১। অদৃশ্য বস্তু  কাকে বলে? [সকল.বো.-১৮]

উত্তরঃ অদৃশ্য বস্তু  হচ্ছে এক ধরনের কল্পিত বস্তু যা কোন টেলিস্কোপ দ্বারা দৃষ্টিগোচর হয় না। তবে দৃশ্যমান বস্তু, বিকিরণ এবং মহাবিশ্বের বৃহৎ স্কেল গঠনের উপর এর মহাকর্ষীয় প্রভাব থেকে এর উপস্থিতি উপলব্ধি করা যায়।

২। সুপারনোভা কী? [ঢা.বো.-১৭, রা.বো.-১৭, য.বো.-১৯]

উত্তরঃ নক্ষত্রের ভর যখন দুই থেকে পাঁচ সৌর ভরের মধ্যে থাকে, তখন সংকোচনের সময় এটি এর বহিঃস্খ আস্তরণ ছুঁড়ে দিয়ে অত্যন্ত উজ্জ্বল হয়ে যায়। একে বলা হয় “সুপারনোভা”।

৩। কৃষ্ণবিবর কাকে বলে? [য.বো.-১৭]

উত্তরঃ সুপারনোভা বিস্ফোরণের পর নক্ষত্রের ভর যদি খুব বেশি হয় তখন এর অন্তর্বস্তু অনির্দিষ্টভাবে সংকুচিত হতে থাকে। এভাবে যে বস্তু তৈরি হয় তাকে কৃষ্ণবিবর বলে।

৪। বিগ ব্যাং কী? [সি.বো.-১৭, ১৫]

উত্তরঃ বিগ ব্যাং হচ্ছে মহাবিশ্বের পরিলক্ষিত ক্রমবর্ধমান সম্প্রসারণ। আদিতে ঘনবিন্যস্ত থাকায় পৃথিবী প্রচন্ড উত্তপ্ত পদার্থের অগ্নিগোলক ছিল যা বিকিরণ বিগ ব্যাং-এর ফলে চতুর্দিকে প্রসারিত হয়, ঠান্ডা হয় এবং নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় অনুক্রমিত অবস্থানান্তরিত হয়।

৫। রেডিও টেলিস্কোপ কী? [ব.বো.-১৭]

উত্তরঃ রেডিও টেলিস্কোপ এক ধরনের দিক নির্দেশী বেতার এন্টেনা যা বেতার জ্যোতির্বিদ্যায় ব্যবহৃত হয়।

৬। কৃষ্ণগহবর কী? [ঢা.বো.-১৫, কু.বো.-১৯, ব.বো.-১৬]

উত্তরঃ মহাকাশে কোন বস্তু বা এর আশেপাশে যে অঞ্চল থেকে কোনো তথ্য পাওয়া সম্ভব নয় এবং যেখান থেকে আলো বা কোনো বস্তু বেরিয়ে আসতে পারে না সেই অঞ্চলই হলো কৃষ্ণগহবর।

৭। মৌলিক বল কী? [কু.বো.-১৫]

উত্তরঃ যে সকল বল অন্য কোনো বল থেকে উৎপন্ন হয়নি এবং অন্য কোনো বলের রুপও নয় বা রুপান্তরও নয়, সেসব বলকে মৌলিক বল বলে।

৮। ডার্ক এনার্জি কাকে বলে? [দি.বো.-১৯]

উত্তরঃমহাবিশ্বের ত্বরান্বিত সম্প্রসারণ কোণ এক অদৃশ্য শক্তির কারণেই হচ্ছে।এই অদৃশ্য শক্তিকেই ডার্ক এনার্জি বলে।

৯। জ্যোতির্বিজ্ঞান কাকে বলে?

উত্তরঃ যে শাস্ত্র আকাশ ও মহাকাশের চন্দ্র, সূর্য, গ্রহ, নক্ষত্র, নীহারিকা ইত্যাদি বিষয়ে তথ্যাদির বিবরণসহ আলোচনা ও অনুসন্ধান করে তাকে জ্যোতির্বিজ্ঞান বলে।

১০। মিথস্ক্রিয়া কী?

