ডিজেল তেলের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে বোরো ধান চাষ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন, কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার প্রান্তিক ও ডিজেল পাম্প দিয়ে বোরো ধান চাষীরা।উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, চলতি মৌসুমে ১৬ হাজার ২১২ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।  জেনে নিন>> হাইব্রিড ধান চাষ পদ্ধতি  এসব জমিতে বিদ্যুৎ চালিত সেচ পাম্প ১ হাজার ৮৬ টি এবং ৪ হাজার ৮৫৫টি ডিজেল চালিত সেচযন্ত্রের সাহায্যে সেচ প্রদান করা হবে। প্রতি লিটার ডিজেলের দাম ১৫ টাকা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিঘা গত বছরের তুলনায় শুধু সেচ বাবদ বোরো চাষিকে ৭০০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা অতিরিক্ত খরচ করতে হবে।এ ছাড়া জমি চাষ,শ্রমিক ও কীটনাশকসহ সব কিছুর দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। জেনে নিন>> বাংলাদেশের ধান পরিচিতি ও ধান চাষ পদ্ধতি   অতিরিক্ত ব্যয়ের কারণে দুশ্চিন্তায় পড়েছে বোরো ধান চাষিরা। যদিও উপজেলা কৃষি বিভাগ বলছে, অল্টারনেটিভ ওয়েটিং অ্যান্ড ড্রাই পদ্ধতি ব্যবহার করে উৎপাদন ব্যয় কমাতে পারে কৃষক। তবুও উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ার কারণে অনেক কৃষক বোরো আবাদ কমিয়ে দিয়েছেন।এতে বোরো ধান উৎপাদন কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন অনেকেই।

 


উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান, ডিজেলের দাম বাড়ায় ধান উৎপাদনে বাড়তি খরচের কথা স্বীকার করে বলেন, আমরা এডব্লিউডি এবং অন্যান্য সেচ সাশ্রয়ী যে প্রযুক্তিগুলোর ব্যহহার, রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টার দিয়ে ধান লাগানো এবং অন্যান্য প্রযুক্তি কৃষকদের গ্রহণ করার জন্য পরামর্শ প্রদান করছি যাতে ধান উৎপাদন খরচ সাশ্রয় করতে পারে।
পাইকেরছড়া ইউনিয়নের কৃষক আব্দুল জলিল জানান, বোরো ধানের চারা লাগানোর প্রস্তুতি নিচ্ছি। তাই প্রতিদিন সেচ দিতে হয়। তেলের দাম বাড়ায় অতিরিক্ত ব্যয় নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।
আরেক প্রান্তিক কৃষক মোজাম্মেল জানান, তেলের দাম বৃদ্ধিতে ধানের চাষ করাই দুষ্কর হয়ে যাবে। হালচাষের খরচ বেড়ে গেছে। গত বছর ট্রাক্টর দিয়ে প্রতি বিঘা জমি ৩০০ টাকায় চাষ দিতাম।এখন ডিজেলের দাম বাড়ায় ৪০০ টাকায় চাষ দিচ্ছি। স্যালো মেশিনে সেচের খরচ বেড়ে গেছে।এবার বোরো আবাদ কমিয়ে দিয়েছি।তবুও হিমশিম খেতে হচ্ছে।

 






 

 

 917 total views,  6 views today

বাংলা English