ধুলো-বালিও আমাদের নাকে ঢুকে যেতে পারে। তার থেকে হতে পারে অ্যালার্জি।

নাকের ভিতরের লোম তোলার ক্ষতির দিক গুলো:

নাকের ভিতরে থাকা লোমগুলি চিমটা দিয়ে তুলে ফেলার ফলে এটি গোড়া থেকে উঠে আসে। এর ফলে সেখানে গর্তের সৃষ্টি হয়। আর নিশ্বাস নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এই গর্ত দিয়ে ব্যাকটেরিয়া আমাদের নাকের ভিতর লোমকূপে সহজেই প্রবেশ করে।

 

 


 

লোম তোলার সময় অনেকের নাক দিয়ে রক্ত বের হয়। আসলে লোমের ঠিক গোড়ার দিকে রক্তনালী থাকে। ফলে লোম তুলে ফেলার সময় ব্যাক্টেরিয়া নাকের মধ্যে প্রবেশ করে তা লোমকূপ দিয়ে খুব সহজেই রক্তে মিশে যেতে পারে। এর ফলে ইনফেকশন গোটা শরীরে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়।

উপড়ে ফেলা লোমের মধ্যে দিয়ে ব্যাকটেরিয়াগুলো অনেক সময় মস্তিষ্কের মধ্যেও চলে যেতে পারে। তার থেকে ব্রেন টিউমার হতে পারে। যার ফলে আপনার মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

নাকের ভিতরের লোম কী ভাবে তুলবেন:


 

আসলে নাকের বাইরে লোম বেরিয়ে আসা কারও পছন্দ নয়। তবে সেগুলিকে চিমটা দিয়ে তোলার কোনও প্রয়োজন নেই। এতে আখেরে ক্ষতিই হবে।

নাকের লোম বেশি বড় হয়ে গেলে তা কাঁচি বা ট্রিমার দিয়ে কেটে ফেলুন। তবে লোমগুলি গোঁড়া পর্যন্ত কেটে ফেললে তা রোগের কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তাই যতটুকু প্রয়োজন ততখানি কাটুন।নির্ভয়ে শ্বাস নিনবাজারে নাকের লোম কাটার জন্য কাঁচি পাওয়া যায়। প্রয়োজনে তা কিনে নিন। তা দিয়ে লোম কাটুন। এতে ভয়ের কোনও কারণ থাকবে না। এমনকী, আপনি শ্বাস নেওয়ার সময় ফিল্টারের ক্ষেত্রেও কোনও সমস্যা হবে না।

পড়ুন >>. অ্যানিমিয়া অথবা রক্তস্বল্পতা থেকে রেহাই পেতে প্রাকৃতিক ভাবে রক্তের হিমোগ্লোবিন বাড়ানোর কৌশল

পড়ুন>>> খুব সহজেই ঘর থেকে তেলাপোকা দূর করুন

 




 

 

 794 total views,  1 views today

বাংলা English