উত্তরঃ মিথষ্ক্রিয়া বলতে পারস্পরিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া অর্থাৎ আকর্ষণ বিকর্ষণকে বুঝায়। অন্যভাবে বলা যায়, দ্বিপাক্ষিক কিছু বিনিময় বা কোনো কিছু ক্ষরণ বা গ্রহণ বিনিময়ে রুপান্তরকে বুঝায়।

১১। পৃথিবীর মুক্তি বেগের মান কত?

উত্তরঃ পৃথিবীর মুক্তি বেগের মান প্রায়  বা,

১২। আকাশ গঙ্গা কী?

উত্তরঃ আমরা যে গ্যালাক্সিতে বা ছায়াপথে বাস করি তার নাম আকাশ গঙ্গা।

১৩। পৃথিবীর অভিকর্ষজ ত্বরণের মান কত?

উত্তরঃ পৃথিবীর অভিকর্ষজ ত্বরণের মান

১৪। সৃষ্টিতত্ত্ব কী?

উত্তরঃ মহাবিশ্বের প্রকৃতি, উৎস ও বিবর্তন নিয়ে যে পর্যালোচনা তাকে সৃষ্টিতত্ত্ব বলে।

১৫। অ্যানড্রোমেডা কী?

উত্তরঃ অ্যানড্রোমেডা একটি গ্যালাক্সি যাকে খালি চোখে দেখা যায় না।

১৬। অভিকর্ষীয় ত্বরণ কী?

উত্তরঃ অভিকর্ষ বলের প্রভাবে মুক্তভাবে পড়ন্ত বস্তুর বেগ বৃদ্ধির হারকে অভিকর্ষীয় ত্বরণ বলে।

১৭। সৌরজগৎ কী নিয়ে গঠিত?

উত্তরঃ সূর্য ও এর গ্রহ ও উপগ্রহ, ধুমকেতু, উল্কা, গ্রহাণু, গ্যাস, ধূলিকণা ইত্যাদি নিয়ে সৌরজগৎ গঠিত।

১৮। অপটিক্যাল টেলিস্কোপ কাকে বলে?

উত্তরঃ যে টেলিস্কোপের সাহায্যে দৃশ্যমান আলোর সহায়তায় দৃশ্যমান আলো নিঃসরণকারী বা প্রতিফলনকারী বস্তু পর্যবেক্ষণ করা হয় তাকে অপটিক্যাল টেলিস্কোপ বলে।

১৯। কৃত্রিম উপগ্রহ কাকে বলে?

উত্তরঃ ভূপৃষ্ঠ হতে একটি নির্দিষ্ট উচ্চতায় নির্দিষ্ট বেগে মনুষ্য নির্মিত কোনো মহাকাশযান উপগ্রহ চাঁদের মতো পৃথিবীকে কেন্দ্র করে বৃত্তাকার পথে ঘুরতে থাকলে তাকে কৃত্রিম উপগ্রহ বলে।

২০। মহাশূন্য প্রোব কী?

উত্তরঃ মহাশূন্য প্রোব হলো মহাশূন্যে অনুসন্ধানী যান যা অপটিক্যাল ও রেডিও টেলিস্কোপ ছাড়াও মহাবিশ্ব অনুসন্ধানের জন্য ব্যবহৃত সকল রকম কৌশল অবলম্বন করে।

২১। মহাবিশ্ব কী?

উত্তরঃ সুয, নক্ষত্র, গ্রহ, উপগ্রহ, উল্কা, নীহারিকা ইত্যাদি নিয়ে মহাবিশ্ব গঠিত। মহাবিশ্ব হলো সকল বস্তু যা আমরা কোনো না কোনোভাবে পর্যবেক্ষণ করতে পারি।

২২। জ্যোতির্বিজ্ঞানের সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ জ্যোতির্বিজ্ঞান হলো প্রাচীনতম বিজ্ঞান। মহাবিশ্বের সৃষ্টি রহস্য, এর গঠন, বিবর্তন, সংগঠন এবং বিভিন্ন অংশের মধ্যকার মিথস্ক্রিয়া ইত্যাদি জ্যোতির্বিজ্ঞানের মূল বিষয়।

২৩। সোয়ার্জস্কাইল্ড ব্যাসার্ধ কাকে বলে?

