আম একটি সুস্বাদু ফল । আম পছন্দ করে না এমন লোক থুজে পাওয়া কঠিন।সারা পৃথিবীতে সমাদৃত একটি ফল। তাই একে ফলের রাজা বলা হয়। আমে আছে অনেক প্রয়োজনীয় উপাদান যা আমাদের শরীরকে সুস্থ   রাখতে সাহায্য করে। জেনে নিন>>খুব সহজে সংরক্ষণ করুন কাঁচা কিংবা পাকা আম  অনেকেই ভাবেন আম খেলে ওজন বেড়ে যাবে। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে এটি আসলে ফ্যাট, কোলেস্টরেল ও লবন মুক্ত একটি ফল। তবে আমরা যদি ক্যালোরি লেভেল এর বেশি খাই নিশ্চয়ই তা ভালো নয়। বরং নিয়ম মেনে খেলে এটি ওজনের ওপরে কোনো প্রভাব বিস্তার করে না।
পুষ্টিবিদেরা বলেন, কাঁচা বা পাকা দুই ধরনের আমই শরীরের জন্য ভালো৷ আম কাঁচা বা পাকা যে অবস্থায়ই থাকুক না কেন, শরীরের জন্য এর কোনো নেতিবাচক দিক নেই বললেই চলে। অনেক ক্ষেত্রে পাকা আমের চেয়ে কাঁচা আমের গুনাগুন অনেক বেশি।



 

জেনে নেই কাঁচা ও পাকা আমের নানান জানা ও অজানা গুনাগুণ-

 

আম ( কাঁচা পাকা)খেলে  নিম্ন উপকার গুলো পাবেন- আরও জানুন>>সারা বছর লিচু সংরক্ষণ করে রাখার কৌশল

    • ওজন কমাতে চাইলে কাঁচা আম খেতে পারেন।
    • হজম শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা রাখে।
    • শরীর ফিট রাখে, দেহের শক্তি বাড়ায় এবং শরীরের ক্ষয়রোধ করে।
    • উচ্চ পরিমাণ প্রোটিন এর উপস্থিতি যা জীবাণু থেকে দেহকে সুরক্ষা দেয়।
    • পুরুষের যৌনশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।
    • আম পুরুষের শুক্রাণুর গুণগত মানকে ভালো রাখে।




  • লিভারের সমস্যায় কাঁচা আম বেশ উপকারী।
  • সন্তান সম্ভবা নারীর আয়রনের ঘাটতি পূরণে আম বেশি উপকারী।
  • কাঁচা আম কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার জন্য খেতে পারেন।
  • কাঁচা আম মাড়ির জন্য ভালো, দাঁতের ক্ষয় এবং কাঁচা আম দেহের শক্তি শরীরের এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • অন্য দিকে পাকা আম আমাদের ত্বক কে সুন্দর, উজ্জ্বল ও মসৃণ করে।
  • আম চোখের দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং রাতকানা রোগ থেকে রক্ষা করে।
  • পাকা আমে খনিজ লবণের উপস্থিতি দাঁত, নখ, চুল ইত্যাদি মজবুত করতে সাহায্য করে।

সংকলন করেছেন- সৈয়দা মোসলেমা বেগম







 

 1,665 total views,  4 views today

বাংলা English