উত্তরঃ কৃষ্ণবিবরের ঘটনা দিগন্তের ব্যাসার্ধকে সোয়ার্জস্কাইল্ড ব্যাসার্ধ বলে।

২৪। শ্বেত বামন কী?

উত্তরঃ মৃত্যু শুরুর মুহূর্তে যে সমস্ত তারকার ভর সূর্যের ভরের গুণ কম সেগুলো শ্বেত বামন।

২৫।চন্দ্র শেখর সীমা কী?

উত্তরঃ মৃত্যু পূর্ব শুরুর মুহুর্তে কোনো তারকার ভর 1.4 সৌর ভরের বেশি হলে তারকাটি কৃষবিবর বা নিউট্রন তারকায় পরিণত হতে পারে। ভরের এই সীমা চন্দ্র শেখর সীমা নামে পরিচিত।

২৬। নেবুলা কী?

উত্তরঃ মহাকাশে ছড়িয়ে থাকা গ্যাস ও ধুলোর সুবিশাল মেঘের সমারোহই নীহারিকা বা নেবুলা।

২৭। গ্যালাক্সি কী?

উত্তরঃ অনেকগুলো নক্ষত্রের সমাবেশকে গ্যালাক্সি বলা হয়।

২৮। পালসার কী? [চ.বো.-১৯]

উত্তরঃ কোনো নক্ষত্র যখন সুপারনোভা হিসেবে বিস্ফোরিত হয় তখন এর কোর বা মূল বস্তুর চাপ এত বেশি হয় যে প্রোটন ও নিউট্রন একত্রিত হয়ে নিউট্রন গঠন করে। এদেরকে নিউট্রন নক্ষত্র বা পালসার বলে।

২৯। কোয়াসার কী?

উত্তরঃ কোয়াসার হলো আধানাক্ষত্রিক রেডিও উৎস যাদের গঠন নক্ষত্রের ন্যায় এবং ক্ষমতাশালী বেতার তরঙ্গ নিঃসরণ করে।

৩০। ঈশ্বর কণা কী?

উত্তরঃ হিগস-বোসন ঈশ্বর কণা নামে পরিচিত।

৩১। লেপটন কণা কী? [রা.বো.-১৯]

উত্তরঃ যে সকল কণা বিদ্যুৎ চুম্বকীয় এবং দুর্বল নিউক্লিয় পরিক্রমায় অংশগ্রহণ করতে পারে না এবং ‍স্পিন  এবং জীবনকাল অসীম তাদেরকে লেপটন কণা বলে।

৩২। হ্যাড্রন কণা কী?

উত্তরঃ যে সকল মৌলিক কণা শক্তিশালী নিউক্লীয়, বিদ্যুৎ চুম্বকীয় এবং দুর্বল নিউক্লিয় এই তিন প্রক্রিয়াতে অংশ গ্রহণ করতে পারে তাদেরকে হ্যাড্রন কণা বলে।

৩৩। লেপটন কণার স্পিন কত?

উত্তরঃ লেপটন কণার স্পিন

৩৪। হ্যাড্রন কণা কয় ধরনের ও কী কী?

উত্তরঃ হ্যাড্রন কণা দুই ধরনের যথা- ১. মেসন ও ২. বেরিয়ন।

৩৫। মৌলিক কণা কী?

উত্তরঃ যে সকল কণা পরম আদি বা প্রাথমিক এবং অবিভাজ্য তাদেরকে মৌলিক কণা বলে।

৩৬। সূর্যের পৃষ্ঠের তাপমাত্রা কত?

উত্তরঃ সূর্যের পৃষ্ঠের তাপমাত্রা প্রায়

৩৭। ধুমকেতু কী?

উত্তরঃ পানি, অ্যামোনিয়া ও মিথেন গ্যাস কোনো নিরেট ক্ষুদ্র শিলাখন্ডের উপর জমে তৈরি হয় ধুমকেতু।

৩৮। ঘটনা দিগন্ত কী?

উত্তরঃ ঘটনা দিগন্ত হলো কৃষ্ণবিবর অঞ্চলের সীমা।

৩৯। কোয়ার্ক কী? [ঢা.বো.-১৬]

উত্তরঃ কোয়ার্ক হলো অতি পারমাণবিক কণা যা দ্বারা প্রোটন ও নিউট্রনসমূহ গঠিত।

দেখতে ক্লিক করুন  >>>  HSC পদার্থ বিজ্ঞান ২য় পত্র
তাপগতি বিদ্যা (প্রথম অধ্যায়)ক প্রশ্ন এবং উত্তর

খ প্রশ্ন ও উত্তর

১। কোন শর্তে মহাবিশ্বে মহাসংকোচন শুরু হবে? ব্যাখ্যা কর।[চ.বো.-১৯]

উত্তরঃ  এর চেয়ে  বড় হলে মহাবিশ্ব আবদ্ধ হবে এবং সাথে সাথে বা কিছুকাল পরে মহাকর্ষ প্রসারণ থামিয়ে দেবে। এর ফলে মহাবিশ্ব সঙ্কুচিত হতে শুরু করবে। ঘটনার পরম্পরায় হবে মহাবিস্ফোরণের পর যা যা ঘটেছিল তার বিপরীত ফলে কড়কড়, মড়মড় মহাশব্দে ভেঙে এক চরম সন্ধিক্ষণ উপস্থিত হবে এবং মহাবিশ্বের অগ্নিগর্ভ মৃত্যু হবে। এরপর অন্য একটি মহাবিস্ফোরণ যদি ঘটে তাহলে মহাবিশ্বের শুরু ও শেষ হবে চক্রাকার যার কোনো শুরু বা শেষ নেই।

২। সূয কৃষ্ণবিবর হবে না-ব্যাখ্যা কর।[য.বো.-১৯, ১৭]

উত্তরঃ জোতির্পদার্থবিজ্ঞানের মহাবিশ্বের ভবিষ্যৎ থেকে জানা যায় কোনো ভস্মীভূত নক্ষত্র এর নিজের মহাকর্ষের প্রভাবেই ধ্বংস হয়ে কৃষ্ণবিবরে রুপ নিতে পারে। সেজন্য এর ভর হতে হবে দুই সৌর ভর অর্থাৎ দুটি সূর্যের ভরের সমান। কিছু সূয যদি বর্তমান আকার থেকে  ব্যাসার্ধে পৌঁছায় তবে এটি আমাদের কাছে অদৃশ্য মনে হবে। তবুও এ সময় তার অভিকর্ষীয় প্রভাব থেকে যাবে এবং পৃথিবী বর্তমান সূর্যের চারদিকে যেমন ঘুরছে তেমনই ঘুরবে। অর্থাৎ উপরের আলোচনা হতে বলা যায় সূর্যের ভর দুই সৌর ভরের চেয়ে কম হওয়ায় এটি কৃষ্ণবিবর হবে না।

৩। কৃষ্ণগহবর থেকে আলো নির্গত হতে পারে না কেন তা ব্যাখ্যা কর।[ঢা.বো.-১৯, চ.বো.-১৭]

উত্তরঃ কৃষ্ণগহবরের ভর এবং ঘনত্ব অসীম হয়। এ কারণে এর মাধ্যাকর্ষণ শক্তি এত প্রবল যে কোনো বস্তু এর মধ্যে প্রবেশ করলে তা আর বাইরে আসতে পারে না। এমনকি আলোর কণিকা ফোটন নির্গত হলেও এর মধ্যাকর্ষণ শক্তির কারণে এটি মুক্ত হতে পারে না। এজন্য কৃষ্ণগহবর থেকে আলো নির্গত হতে পারে না।

৪। চন্দ্র শেখর সীমার মাধ্যমে শ্বেত বামন ও নিউট্রন তারকার মধ্যে পার্থক্য নিরুপণ কর।[সকল.বো.-১৮]

উত্তরঃ নক্ষত্রের ভর 1.4 সৌর ভরের চেয়ে কম হলে, নক্ষত্রটি যখন সংকুচিত হতে থাকে তখন এর মক্তি মুক্ত হতে থাকে। কিন্ত এটি এমন একটি ধাপে পৌঁছায় যে এটি এর বহিঃস্থ আস্তরণকে উড়িয়ে দেয়। ফলে হঠাৎ করেই প্রচুর পরিমাণে শক্তি নির্গত হয়। এ বিস্ফোরণে যা অবশিষ্ট থাকে তাকে বলা হয় শ্বেত বামন নক্ষত্র। নিউক্লীয় ফিউশন প্রক্রিয়ার শক্তি উৎপাদনের জন্য কোনো হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম এতে থাকে না।

৫। সূ্য কৃষ্ণগহবরে পরিণত হলে পৃথিবী কি সূর্যের চারিদিকে ঘূরবে? ব্যাখ্যা কর।[সি.বো.-১৬]

উত্তরঃ সূয কৃষ্ণগহবরে পরিণত হলেও পৃথিবী সূর্য়ের চারদিকে ঘুরবে। ব্যাখ্যাঃ পৃথিবী সূর্যের চারদিকে তার অভিকর্ষ বল বা অভিকর্ষের প্রভাবের কারণে ঘটে। সূয কৃষ্ণগহবরে পরিণত হলে সূয আমাদের কাছে অদৃশ্য মনে হবে কিন্ত তার অভিকর্ষীয় প্রভাব ঠিকই বিদ্যমান থাকবে।এজন্য সূ্য কৃষ্ণগহবরে পরিণত হলে পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘূরবে।

৬। কৃষ্ণবিবরকে দেখা যায় না কেন?[ সি.বো.-১৭]

উত্তরঃ কোনো তারকার যদি যথেষ্ট ভর ও ঘনত্ব থাকে তাহলে তার মহাকর্ষীয় ক্ষেত্র এতো শক্তিশালী হবে যে আলো ঐ তারকা হতে নির্গত হতে পারবে না। আলোকে সে তার নিজের দিকে টেনে রাখবে। ফলে ঐ তারকা হতে নির্গত আলো তারকাতেই ফিরে যাবে অর্থাৎ তারকা হতে বের হতে পারে না। এ ধরনের বস্তুকে কৃষ্ণবিবর বলে। এজন্য কৃষ্ণবিবরকে দেখা যায় না।

৭। ঘটনা দিগন্তের ভৌত তাৎপয লিখ।[সি.বো.-১৯]

উত্তরঃ কোনো কৃষ্ণ বিবরকে ঘিরে শোয়ার্জশিল্ড ব্যাসার্ধের গোলকের পৃষ্ঠকে ঘটনা দিগন্ত বলে। ভৌত তাৎপযঃ ১. এটি কৃষ্ণ বিবরে রূপান্তরের শর্ত; ২. ঘটনা দিগন্ত থাকা কোনো বস্তু কৃষ্ণ বিবরের সুপার গ্র্যাভিটি ছাড়িয়ে বাইরে(এমনকি আলোও) আসতে পারে না। সুতরাং এর ভিতরের কোনো ঘটনা দেখা যায় না।

৮। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে কি কি সেবা পাওয়া যাবে? [দি.বো.-১৯]

উত্তরঃ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে নিম্নোক্ত সেবাসমূহ পাওয়া যাবে। প্রথমতঃ এ স্যাটেলাইটের সক্ষমতা বিক্রি করে বাংলাদেশ বৈদেশিক মুদ্রা ও সাশ্রয় দুটোই করতে পারবে; দ্বিতীয়তঃ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট ও টেলিযোগাযোগ সেবার সম্প্রসারণ সম্ভব হবে; তৃতীয়তঃ দুযোগ ব্যবস্থাপনায় ও জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কাজও এ স্যাটেলাইটের ব্যবহার সম্ভব হবে।

৯। রেডিও টেলিস্কোপের পর্যবেক্ষণের কাজ  থেকে  তরঙ্গদৈর্ঘ্যের মধ্যে করতে হয় কেন?

উত্তরঃ রেডিও টেলিস্কোপের দর্শন তথা পর্যবেক্ষণের কাজ  থেকে  তরঙ্গদৈর্ঘ্যের মধ্যে করতে হয় কারণ তরঙ্গদৈর্ঘ্য  এর বেশি হলে আয়ন মন্ডলে শোষণ ঘটে। আবার  এর চেয়ে কম হলে বায়ুমন্ডলের পানি, কার্বন ডাই অক্সাইড ও ওজোন কর্তৃক শোষিত হয়।

১০। আবর্তনকালে নভোচারীরা ওজনহীনতা অনুভব করে কেন?

উত্তরঃ মহাশূন্যচারীরা মহাশূন্যযানে পৃথিবী থেকে একটি নির্দিষ্ট উচ্চতায় বৃত্তাকার পথে প্রদক্ষিণ করে। এ বৃত্তাকার গতির জন্য পৃথিবীর কেন্দ্রের দিকে ঐ উচ্চতায় অভিকর্ষজ ত্বরণের মানের সমাণ মানের একটি ত্বরণ সৃষ্টি হয়। ফলে এ মহাশূন্যযানের দেয়ালের সাপেক্ষে মহাশূন্যচারীর ত্বরণ  হয়। তাই  আবর্তনকালে নভোচারীরা ‍ওজনহীনতা অনুভব করেন।

১১।  হলে কী ঘটবে?

উত্তরঃ  এর চেয়ে  বড় হলে মহাবিশ্ব আবদ্ধ হবে এবং সাথে সাথে বা কিছুকাল পরে মহাকর্ষ প্রসারণ থামিয়ে দেবে। এর ফলে মহাবিশ্ব সঙ্কুচিত হতে শুরু করবে। ঘটনার পরম্পরায় হবে মহাবিস্ফোরণের পর যা যা ঘটেছিল তার বিপরীত ফলে কড়কড়, মড়মড় মহাশব্দে ভেঙে এক চরম সন্ধিক্ষণ উপস্থিত হবে এবং মহাবিশ্বের অগ্নিগর্ভ মৃত্যু হবে। এরপর অন্য একটি মহাবিস্ফোরণ যদি ঘটে তাহলে মহাবিশ্বের শুরু ও শেষ হবে চক্রাকার যার কোনো শুরু বা শেষ নেই।

১২। অপটিক্যাল টেলিস্কোপের মূলনীতি লেখ।

উত্তরঃঅপটিক্যাল টেলিস্কোপের মূলনীতি হলো-প্রতিফলন বা প্রতিসরণের পর দূরবর্তী বস্তুর বিবর্ধিত মাধ্যমে প্রতিবিম্ব গঠন এবং এদের বিবর্ধনের পর মাধ্যমে মহাকাশের কোনো জ্যোতিষ্ক পর্যবেক্ষণ ও তাদেরে সমএর্ক তথ্য সংগ্রহ।

১৩। গ্রহাণুপুঞ্জ বলতে কী বুঝ?

উত্তরঃ মঙ্গল ও বৃহস্পতি গ্রহের কক্ষপথের মাঝ দিয়ে অতিক্ষুদ্র গ্রহের মতো কিছু বস্তু সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে তাদের গ্রহাণুপুঞ্জ বলে। প্রথম গ্রহাণু আবিষ্কারের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় 2000 গ্রহাণুপুঞ্জ আবিষ্কৃত হয়েছে। এদের সর্ববৃহৎটির নাম সেরেস। এর ব্যাসার্ধ  এবং সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে সময় নেয় 4.6 বছর।

১৪। ভূস্থির উপগ্রহ বলতে কী বুঝ?

উত্তরঃ কোনো কৃত্রিম উপগ্রহ পৃথিবীকে আবর্তন করার সময় যদি তার আবর্তন কাল পৃথিবীর আহ্নিক গতির আবর্তন কালের(পৃথিবীর নিজ অক্ষে ঘূর্ণনকাল অর্থাৎ 24 ঘন্টা) সমান হয় তবে পৃথিবীর একজন পর্যবেক্ষকের নিকট উপগ্রহটি সবসময় স্থির মনে হবে। এ ধরনের উপগ্রহকে ভূস্থির উপগ্রহ বলে।

১৫। কৃষ্ণবিবর কিভাবে সৃষ্টি হয়? ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ একটি তারকায় যদি যথেষ্ট ভর ও ঘনত্ব থাকে তাহলে তার মহাকর্ষীয় ক্ষেত্র এতো শক্তিশালী হবে যে, আলোক সেখান থেকে নির্গত হতে পারবে না। সেই তারকার পৃষ্ঠ থেকে নির্গত আলোক বেশি দূর যাওয়ার আগেই তারকাটির মহাকর্ষীয় আকর্ষণ তাকে পেছনে টেনে নিয়ে আসবে। ঐসব তারকা থেকে আলো আসতে পারে না বলে আমরা এদের দেখতে পাই না। তাই এদের মহাকর্ষ আকর্ষণ আমাদের বোধগম্য হবে না, এ সমস্ত বস্তুপিন্ডকে কৃষ্ণবিবর বলে।

১৬। সুপারনোভা কীভাবে কৃষ্ণগহবরে পরিনত হয়?

উত্তরঃ সুপারনোভা সংকুচিত হয়ে ক্ষুদ্র ও ঘন হয়। তখন এর কোর বা মূলবস্তুর চাপ এতো বেশি হয় যে, প্রোটন ও ইলেকট্রন একত্রিত হয়ে নিউট্রন গঠন করে। তখন একে নিউট্রন তারকা বলে। নিউট্রনতারকার সাথে জড়িত অতি উচ্চ চৌম্বক ক্ষেত্র। এ নিউট্রন তারকারা সংকুচিত হলে কৃষ্ণগহবরে পরিণত হয়।

১৭। সূয কীভাবে জ্বলে ওঠে?

উত্তরঃ মহাকর্ষ বলের প্রভাবে গাসীয় পদার্থের সংকোচন হয় যার ফলশ্রুতিতে সৃষ্টি হয় গ্যালাক্সি। গ্যালাক্সির মধ্যেও গ্যাসের মহাকর্ষীয় ঘনীভবনের ফলে হাইজ্রোজেন ও হিলিয়াম মিলে তৈরি ঘনীভূত গ্যাসের অণু-পরমাণুর মধ্যে ঘর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে নিউক্লীয় ফিউশন বিক্রিয়া শুরু হয় এবং বিপুল পরিমাণে শক্তি নির্গত হয়। সূয এভাবেই জ্বলে ওঠে।

১৮। কখন নিউট্রন নক্ষত্র পালসারে পরিণত হয়?

উত্তরঃ সুপারনোভা যখন বিস্ফোরিত হয় তখন এর কোর বা মূল বস্তুর চাপ এত বেশি হয় যে প্রোটন ও নিউট্রন একত্রিত হয়ে নিউট্রন গঠন করে, একে বলা হয় নিউট্রন নক্ষত্র। এর সাথে জড়িত থাকে অতিউচ্চ চৌম্বকক্ষেত্র। তাই এটি নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর রেডিও পালস নির্গমন করে, একে পালসার বলা হয়। ১৯৬৭ সালে প্রথম নিউট্রন নক্ষত্র বা পালসারকে উদঘাটন করা সম্ভব হয়েছিল।

১৯। জ্যোতিপদার্থবিজ্ঞান সম্পর্কিত ধারণা ব্যাখ্যা কর।

উত্তরঃ বিজ্ঞানের যে শাখায় মহাকাশ ও মহাজাগতিক বস্তু সম্পর্কে পর্যালোচনা করা হয় তাকে জ্যোতির্বিজ্ঞান বলে। জ্যোতির্বিজ্ঞানে মহাবিশ্বের গঠন ও গ্রহ নক্ষত্রের গতি নিয়ে আলোচনা করা হয়। নিউটনের মহাকর্ষ সূত্র, আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতাবাদ তত্ত্ব জোতির্বিজ্ঞান গবেষণায় আধুনিকতা এনে দিয়েছে। পদার্থবিজ্ঞানের কোয়ান্টাম বলবিদ্যা এবং সাধারণ আপেক্ষিক তত্ত্বের আবির্ভাব জ্যোতির্বিদ্যায় বহুসংখ্যক গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্য ব্যাখ্যায় উন্নতি সাধন করেছে।

২০। কোনো কৃষ্ণবিবরের শোয়ার্জশিল্ড ব্যাসার্ধ  বলতে কী বোঝ?

উত্তরঃ কোনো কৃষ্ণবিবরের শোয়ার্জশিল্ড ব্যাসার্ধ  বলতে বোঝায়, এর  মধ্যে কোনো বস্তু থাকলে কৃষ্ণবিবরের মহাকর্ষ আকর্ষণ দ্বারা আটকা পড়বে এবং বস্তুটি তা থেকে মুক্ত হতে পারবে না। আবার এটাও বুঝায় যে, ঐ কৃষ্ণবিবরের ঘটনা দিগন্ত  পর্যন্ত বিস্তৃত।

 

 2,621 total views,  2 views today